বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০১:৫১ অপরাহ্ন

গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি : পর্যটক আগমনে নিরুৎসাহিত প্রশাসনের

গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি : পর্যটক আগমনে নিরুৎসাহিত প্রশাসনের


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 40
    Shares

জাকির হোসেন, গোয়াইনঘাট:

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল আর ভারী বর্ষণে সিলেটের গোয়াইনঘাটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। গত কয়েকদিন থেকে টানা বর্ষণ আর পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট বন্যায় আবারও ভোগান্তিতে পড়েছেন উপজেলার সাধারণ মানুষ। অপর দিকে, সড়ক পথে চলাচলকারি যাত্রী সাধারণের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। কয়েক দিনের টানা বর্ষণ হওয়ায় ঢলের পানি বেড়ে গোয়াইনঘাটের সিংহভাগ অঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে বিভিন্ন সড়ক পানির নিচে তলিয়ে গেছে। যার কারণে সিলেট জেলা শহরের সঙ্গে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

এদিকে, অসময়ের বন্যার কারণে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র জাফলং, বিছনাকান্দি, পান্তুমাই ও রাতারগুল এলাকায় পর্যটক আগমন নিরুৎসাহিত করেছে উপজেলা প্রশাসন।

অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে জাফলং এলাকার ডাউকি এবং সারি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে উপজেলার পূর্ব জাফলং, আলীরগাঁও, রুস্তমপুর, লেঙ্গুড়া, তোয়াকুল, নন্দীরগাঁও ও পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের শতাধিক গ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। যার কারণে উপজেলা সদরের সঙ্গে জেলা শহরে যাতায়াতের দুটি সড়ক সারী-গোয়াইনঘাট ও সালুটিকর-গোয়াইনঘাট সড়ক প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে গোয়াইনঘাট উপজেলায় যাতায়াতের প্রধান দুই সড়কের কিছু অংশে পানি ওঠে। পানি বাড়তে থাকায় গত শুক্রবার থেকে এসব সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, টানা কয়েক দিনের প্রবল বৃষ্টি হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে জাফলংয়ের পিয়াইন নদী ও সা‌রি নদী দিয়ে সীমান্তের ওপার থেকে পাহাড়ি ঢল নামা শুরু হয়।

শক্রবার সকাল থেকে উপজেলার প্রধান এই দুই নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হতে থাকে। এতে উপজেলার সিংহভাগ এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়ে। তলিয়ে যার কৃষকের সহস্রাধিক হেক্টর বোনা আমন ধানের ক্ষেত।

বন্যাকবলিত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুস সাকিব জানান, বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পুরো উপজেলার অবশিষ্ট অংশ বন্যা কবলিত হয়ে পড়বে। পানি উঠে সড়কের যেসব স্থানে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে সেখানে নৌকাযোগে মানুষ যাতায়াত করছে। দূর্গত এলাকার লোকজনের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পাশাপাশি বন্যায় ক্ষতি গ্রস্থদের মাঝে ত্রাণ সহয়তা প্রদানের লক্ষ্য গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে। একই সাথে উপজেলায় বন্যার পানি দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার সবক’টি পর্যটন কেন্দ্রে পর্যটক আগমনে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে গোয়াইনঘাট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. সুলতান আলী জানান, বৃহস্পতিবার থেকে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গোটা উপজেলায় সদ্য রূপায়িত আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এছাড়াও উপজেলার বেশ কিছু এলাকায় কৃষকের পাকা আউশধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। বন্যার পানি না কমে যাওয়া পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা যাচ্ছে না।

এ প্রতিবেদন লেখার সময় শনিবার (২৬ সেপ্টম্বর) বিকেল পর্যন্ত গোয়াইনঘাটের বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 40
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin