বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০১:১৫ পূর্বাহ্ন

জনগণের সেবক হয়ে কাজ করতে সংসদে যেতে চাই : শমসের জামাল

জনগণের সেবক হয়ে কাজ করতে সংসদে যেতে চাই : শমসের জামাল


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 27
    Shares

মবরুর আহমদ সাজু

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা,ফেঞ্চুগঞ্জ এবং বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত হয়েছে সিলেট-৩ আসন। এই আসনের জনপ্রতিনিধি ছিলেন,সিলেটের মাটি ও মানুষের নেতা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েছ। তিনি ছিলেন,সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও তিন বারের নির্বাচিত জনপ্রিয় সংসদ সদস্য।কিন্তু বৈশি^ক করোনা মহামারীতে এ আসনের সংসদ সদস্য মৃত্যুর পর আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী- এ আসনে ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে। সে হিসাবে আগামী জুনের মধ্যে উপনির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে এ আসনে। ইতোমধ্যে নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা তৎপর হয়ে উঠেছেন। এইম আসনের দিকে নজর এখন সবার মাঝে। সুতারাং এই যখন প্রসঙ্গ তখন, এ আসনের নৌকার কাÐারী কে হবেন? সেই আলোচনা এখন সর্বত্র। আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন ছাড়াও বিভিন্ন দল ও সাধারণ মানুষ বেশ আগ্রহ নিয়ে আছেন আসনটির ব্যাপারে।

ইতোমধ্যে প্রায় এক ডজন নেতা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। এবারের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়াই করতে চান সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ শমসের জামাল।

শমসের জামাল হচ্ছেন,রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তার বাবা ছিলেন দেশের সুর্যসন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম এনামুল হক। যিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন, পরবর্তীতে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহ-সভাপতি হন। তার মায়ের নাম সৈয়দা জেবুন্নেছা হক সাবেক এম.পি। আসন্ন উপনির্বাচন নিয়ে একান্তে কথা বলেছিলেন তিনি । দৈনিক সকালের সময়ের পাঠকের জন্য যা তুলে ধরা হলো।

প্রথমেই শমসের জামাল জানালেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি সিলেট ৩ আসনে প্রার্থী হওয়ার জন্য জনগণ আমাকে চাপ দিয়েছিল। কিন্তু আমাদের প্রয়াত নেতা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুররী প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে আমি প্রার্থী হই ন। সময় যেহেতু এসেছে। তাই আমি জনগণ কে সম্মান দেখাতে প্রার্থী হতে চাই।

শমসের জামাল বলেন,বর্তমানে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে অত্যন্ত শক্তিশালী। যেকোনো অপশক্তিকে মোকাবেলা করার প্রশ্নে আমাদের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ। আমাদের দল নির্বাচনের জন্য শতভাগ প্রস্তুত। জনগণের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের যে অগ্রযাত্রা পরিচালিত হচ্ছে তার ধারাবাহিকতাই আমাদের অঙ্গীকার। এ কারণে জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে এবং ভবষ্যিতেও থাকবে। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আগামী নির্বাচনে আবারও নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে জেলা আওয়ামী লীগ প্রস্তুত।

তিনি বলেন, সিলেটের দক্ষিণ সুরমা,ফেঞ্চুগঞ্জ এবং বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত হয়েছে সিলেট-৩ আসন । আমি দলের কোষাধ্যক্ষ হিসেবে এটুকু বলতে পারি, সাংগঠনিকভাবে আমাদের দল এই আসনেই অত্যন্ত সু-সংগঠিত। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন জনগণের জন্য। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ নানামুখী উন্নয়নের কারণে জনগণ আমাদের পক্ষে রায় দিয়ে । আমি দলীয় মনোননয় চাই। আমি উন্নয়নের প্রতীক,স্বাধীনতার নৌকা নিয়ে নির্বাচন করতে চাই। আমি জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করতে সংসদে যেতে চাই।

শমসরে জামাল বলেন, এ আসনটি শুন্য হয়ে যাবার পর । নির্বাচন সম্পর্কে স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ হয়েছে। তারা আমাকে যে আশা¦াস প্রদান করেছে তা নৌকার টিকেট পেলে সেটি প্রতিপলিত হবে। কাকে দলের প্রতিদন্বদ্বী মনে হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে শমসের জামাল বলেন, দেখুন আওয়ামী লীগ একটি বড় গণতান্ত্রিক দল। এই দলে এমপি হওয়ার মতো যোগ্য অনেক নেতাই আছেন। আবার কেন্দ্রীয় নেতাদেরও পছন্দ-অপছন্দের তালিকা আছে। দীর্ঘদিন রাজনীতি করার পর মনোনয়ন তো একজন নেতা চাইতেই পারেন। এটাকে দলীয় কোন্দল বলা যাবে না। মনোনয়ন যিনিই পান, আমরা সবাই তাঁর জন্য কাজ করব।

করোনাকালী সময়ে উপনির্বাচনের প্রস্তুতি কেমন জানতে চাইলে তিনি বলেন আওয়ামী লীগ দেশের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। শুরু থেকেই আমরা নির্বাচনে বিশ্বাসী। কাজেই আমাদের প্রস্তুতিও সেই শুরু থেকেই। জেলার প্রতিটি উপজেলায় ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত নির্বাচনকে ঘিরে সভা-সমাবেশ, উঠান বৈঠক করা হবে। সরকারের উন্নয়ন কাজগুলো মানুষের কাছে দৃশ্যমান। এখন চূড়ান্তভাবে তৃণমূলের সঙ্গে সমন্বয় করে আগামী নির্বাচনের জন্য কাজ করা হচ্ছে।

নির্বাচন নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে কোনো বিভক্তি আছে কি এমনে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগে কখনোই কোন্দল বা বিভক্তি ছিল না, এখনো নেই। ব্যক্তি বিশেষের মতানৈক্য থাকতে পারে। এর বেশি কিছু নয়। তবে বর্তমান কমিটির সভাপতি এবং সাধারন সম্পাদক আমার অনুপ্রেরনার আদর্শ। তাদের নেতৃত্বে আমি এগিয়ে যেতে চাই।

মনোনয়ন নিয়ে কোনো নির্দেশনা আছে কি জকানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা এখনো কেন্দ্রীয় নির্দেশনা পাইনি। তবে নেত্রী যাকে সিলেকশন করবেন তার হয়েই সবাই কাজ করব। আমরা ঠিক এভাবেই প্রস্তুত।

আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী আছে তারা কি নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে? এমন পশ্নের জবাবে তিনি বলেন আওয়ামী লীগ একটি বড় দল। অনেকেই অন্য দল থেকে আমাদের দলে এসেছেন। কাজ করছেন। এরা সরকারের উন্নয়নে উদ্বুদ্ধ হয়ে দলে যোগ দিয়েছেন। নির্বাচনে তাঁদের বিরোধিতা করার কোনো সুযোগ নেই।

শমসের জামাল বলেন, সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়ে দলীয় প্রতীক নিয়ে লড়াই করতে চান । দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থাকা শমসের জামাল দলের দুর্দিনের ছিলেন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে অটল। আওয়ামী পরিবারের সদস্য শমসের জামালের রাজনৈতিক হাতেখড়ি তার পরিবার থেকে। পিতা সিলেট জেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মাতা ছিলেন সিলেট জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভানেত্রী। পরিবার থেকে মুজিব আদর্শে গড়ে উঠা শমসের জামাল এবার নৌকার মাঝি হয়ে সেবা করতে চান সিলেট-৩ আসনের জনগণের।

রাজনীতিতে নিজের সম্পৃক্ততা নিয়ে তিনি বলেন,আওয়ামী পরিবারে জন্ম হওয়ার কারনে শৈশবেই জাতির জনকের আদর্শ ও আওয়ামী রাজনিতীতে দীক্ষা। ১৯৮৪ সালে সিলেট এম.সি.কলেজে ছাত্রলীগের সাধারণ সদস্য হিসাবে যোগদান এবং ছাত্রলীগের মিছিল সমাবেশে সক্রিয় অংশগ্রহণ। সিলেট এর স্থানীয় ও জাতীয় সকল নির্বাচনে নৌকার পক্ষে সক্রিয় অংশগ্রহণ। যার ফলে আওয়ামী বিরোধী অপশক্তি কতৃক তাতিপাড়াস্থ বাসবভনে বার-বার হামলা। ১৯৯৪ সালে চাকুরীতে যোগদান। চাকুরী থাকা অবস্থায়ও আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং পরবর্তীতে চাকুরী ছেড়ে ২০১৬ ইং সালের ৩রা এপ্রিল আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সদস্য পদ লাভ করেন।

শমসের জামাল বলেন, পরিবারের সদস্যদের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততাঃ ভাইবোনসহ পরিবারের সকল সদস্য আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। বড় বোন নাজমা হোসেন যুক্তরাজ্য মহিলা আওয়ামীলীগ এর কোষাধ্যক্ষ। মেঝ বোন সালমা সুলতানা, সিলেট জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদিকা। ছোট বোন ফাহিমা সুলতানা বার্মিংহামে মহিলা আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক।

তার ভাই শমশের রাসেল চাকুরীজীবি, সাংগঠনিক সম্পাদক বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ, সিলেট মহানগর শাখা। সেইসাথে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত।

তিনি বলেন, চাকুরী ক্ষেত্রে, ক্রীড়াক্ষেত্রে, ব্যবসা ক্ষেত্রে আওয়ামী ঘরনার লোকদের প্রতিষ্ঠিত করাই ছিল তার মুল লক্ষ্য। সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থা, সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা, সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, সিলেট রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সহ অন্যান্য আরও অনেক প্রতিষ্ঠানে আওয়ামী ঘরনার লোকদের প্রতিষ্ঠায় তিনি ছিলাম সক্রিয়।

তিনি বলেন, সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েসের মৃত্যুতে সিলেট – ৩, আসনটি শূন্য ঘোষনা করা হয়েছে। দক্ষিণ সুরমা , বালাগন্জ ও ফেঞ্চুগঞ্জ তথা সিলেট ৩ নির্বাচনি এলাকায় উন্নয়ন অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে। তিনি নৌকার মাঝি গতে চান।



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 27
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin