রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন


ঘুষের লাইন সিলেট টু আখাউড়া

ঘুষের লাইন সিলেট টু আখাউড়া


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্টার
রেল বিভাগে এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম আতাউর। ২০০৫ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে আতাউর রহমান দলীয় প্রভাব খাটিয়ে রেলওয়েতে চাকুরি পান। শুরু হয় ক্ষমতার দাপট। অধীনস্থদের উপর চলে দমন-নিপিড়ন। সিলেট থেকে আখাউড়া পর্যন্ত শুরু করেন ঘুষ বাণিজ্য। অনেকটা চাকরি দেয়া-নেয়া হতো তারই হুকুমে। রেলওয়ের কোয়াটার থেকে শুরু করে প্লাটফর্মের দোকানগুলো থেকে মাশোয়ারা নেন নিয়মিত।

আতাউর রহমান আতা মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ৪নং জয়চন্ডী ইউনিয়নের রামপাশা এলাকার মৃত নৌশা মিয়ার পুত্র। বর্তমানে তিনি পদন্নোতি পেয়ে সিলেট রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। এর আগে ছিলেন রেলওয়ে (সিলেট-আখাউড়া) সেকশনের টিআইসি। বাড়ি ও কর্মস্থল একই স্থানে হওয়াতে অনেকটা বেপরোয়া তিনি।

নির্ভরযোগ্য একাধিক সুত্রে জানা গেছে, ছাত্র জীবনে আতাউর ছাত্রদলের রাজনীতি করেছেন। কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজে ছাত্রদলের দায়িত্বশীল ছিলেন। পড়ালেখা শেষ করে যোগদেন বিএনপির রাজনীতিতে। আতাউরের পুরো পরিবার ছাড়াও আত্মীয়-স্বজনের সকলেই বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয়। তার আপন চাচাতো ভাই এবং ভগ্নিপতি, বর্তমান জয়চন্ডী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কমর উদ্দিন আহমদ কমরু উপজেলা বিএনপির প্রথম সারির নেতা। তার চাচা মৃত বাতির মিয়া ছিলেন এলাকার চিহ্নিত রাজাকার। আতাউর রহমান দলীয় প্রভাব খাটিয়ে রেলওয়েতে চাকুরি পান। শুরু হয় ক্ষমতার দাপট। অধীনস্তদের উপর চলে দমন-নিপিড়ন। সিলেট থেকে আখাউড়া পর্যন্ত শুরু করেন ঘুষ-বানিজ্য। অনেকটা চাকরি দেয়া-নেয়া হতো তারই হুকুমে। রেলওয়ের কোয়ার্টার থেকে শুরু করে প্লাটফর্মের দোকানগুলো থেকে মাশোয়ারা নেন নিয়মিত। তার মতের বাইরে কেউ চলতে গেলে তাকে পোহাতে হয় নানা ঝামেলা। শুধু কুলাউড়াতেই রয়েছে আতাউরের বেশ কয়েকজনের কর্মীবহর। যাদের মাধ্যমে বিভিন্ন স্টেশন থেকে নিয়মিত মাশোয়ারা উত্তোলন করা হয়।

বিশেষ করে সিলেট থেকে আখাউড়া পর্যন্ত যে কোন স্টেশনের টিকেট আতাউরের নজর ছাড়া অবৈধ হয়না। যেকোন থেকেই অবৈধভাবে ট্রেনের টিকেট বিক্রি হয়না কেন আতাউরের ভাগ থাকবেই। রেলওয়ের অনেক পরিত্যক্ত কোয়ার্টার ভাড়া দিয়ে কামাই করে অবৈধ টাকার পাহাড়ের মালিক হয়েছেন তিনি। দীর্ঘ সময়ে একই স্থানে চাকুরি এবং অবৈধভাবে টাকা উপার্জন করে অঢেল সম্পদ করেছেন আতাউর। কুলাউড়া শহরে রয়েছে নিজস্ব জমি ও বাসা। কোটি টাকার মতো যার বর্তমান মূল্য। এছাড়াও এলাকা এবং এলাকার আশপাশে নামে-বেনামে করেছেন অনেক জমি-জমা। তার হাত থেকে রেহাই পায়নি রেলওয়ের পুরাতন গাছগুলোও। নিজের বাড়ির পাশে কুলাউড়া-সাবাজপুর রেললাইনের রামপাশা রেলওয়ে গ্যাং কোয়াটারের অনেক পুরাতন ১৫-২০ টি বড় আকারের গাছ কেটে নেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে প্রথম আলোসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

কিন্তু অজ্ঞাত কারনে কোন ধরনের আইনি ব্যবস্থা নেয়নি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। যা নিয়ে স্থানীয় মানুষের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। আতাউর এবং তার নিকটাত্মীয়রা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ভয়ে কেউ কথা বলার সাহস পায়না।

এদিকে, অভিযোগগুলো অস্বীকার করে আতাউর রহমান আতা শুভ প্রতিদিনকে জানান, কেউ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই।

এ ব্যাপারে রেলওয়ে পূর্ব চট্টগ্রাম দপ্তরের সহকারি মহাব্যবস্থাপক গৌতম কুমার কু- জানান, অভিযোগের বিষয়গুলো ঢাকার রেলওয়ের কর্মকর্তারা দেখেন। তবে কোনো কর্মকর্তা এসব অপকর্মে জড়িত থাকলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে তদন্ত হবে। তদন্তে প্রমাণিত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin