সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন


চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার ২ যুবতী গ্রেফতার

চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার ২ যুবতী গ্রেফতার


শেয়ার বোতাম এখানে

ওসমানীনগর প্রতিনিধি :
সিলেটের ওসমানীনগরের ফেসবুকে অপপ্রচার করার অপরাধে ওসমানীনগর থানায় মামলা দায়ের করছেন গোয়ালাবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আত্উার রহমান মানিক। তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচারের দায়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা (নং-৭) দায়ের করা হয়েছে। চেয়ারম্যান মানিক বাদি হয়ে শুক্রবার এই মামলাটি দায়ের করেন।

ওসমানীনগর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রথম মামলা এটি। পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট থাকার অভিযোগে কলেজছাত্রীসহ ২মেয়েকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতাকৃতরা হচ্ছে গোয়ালাবাজারের গদীয়ারচর রোডের জুনেদ ভিলার মালিক কুয়েত প্রবাসী আনসার মিয়ার মেয়ে নাঈমা বেগম (১৮) এবং জুনেদ ভিলার ভাড়াটিয়া একই ইউনিয়নের নিজ করনসী পূর্ব পাড়া গ্রামের মৃত সফর আলীর মেয়ে কলেজ ছাত্রী তামান্না বেগম (১৮)। গতকাল শুক্রবার তাদের গ্রেফতার করা হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৪ আগস্ট রাতে হধরসধ নবমড়স নামের ফেসবুক আইডি থেকে চেয়ারম্যান মানিকের বিরুদ্ধে মানহানীকর মন্তব্য করে একটি পোস্ট দেয়া হয়। পরে এই পোস্টটি আরো অন্য একটি আইডি থেকে শেয়ার করেন তামান্না বেগম। তামান্না ঘটনাটি গুজব বলেও উল্লেখ করেন এবং একটি অনলাইন নিউজ মাধ্যমকেও শেয়ার করেন। বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনায় একটি সাধারণ ডায়রী (জিডি) করা হলে পুলিশ তদন্তে নেমে এই দুই যুবতীর সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাদের আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। গতকাল শুক্রবার চেয়ারম্যান মানিকের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হলে সেই মামলায় নাঈমা ও তামান্নাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক বলেন, আমার সুনাম নষ্ট করার জন্য ফেসবুকে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এ ঘটনার সাথে কে বা কারা জড়িত তা খোঁজে বের করার জন্য আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

অভিযুক্ত তামান্না বেগম বলেন, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলে পোস্টটি গুজব উল্লেখ করে শেয়ার করেছি।
নাঈমা বেগম বলে, আমি ফেসবুক থেকে কোন পোস্ট করিনি। কে বা কারা আমার নামে আইডি খোলে এবং আমার ছবি ব্যবহার করে এমন পোস্ট দিয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসমানীনগর থানার ওসি (তদন্ত) এমএম মাইনুদ্দিন বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২ মেয়েকে জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। গ্রেফতাকৃত দু’জন একই বাসায় বসবাস করে।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন বলেন, ওসমানীনরগর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে প্রথম মামলা এটি। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় ২মেয়েকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin