সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন


চাকরির ক্ষেত্রে নারীরা পিছিয়ে

চাকরির ক্ষেত্রে নারীরা পিছিয়ে


শেয়ার বোতাম এখানে

সত্তার আজাদ:
চাকরি ক্ষেত্রে সিলেটী নারীর অংশগ্রহণ আশানুরূপ নয়। দেশের ও নিজের উন্নয়নের স্বার্থে নারীদের চাকরিসহ সকল ক্ষেত্রে অংশ নেয়ার আহবান জানিয়ে সৈয়দা রাবেয়া আক্তার রিয়া বলেন, আমি বুটিকের কাজ করি। সাথে নকশী কারোর কাজ করি। অস্টম শ্রেণি থেকে একাজে নিজেকে নিয়োজিত করি।

আমার এ কাজে উৎসাহ সৃষ্টির পেছনে পাশের বাড়ির ভাবির অবদান রয়েছে। তিনি বুটিকের কাজ করতেন। তাকে অনুস্মরণ করে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর ইচ্ছা হয়েছিল। সফলও হয়েছি। আমার পুঁজি ছিল মাত্র দেড় হাজার টাকা। এই পুঁজি দিয়ে আর আমি স্বাবলম্বী।

তাই আমি বলব, নিজেকে স্বাবলম্বী করতে একজন নারীকে প্রথমে নিজের মধ্যে ইচ্ছা সৃষ্টি করতে হবে। বাধা-বিপত্তি, সামাজিক ও পারিবারিক প্রতিবন্ধকতা থাকবে। এ থেকে নারী নিজেই নিজেকে বের করে আনতে হবে।

তিনি বলেন, নারীদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বড় প্রতিবন্ধকতা পণ্য বাজারজাতকরণ। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় সরকারযন্ত্র নারীদের প্রতি আরও বেশি উদার হতে হবে। নারীদের ঋণ গ্রহণে ব্যাংকিং নিয়মে শিথিলতা সৃষ্টি করতে হবে। যেন একজন নারী কোনো ঝামেলায় না পড়ে সহজে ব্যাংক থেকে মূলধন পেতে পারে। সিলেটে অনেক নারী আছেন। তারা বিনিয়োগে আগ্রহী।

কিন্তু মূলধন না পেয়ে উদ্যোক্তা হতে পারছেন না। এসব উদ্যোক্তাদের কাজে লাগাতে সরকারের স্থানীয় প্রশাসন আন্তরিত হতে হবে। তাদের খুঁজে বের করে বিনিয়োগের সহজ ক্ষেত্র তৈরি করে দিতে হবে। নারীরা সামাজিক সমালোচনায় পড়ে আত্মসম্মানের ভয়ে উদ্যোক্তা হতে আগ্রহ হারান।

এ বিষয়ে সরকারকে বড় ভূমিকা রাখতে হবে। সরকার নানাভাবে প্রচারণা চালিয়ে নারীদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি বদলে দিতে হবে। প্রয়োজনে এ ক্ষেত্রে সরকারকে কঠোর অবস্থান নিতে হবে। ধর্মীয় উপাসনালয়ে নারীদের অগ্রগতি বিষয়ক আলোচনা করতে সরকারের নির্দেশনা জারি করা প্রয়োজন। অনেক ক্ষেত্রে উপাসনালয় থেকে নারীদের উন্নয়নে বা বিনিয়োগে নিরুৎসাহিত করা হয়।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin