রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:৪৭ অপরাহ্ন


গ্রুপিং রাজনীতি মুক্ত করা হবে : লুৎফুর রহমান

গ্রুপিং রাজনীতি মুক্ত করা হবে : লুৎফুর রহমান


শেয়ার বোতাম এখানে

ভারপ্রাপ্ত সভাপতির তকমা সরে আগামী ৩ বছরের জন্য সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণ দায়িত্ব পেলেন সভাপতি হলেন অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান। গত ৫ ডিসেম্বর সম্মেলনে তাঁর হাতেই দায়িত্ব দেন দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা। এই বয়োজ্যেষ্ঠ নেতা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানও। সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর আর দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শুভপ্রতিদিনের সাথে একান্ত সাক্ষাতকালে এ বয়োজ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, আমাকে ২০১৫ সালে দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। আমি মনে করি সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ অন্যান্য জেলার তুলনায় অনেকটা সুসংগঠিত ও শক্তিশালী অবস্থানে আছে। এখন দায়িত্ব পাওয়ার পর সিলেটের আওয়ামী লীগকে আরও সুংগঠিত করে একটি উদাহারণ সৃষ্টি করতে চাই। আগামী মুজিব বর্ষকে সামনে রেখে অনেক চ্যালেঞ্জ ও পরিকল্পনা আছে। পরিচ্ছন্ন রাজনীতি কর্মিদের নিয়ে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে চাই। জেরার প্রতিটি উপজেলার আওয়ামী লীগকে গ্রুপিং রাজনীতি থেকে বের করে আনাই হবে আমার প্রধান লক্ষ্য। লুৎফুর রহমান বঙ্গবন্ধুর জমানায় দাঁপিয়ে বেড়ানো রাজনীতিবিদ। ছিলেন গণপরিষদ সদস্যও। তিনি বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি লবিং-গ্রুপিং রাজনীতির বাইরের একজন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা।

অ্যাডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান ১৯৪০ সালের ৮’ই ডিসেম্বর তৎকালীন সিলেট জেলাধীন বালাগঞ্জ উপজেলার বড় হাজিপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ছৈদ উল্লাহ এবং মাতা সমিতা ভানু। ছাত্রজীবনে ১৯৬২ সালে তৎকালীন ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে তাঁর রাজনৈতিক জীবনের সূচনা হয়। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতার মাধমে কর্মজীবন শুরু করেন এবং পরবর্তীতে আইন পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করেন। বাঙালী জাতির মুক্তি সংগ্রামের জন্য ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয়ভাবে নেতৃত্ব প্রদান করেন, ১৯৭০ সালের প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে মাত্র ২৯ বছর বয়সে ‘বালাগঞ্জ – ফেঞ্চুগঞ্জ’ আসন থেকে সদস্য নির্বাচিত হোন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণসহ মুক্তিযুদ্ধের একজন সফল সংঘটক ছিলেন। ১৯৭২ সালে গণপরিষদ সদস্য হিসেবে হাতেলেখা বাংলাদেশের প্রথম সংবিধানে স্বাক্ষর প্রদানকারীদের একজন। সিলেট জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসাবে সততা এবং নিষ্টার সাথে নিজ দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তিতে জেলা পরিষদ নির্বাচনে জয়লাভ করেন।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদে সবসময় সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রবীণ নেতাদের পদচারণা ছিলো। তাঁর আগে এ পদে যারা দায়িত্ব পালন করেছেন অ্যাডভোকেট আবু নসর, প্রয়াত নেতা আ.ন.ম শফিকুল হক ও আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ানের মতো নেতারা তারাও ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় নেতা। তাদের রাজনৈতিক আদর্শ কিংবা দর্শন সবই ছিল শিক্ষণীয়। সেই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সদালাপী, অমায়িক এই প্রবীণ মানুষটি উপরই ভরসা করে দায়িত্ব দিলেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin