বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০৩:৩১ অপরাহ্ন

ছাতকে পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত : আমন ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা

ছাতকে পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত : আমন ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 36
    Shares

ছাতক প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় গত ৫দিনের অবিরাম বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নিম্নঞ্চলে আবারও বন্যা দেখা দিয়েছে। হঠাৎ করেই নদ-নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় রোপা আমন ক্ষেতের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। ৪র্থ দফা বন্যায় রোপন আমন ও শাক-সবজি ক্ষেতও পানিতে তলিয়ে গেছে। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের নিন্মঞ্চলের প্রায় ৪০টি গ্রামে বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় চরম দূর্ভোগে পড়েছেন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ।

টানা পাহাড়ি ঢলে পানি বেড়ে যাওয়ায় সুরমা নদীর তীরবর্তী আশপাশ এলাকার অধিকাংশ ষ্টোন ক্রাশার মিল গুলো বন্ধ রয়েছে। ফলে মিলে কর্মরত শত শত দিন মজুর বেকার হয়ে পড়েছে।

সংক্রামক ব্যাধী করোনা কালীন সময়ে ৩য় দফা বন্যার শেষ হতে না হতেই ৪র্থ দফা বন্যায় এবার উপজেলার রোপা আমনের ফসল নিয়ে চরম দুঃচিন্তায় পড়েছেন উপজেলার স্থানীয় কৃষকরা। বিল-হাওরে কৃষকরা যখন রোপা আমন ক্ষেতের চাষাবাদ নিয়ে ব্যস্থ, ঠিক এ সময়ে আকর্ষিক পাহাড়ি ঢলে কৃষকরা দিশেহারা। টানা বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ফের দেখা দিয়েছে বন্যার।

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ১৩ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে আমনের বীজ চাষাবাদ করা হয়। আকর্ষিক পাহাড়ি ঢলে বেশিরভাগ কৃষকের রোপা আমান ও রবিশস্য নষ্ট হয়ে গেছে। তবে উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের দেওয়া তথ্যমতে, ৫০হেক্টর রোপা আমন ক্ষেত ঢলের পানিতে তলিয়ে যাওয়ার উল্লেখ করা হয়েছে। শনিবার দুপুর পর্যন্ত সুরমার পানি ১২০সেন্টিমিটার, চেলা ১৩০সেন্টিমিটার ও পিয়ান নদীর পানি বিপদসীমার ১১০সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। উপজেলার ইসলামপুর, কালারুকা, ছাতক সদর, জাউয়াবাজার, উত্তর খুরমা, চরমহল্লা, ছৈলা আফজালাবাদ, সিংচাপইড়সহ অধিকাংশ ইউনিয়নের গ্রামীন সড়ক পথের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

স্থানীয় একাধিক কৃষক জানান, ৩য় দফা বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর হাওর-বিলে রোপা আমনের চারা রোপন করা হয়। কিন্তু এখন আবার টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৫শ’ হেক্টর রোপা আমন ক্ষেত আক্রান্ত হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো.তৌফিক হোসেন খান বলেন, সরকারী হিসেব অনুযায়ী পাহাড়ি ঢলে উপজেলার প্রায় ৫’শ হেক্টর রোপা আমন জমি পানির নীচে তলিয়ে গেছে। তবে পানি দ্রুত না কমলে এবার রোপা আমনের ব্যাপক ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 36
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin