বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন


গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত : দুর্গতরা এখনও পায়নি ত্রাণ সহায়তা

গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত : দুর্গতরা এখনও পায়নি ত্রাণ সহায়তা


শেয়ার বোতাম এখানে

জাকির হোসেন, গোয়াইনঘাট:

ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে সিলেটের গোয়াইনঘাটে সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। কোন কোন এলাকায় খানিকটা উন্নতি হলেও বন্যা পরিস্থিতি এখনও বিপদ সীমার কাছাকাছি রয়েছে। ডাউকি নদীর প্রবল স্রোতে নদীর তীরবর্তী এলাকার কয়েক জায়গায় ভাঙ্গনের খবর পাওয়া গেছে। পাহাড়ে বৃষ্টিপাত হলে যেকোন সময় বন্যা পরিস্থির আরও অবনতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পরিস্থিতি আরও অবনতি হলে লোকজনের জান মাল যাতে করে রক্ষা পায় সে লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৬০টি আশ্রয় কেন্দ্র। তবে, সরকারি বা বেসরকারি ভাবে এখনও পর্যন্ত কোথাও কোন ত্রাণ সহাযতা দেয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

জানা যায়, কয়েক দিনের ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গত বৃহস্পতিবার থেকে উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হতে থাকে। এক মাসের ব্যাবধানে গোয়াইনঘাটে ফের বন্যা দেখা দেয়। তলিয়ে যায় উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়ক। সারী, গোয়াইন, ডাউকি ও পিয়াইন নদী দিয়ে বিপদ সীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। এতে করে বন্যার পানি বৃদ্ধি পেয়ে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত হয়ে যায়। ফলে পানিবন্দি হয়ে পড়েন প্রায় সহস্রাধিক পরিবার। বসত বাড়িতে পানি উঠায় গবাদি পশু নিয়েও বিপাকে রয়েছেন তারা। পানিবন্দি পরিবারগুলোর মধ্যে গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জাফলং চা বাগান এলাকায় কিছু শুকনো খাবার বিতরণ করা হলেও এখনও পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি কোন ত্রাণ সহায়তা কোথাও দেয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়নি।

বন্যার পানিতে বসত বাড়ির পাশাপাশি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত হয়েছে। অনেকের পুকুরের পাড় ডুবে গিয়ে মাছ ভেসে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ডাউকি নদীর প্রবল স্রোতে উপজেলার মমিনপুর, নয়াগাঙেরপাড় ও বাউরবাগ হাওর গ্রামের নদীর তীরবর্তী এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গনের কবলে পড়ে অনেকের বসত বাড়ির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি জানিয়েছেন।

এদিকে বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে কৃষকের প্রায় ১ হাজার হেক্টর ফসলি জমি। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে ফসলি জমি নিমজ্জিত হওয়ার পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করছে উপজেলা কৃষি অফিস।

এ ব্যাপারে কথা হলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. সুলতান আলী জানান, পাহাড়ি ঢলের কারণে উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার কারণে আউশ ধান, বোনা আমন ও আমন ধানের বীজতলা এবং সবজি ক্ষেতসহ সব মিলিয়ে প্রায় সাড়ে ৮শ’ হেক্টর ফসলি জমি নিমজ্জিত হওয়ার খবর পেয়েছি। তবে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হলে এর পরিমান আরও বৃদ্ধি পাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। আর যদি বন্যার পানি দুয়েকদিনের মধ্যে কমে যায় তাহলে, তলিয়ে যাওয়া ফসলের তেমন কোন ক্ষতি হবেনা বলে তিনি জানিয়েছেন।

বন্যা পরিস্থিতির সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাজমুস সাকিব জানান, ভারি বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলের কারণে উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়ে গেছে। এর মধ্যে জাফলং চা বাগান ও রুস্তমপুরের কিছু এলাকায় চিড়া, গুড়সহ শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত সরকারি ত্রাণ সহায়তা পাননি জানিয়ে তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় ত্রাণ সহায়তা চেয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। বরাদ্ধ পাওয়ার সাথে সাথে তাৎক্ষণিকভাবে তা বিতরণ করা হবে।

সর্বশেষ বন্যা পরিস্তিতির বিষয়ে তিনি বলেন, কোন কোন এলাকায় খানিকটা উন্নতি হলেও পরিস্থিতি এখনও বিপদ সীমার কাছাকাছি রয়েছে। তবে পাহাড়ে বৃষ্টিপাত হলে যেকোন সময় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে। আর পরিস্থিতির অবনতি হলে লোকজনের জান মাল যাতে রক্ষা পায় সে লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬০টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
তবে, এ প্রতিবেদন লেখার সময় গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত বন্যার পানি পূণরায় বৃদ্ধি পাওয়া অব্যাহত রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin