শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন



জামালগঞ্জে তৎপরহীন প্রশাসন : উপচে পড়া ভীড়ে মাস্কবিহীন সক্রিয় জনগণ

জামালগঞ্জে তৎপরহীন প্রশাসন : উপচে পড়া ভীড়ে মাস্কবিহীন সক্রিয় জনগণ


মোঃ বায়েজীদ বিন ওয়াহিদ, জামালগঞ্জ:

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে সামাজিক দূরত্ব না মেনে মাস্ক ছাড়া অবাধে কেনা-বেচা করছেন ক্রেতা ও বিক্রেতারা।
দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার। এরপরও মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে উদাসীন উপজেলার প্রায় অধিকাংশ মানুষ।

উপজেলার সাচনা বাজারে সপ্তাহের হাট সোমবার হওয়ায় করোনাভাইরাসের কোন তোয়াক্কা না করেই ছাগল,ভেড়া,হাস,মুরগী থেকে শুরু করে হরেক রকমের কাঁচা বাজার জমে উঠেছে বেশ। সকল দোকানিরাও ব্যবসা করছে সামাজিক দূরত্ব না মেনে।

গত ২৬ মার্চের পর থেকে মে মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত পুলিশ,সেনাবাহিনী ও উপজেলা প্রশাসন মাইকিংসহ নানা সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে গেলেও গত ২৮ মে মন্ত্রনালয় থেকে নতুন করে ১৫টি নির্দেশনা দিয়ে যে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে,তা কেউই মানছে না উপজেলাতে। স্বাস্থ্যবিধিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মাস্ক ছাড়াই ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন মানুষ। বাজার, রাস্তাঘাট, বিপণীবিতানসহ কোনো স্থানেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। চিকিৎসকরা বলছেন, মানুষের এ অবহলোর কারণে জামালগঞ্জ সহ সারা দেশে বিপর্যয় ডেকে নিয়ে আসতে পারে করোনা ভাইরাস।

সরেজমিনে দেখা গেছে উপজেলার সাচনা বাজারের বেহেলী রোড, সিএনবি রোড, লামা বাজার, বাঁধ বাজার সহ মুল বাজারের ফুটপাতে নানা ধরনের পসরা সাজিয়ে ব্যবসা করছে ভ্রাম্যমাণ দোকানীরা। মাস্ক ছাড়াই বের হয়েছেন অধিকাংশ মানুষ। কাঁচাবাজার, মাছ বাজারসহ বিপণীবিতানগুলোতে কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। গাদাগাদি করে কেনাকাটা করছেন। শারীরিক দূরত্ব মানার বালাই দেখা যাচ্ছে না কারো মাঝে। প্রশাসনের দেওয়া নির্দেশনা মানতে নারাজ সাধারণ মানুষ। রাস্তা-ঘাটে তাদের দেখা যাচ্ছে মাস্ক ছাড়াই, মানা হচ্ছে না নিরাপদ শারীরিক দূরত্বও।

এছাড়াও উপজেলার স্থানীয় একাধিক হাট-বাজারগুলোতে স্বাভাবিক জীবনযাপনের মতো মানুষের চলাফেরা ও ভিড় করে কেনা-বেচা সহ চায়ের আড্ডা দেয়ায় করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তাই বেড়েই চলছে করোনা রোগীর সংখ্যা। প্রশাসন তৎপর না থাকায় সামাজিক দূরত্বটুকুও মেনে চলছেন না অনেকেই।
যার ধরুন এই অবস্থা রূপ নিয়েছে বলে মনে করেন উপজেলার সচেতন মহল।

এদিকে সাচনা মাছ বাজারের একই গলিতে মাংস, হাঁস,মুরগী,শুটকি, কাঁচাসবজি বাজার ও একাধিক চাউলের দোকান, তাই সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত না হওয়ার কারণে গত ১৩ এপ্রিল তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পালের নির্দেশে কাঁচা বাজারকে সাচনা বাজারস্থ সিএন্ডবি রোডে স্থানান্তর করা হয়। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই বদলি জনিত কারনে ইউএনও প্রিয়াঙ্কা পাল চলে যাওয়ার পর, নতুন ইউএনও বিশ্বজিত দেব যোগদান করেন। পরবর্তীতে ১মে নবনিযুক্ত ইউএনও সাচনা বাজার পরিদর্শনে গেলে কাঁচাসবজি ব্যবসায়ীরা সিএন্ডবি রোডে ব্যবসা করতে সমস্যা বলে অপারগতা প্রকাশ করেন। ইউএনও কোন সিদ্ধান্ত দেয়ার আগেই কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা পরেরদিন পুনরায় তাদের আগের জায়গায় ব্যবসা শুরু করেন। যা চরমভাবে ব্যাহত করছে সামাজিক দূরত্বকে। তাছাড়া উপজেলার গ্রামগঞ্জেও অধিকাংশ মানুষই মানছে না মরণঘাতী করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুরত্ব কর্মসূচি।

জামালগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যদিও বিকাল ৪ টার পর ওষুধের ফার্মেসি ব্যতীত সকল দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে, তবে তা কার্যকর তো হচ্ছেই না, বরং রাত ৯ টা পর্যন্ত খোলা রাখছে সকল দোকানপাট।

তাছাড়া সাচনা বাজারে অভিনব কায়দায় চলছে ব্যবসা,একাধিক পান ও কনফেকশনারী দোকানের সামনে দেখা যাচ্ছে সামান্য কিছু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস (যেমন কিছু পিয়াজ,আলু,আর লবন) সাজিয়ে প্রশাসনকে বুঝাচ্ছে তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকানদার। আর এর ফাঁকেই চলছে জনসমাগম করে ব্যবসায়।

এছাড়া সড়কে সীমিত আকারে যাতায়াত ও সমস্ত যানবাহনে একসিট দূরত্ব বজায় রেখে ৬০ শতাংশ ভাড়া অতিরিক্ত নিয়ে গাড়ি চলাচলের কথা থাকলেও, তার চিত্র দেখা যাচ্ছে উল্টো। সাচনা থেকে সিনজি যোগে সুনামগঞ্জ শহরে নির্ধারিত পূর্বের ভাড়া ছিলো ৬০ টাকা, কিন্তু বর্তমানে জন প্রতি ৯০ থেকে ১০০ টাকা করে নিলেও সিট খালি যাচ্ছে না একটিও।

একইভাবে মটর সাইকেলে ড্রাইভার সহ ৩ জন ও অটোরিকশাতেও চলছে নিয়মের অধিক। গত এপ্রিল মাসের শেষ দিকে কড়া নিরাপত্তা চলাকালীন সময়ে অনেকেই সামাজিক দূরত্ব মেনেছে জামালগঞ্জে। কিন্তু মে মাস থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য চোখে পড়ার মত বড় ধরনের কোন অভিযান ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেনি বলে সচেতন মহলের দাবি।

এছাড়া সাচনা টু জামালগঞ্জ সুরমা নদী পারপারে প্রতি নৌকায় থাকছে ৬০ থেকে ৭০ জন নারী পুরুষ, যাদের অধিকাংশই মাস্কবিহীন।
তাই সচেতন মহল মনে করেন, করোনা মোকাবেলায় সকলকে সচেতন হতে হবে। অপ্রয়োজনে আড্ডাবাজি বন্ধ করার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। তা না হলে সবার জন্য বড় ধরনের বিপদ অপেক্ষা করছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন সরকারি কোন আইন মানছেনা সাধারণ জনগণ। প্রশাসন থেকে ঘনঘন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করলে আশা করছি ব্যবসায়ী সহ সাধারণ জনগন সচেতন হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন বলেন গত ২৮ মে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন সমন্বয় অধিশাখা হতে দেশব্যাপী যে ১৫ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, তার অধিকাংশই মানা হচ্ছেনা উপজেলাতে। এছাড়াও ২০১৮ সালে উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত ছিলো সাচনা বাজারে দোকান মালিকগণ কোন মালামাল দোকানের সামনে বাহিরে সরকারি গলিতে রাখা যাবেনা। এই আইন মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে বাস্তবায়নও করা হয়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিককালে দোকানের সামনে সরকারী রাস্তা ও ফুটপাত দখল করে ভ্রাম্যমাণ দোকানীরা অবাধে ব্যবসা করে যাচ্ছে। যা আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি বলে মনে করছি।

 

জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত দেব এ বিষয়ে বলেন মানুষদের ঘরে থাকতে পরামর্শ দিচ্ছি। ৪ টার মধ্যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে বণিক সমিতিকে বলে দিয়েছি। তারা না মানলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এছাড়াও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫ হাজার মাস্ক কেনা হয়েছে, প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ আগামীকাল থেকে তা বিতরণ করবে।

এ বিষয়ে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক আবদুল আহাদ এর সাথে ফোনে কথা বললে তিনি জানান আমি জেলার কয়েকটি উপজেলার ইউএনও কে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা সহ কঠোরভাবে সরকারী নির্দেশনা আইন বাস্তবায়ন করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। তাছাড়া জামালগঞ্জ সহ বাকি উপজেলাগুলোতে আজই নির্দেশনা দিয়ে দিবো।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin