মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫৬ অপরাহ্ন


চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিটের স্বার্থে পার্লামেন্ট মুলতবি চাইছেন জনসন?

চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিটের স্বার্থে পার্লামেন্ট মুলতবি চাইছেন জনসন?


শেয়ার বোতাম এখানে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
পাঁচ সপ্তাহের জন্য পার্লামেন্ট অধিবেশন মুলতবি করতে রানির অনুমতি চেয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। আগামী ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত পার্লামেন্ট অধিবেশন মুলতবি রাখার কথা বলছে তার নেতৃত্বাধীন সরকার। বিরোধীরা বলছেন, এর মধ্য দিয়ে কনজারভেটিভ সরকার চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিটের পথে হাঁটছে। তাদের মতে, এতোদিন পার্লামেন্ট মুলতবি থাকলে ঘোষিত তারিখ ৩১ অক্টোবরের আগে নতুন আইন প্রণয়ন কঠিন হয়ে পড়বে। তবে প্রধানমন্ত্রী জনসন এই দাবিকে সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন আখ্যা দিয়ে বলেছেন, ব্রেক্সিট নিয়ে বিতর্ক শেষে আইন প্রণয়নের জন্য পর্যাপ্ত সময় পাবেন তারা।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়া বা ব্রেক্সিট ইস্যুতে সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়ে গত মে মাসে পদত্যাগের ঘোষণা দেন যুক্তরাজ্যের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি সরে সরে দাঁড়ানোর পর নতুন নেতা তথা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন কট্টর ব্রেক্সিটপন্থী বরিস জনসন। নির্বাচিত হওয়ার পর আগামী ৩১ অক্টোবর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। প্রয়োজনে চুক্তিহীন ব্রেক্সিটের পথে হাঁটারও ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন তিনি।

বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন অধিবেশন মুলতবির প্রস্তাব দিয়ে বলেন, আগামী ১৪ অক্টোবর পার্লামেন্টে ভাষণ দেবেন রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। ওই ভাষণে তিনি সরকারের ব্রেক্সিট পরিকল্পনা পরিষ্কার করবেন। জনসন বলেন, ‘আমাদের নতুন আইন দরকার। আমাদের নতুন আর গুরুত্বপূর্ণ বিল আনা প্রয়োজন আর সেকারণেই রাণীর ভাষণের প্রয়োজন’।

বিবিসি জানিয়েছে, রেওয়াজ অনুযায়ী রাণীর ভাষণের আগে পার্লামেন্ট মুলতবি রাখা হয়। আর সরকারের অনুরোধ প্রত্যাখান করা রাণীর জন্য অসম্ভব হবে। রাজদরবারে নিয়োজিত বিবিসি’র প্রতিনিধি জনি ডেমন্ড বলেন, নিয়ম হলো রাণী তার মন্ত্রীদের-বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে কাজ করবেন। তবে স্থগিতকরণ নামে পরিচিত পার্লামেন্টের অধিবেশন মুলতবি রাখা নিয়ে বিতর্ক আছে। সমালোচকেরা বলছেন, এর কারণে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়ায় নিজেদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে অক্ষম হয়ে পড়বেন আইন প্রণেতারা।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী জন মেজরসহ বেশ কয়েকজন হাই প্রোফাইল ব্যক্তি অধিবেশন মুলতবি রাখা ঠেকাতে আদালতে যাওয়ার হুমকি দিয়েছেন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগকে স্কটল্যান্ডের আদালতে চ্যালেঞ্জ করার কাজ শুরু করেছে সেখানকার সবচেয়ে রাজনৈতিক দল এসএনপি। দলটির আইন বিষয়ক মুখপাত্র জোয়ানা চেরি এর নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন এক বিবৃতিতে জনসন সরকারের উদ্যোগকে বেপরোয়া আখ্যা দিয়েছেন। এই সিদ্ধান্তে বিস্মিত হওয়ার কথা জানিয়ে করবিন বলেছেন, চুক্তিহীন ব্রেক্সিট পরিকল্পনায় নজরদারি এড়াতে পার্লামেন্ট মুলতবি রাখা হচ্ছে। এটাকে গণতন্ত্রের ওপর আঘাত আখ্যা দিয়ে বিবৃতিতে করবিন বলেন, ‘সে কারনেই ইতিমধ্যে পার্লামেন্টে প্রত্যাখ্যাত হওয়া সর্বনাশা চুক্তিহীন ব্রেক্সিট ঠেকাতে এবং সরকারকে দায়বদ্ধ করতে পার্লামেন্টে কাজ করছে লেবার পার্টি’। প্রধানমন্ত্রী নিজের পরিকল্পনা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী হলে সাধারণ নির্বাচন বা গণভোটে দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

সরকারি উদ্যোগকে ‘সাংবিধানিক জুলুম’ আখ্যা দিয়েছেন হাউস অব কমন্সের স্পিকার জন বার্কো। রাজনৈতিক প্রশ্নে মতামত না দেওয়ার রীতির বাইরে এসে তিনি বলেছেন, ‘যদিও এটা দৃশ্যত ন্যায়সঙ্গত তারপরও দ্বীধাহীনভাবে নিশ্চিত বলা যায়, এই সময়ে এটি [পার্লামেন্ট মুলতবি] করার উদ্দেশ্য হবে আইনপ্রণেতাদের মধ্যকার ব্রেক্সিট বিতর্ক বন্ধ করা দেশের গতিপথ নির্ধারণে তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়া’।

অধিবেশন মুলতবি রাখা নিয়ে সমালোচনা রয়েছে ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরেও। দলটির আইন প্রণেতা ডমিনি গ্রিয়েভ একে ভয়ানক কাজ বলে অভিহিত করেছেন। সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেছেন, এর মাধ্যমে আস্থা ভোটের মুখে পড়তে পারেন বরিস জনসন। তিনি বলেন, ‘এতে সরকারের পতনও হয়ে যেতে পারে’।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin