সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:০২ অপরাহ্ন


জঙ্গিদের কাছে নিরাপদ শহরতলির বাসাবাড়ি

জঙ্গিদের কাছে নিরাপদ শহরতলির বাসাবাড়ি


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
২০০৬ সালের ২ মার্চ জেএমবি প্রধান শায়খ আব্দুর রহমানের জঙ্গি আস্তানার জন্য দেশজুড়ে আলোচিত হয় সিলেট। নগরীর শাপলাবাগ এলাকার ‘সূর্যদীঘল বাড়ি’তে দীর্ঘ ৩১ ঘন্টার অভিযানে আত্মসমর্পনের পর গ্রেফতার করা হয় আব্দুর রহমানকে। আলোচিত এই অভিযানের মধ্য দিয়েই পূণ্যভুমি সিলেটে জঙ্গি আস্তানা গুড়িয়ে দেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ ঘটনার ১১ বছর পর সেই মার্চ মাসে নতুন করে সিলেটে আরেকটি নৃশংস ঘটনার জন্ম দেয় জঙ্গিরা। ‘সূর্যদিঘল বাড়ি’র পর আস্তানা গড়ে তুলে দক্ষিণ সুরমার ‘আতিয়া মহলে’। সূর্য দিঘল বাড়ির ৩১ ঘন্টার ‘হিট স্ট্রং টুয়েন্টি সেভেন’ অপারেশনও হার মানায় শিববাড়ি এলাকার আতিয়া মহলের জঙ্গিদের কাছে। ১১১ ঘন্টার চেষ্ঠায় অবশেষে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডের রুদ্ধশাস ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ নামের অভিযানে জঙ্গি মুক্ত করা হয় আতিয়া মহলকে।
এবার শহরতলীর শাপলাবাগ এলাকার আরেকটি আস্তানা থেকে নাশকতার প্রস্তুতিকালে ৯ জঙ্গিকে আটক করেছে ঢাকা থেকে আসা এন্টি টেরোরিজম ইউনিট। আটক ৯ জঙ্গি নিষিদ্ধ ঘোষিত ‘আল্লাহর দলের’ সদস্য। তারা সিলেট বিভাগের দায়িত্বশীলসহ বিভিন্ন জেলা ও থানা পর্যায়ে দায়িত্ব প্রাপ্তহয়ে কাজ করছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
সূর্যদিঘল বাড়ি ও আতিয়া মহল দুটির অবস্থানই সিলেটের শহরতলী এলাকায়। পূণ্যভুমি খ্যাত সিলেটের শহরতলীর বাসাগুলোকেই নিরাপদ মনে করে জঙ্গিরা। ফলে এসব এলাকাতেই বাসা ভাড়া করে আস্তানা গড়ে তোলার চেষ্ঠা করে তারা। তবে যতবারই জঙ্গিরা সংগঠিত হওয়ার চেষ্ঠা করে পুলিশের অভিযানে প্রতিবারই ব্যর্থ হচ্ছে।
বৃহস্পতিবার বেলা ১টায় সিলেট মহানগর পুলিশ সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার পরিতোষ ঘোষ বলেন, বুধবার রাতে নগরীর আরামবাগ এলাকায় ঢাকা থেকে আসা এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের একটি দল অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। আটক জঙ্গিদের অনেকে এনজিওসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন। বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া আটক জঙ্গিদের কাছ থেকে আরও তথ্য উদঘাটন করতে পুলিশের পক্ষ থেকে ৫দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত তা মঞ্জুর করেছেন।
আটক জঙ্গিরা হলেন বগুড়া জেলার এরুলিয়া এলাকার বড় কুমিরা গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নান আকন্দের ছেলে মানিক আকন্দ ওরফে মেহেদী হাসান (৩২), নোয়াখালি জেলার মাইজদিহি থানার কৃষ্ণপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে জহির উদ্দিন বাবর (২০), সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার থানাবাজারের মানিকপুর গ্রামের মৃত মোকাদ্দেস আলীর ছেলে রাসেল আহমদ (২৪), কুমিল্লা জেলার বিবির বাজার এলাকার রাজমঙ্গলপুর গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে আবুল কালাম আজাদ (২০), সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার ঈদগাহ বাজারের খাফনা গ্রামের মুক্তাদির মিয়ার ছেলে কামাল আহমদ (২৫), সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার আলহেরা এলাকার শাহপুর গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে তমি উদ্দিন সুমন (৩০), রাজশাহী জেলার বাগমাড়া এলাকার চেওখালি গ্রামের কায়েম উদ্দিনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৯), সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার এলাকার হায়দরপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে জুয়েল আহমদ (২৪) ও সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার তুরস্তবাগ এলাকারম নলুয়া গ্রামের আলা উদ্দিনের ছেলে মো. স্বপন আহমদ (২১)। এদের মধ্যে মানিক আকন্দ ওরফে মেহেদী হাসান (৩২) আল্লাহর দলের সিলেট বিভাগীয় প্রধান ও বাকিরা বিভিন্ন জেলা ও থানা পর্যায়ের দায়িত্বশীল বলে জানিয়েছে পুলিশ।
এসএমপির অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মূসা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার মোহিদুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি চৌকস দল শাহপরান থানার আরামবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। আটকদের বিরুদ্ধে এসএমপির শাহপরাণ থানায় একটি মামলা দায়ের করে তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া আরও তথ্য উদঘাটন করতে পুলিশ ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেছেন।
তিনি বলেন, শহরতলীর বাসাগুলো অনেকটা কোলাহল মুক্ত হওয়ায় জঙ্গিরা সেখানেই বাসা ভাড়া নেয়। তবে এ বিষয়ে আমাদের নজর রয়েছে। ভাড়টিয়াদের সকল তথ্য পুলিশ কাছে রয়েছে। কোনো অবস্থায় জঙ্গিরা মাথাছাড়া দিয়ে উঠতে পারবে না। জঙ্গি নির্মূলে আমরা সর্বাত্মক প্রচেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin