বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫২ অপরাহ্ন


জিএসসি’র কর্মকর্তাদের আর্থিক অনিয়ম ও অস্বচ্ছ নির্বাচনের অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কট

জিএসসি’র কর্মকর্তাদের আর্থিক অনিয়ম ও অস্বচ্ছ নির্বাচনের অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কট


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রবাস ডেস্ক:

বৃটেনের বাঙালি কমিটির বৃহত্তম সংগঠন গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এন্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল ইন ইউকে,(জিএসসি)’র কর্মকর্তাদের আর্থিক অনিয়ম, সালিশকারী প্যাট্রনদের সুপারিশ ও নির্দেশনা বাস্তবায়ন না করে ত্রুটিপূর্ণ ভোটার তালিকা (ভোটিং ডেলিগেট) ও আজ্ঞাবহ কমিশন দিয়ে পক্ষপাতদুষ্ট ও অস্বচ্ছ নির্বাচন পরিচালনার অভিযোগ এনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন নির্বাচন বয়কট করা করেছেন মাসুদ আহমদের নেতৃত্বাধীন অংশ।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) পূর্ব লন্ডনের প্রেসক্লাব অফিসে এই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী ড. মুজিবর রহমান।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আপনারা জানেন জিএসসি’র মেম্বারশিপ অনুমোদন ও ডেলিগেট নির্বাচনে অনিয়ম এবং মেম্বারশিপ ফি-সহ সংগঠনের আর্থিক অনিয়ম ও দায়িত্বশীলদের স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে গত ৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে এবং গত ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ তারিখে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে । এ ব্যাপারে সেন্ট্রালের দায়িত্বশলীরা সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। অনেক ক্ষেত্রে ‘নো কমেন্ট’ বলে হাফ ছেড়ে বাঁচতে চেয়েছেন। লন্ডনের সাংবাদিকদের জবাবদিহিতার মুখোমুখি না হয়ে বার্মিংহামের সাংবাদিকরা সবকিছু সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকবেন না মনে করে ‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকার’ চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু বার্মিংহামের সাংবাদিক বন্ধুদের ক্ষুরধার প্রশ্নে তুলোধুনো হতে হয়েছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে চিরাচরিত ভঙ্গিতে সবাইকে ক্লাশ করাতে উদ্যত হলে সাংবাদিকদের প্রতিবাদের মুখে তা বন্ধ করতে হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি দেখে কষ্ট পেয়েছি। ত্রুটিপূর্ণ ভোটার তালিকা (ভোটিং ডেলিগেট) এবং প্যাট্রনদের অনুসন্ধান, সুপারিশ ও পরামর্শ।

তিনি বলেন, আপনারা ইতিমধ্যে জেনেছেন যে, জিএসসি’র এনইসির সিদ্ধান্তক্রমে ২৪ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে সেন্ট্রাল সেক্রেটারি কর্তৃক লিখিত চিঠির প্রেক্ষিতে, আর্থিক অনিয়মসহ বিভিন্ন অভিযোগ খতিয়ে দেখতে এবং বিবদমান সকল পক্ষকে নিয়ে সংগঠনকে এগিয়ে নিতে প্যাট্রন ড. হাসানাত এম হোসাইন এমবিই এবং কে এম আবু তাহের চৌধুরীকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

সাউথ ইস্ট রিজিওন সম্পর্কে প্যাট্রনদের অনুসন্ধানে বলা হয়, ৩০ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে সদস্যপদ জমা দেওয়ার হিসেবে এবং পরবর্তীতে এনইসির ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখের সভায় ২৪১৮ জন সদস্য অনুমোদিত হয়। তাই আশা করা হয়েছিল £২৪,১৮০ পাউন্ড হয় নগদ বা ব্যাংক ট্রান্সফার বা চেকের মাধ্যমে ১৫ ডিসেম্বর তারিখে বা তার আগে জিএসসির সেন্ট্রাল বা সাউথ ইস্ট রিজিওনের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা হবে ।

যদিও পরে, চূড়ান্ত যাচাই-বাছাই (তারিখ উল্লেখ করা হয়নি) দৃশ্যত এই সংখ্যাটি ২২৭৫ দেখানো হয়েছে। বাস্তবতা হলো, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে এনইসি কর্তৃক অনুমোদনকৃত সদস্য সংখ্যা অনুযায়ী £২৪,১৮০ পাউন্ড, হয় জিএসসি সেন্ট্রাল ব্যাংক অ্যাকাউন্টে অথবা সাউথ ইস্ট রিজিওনের ব্যাংক একাউন্টে জমা হয়ে থাকবে অথবা দুই ব্যাংকের মোট ফান্ড একত্র করলে £২৪,১৮০ পাউন্ড হওয়ার কথা। ৩০ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে তৎকালীন চেয়ারম্যান, সেক্রেটারি এবং ট্রেজারারের যৌথভাবে স্বাক্ষরিত একটি ডকুমেন্টে দেখা যায় যে, সাউথ ইস্ট রিজিওনের মোট সদস্যসংখ্যা হলো ২৪১৮ জন এবং তারা ঐদিনই প্রায় £৩৮৯০ পাউন্ড নগদ এবং চেকের মাধ্যমে প্রায় £১৬,০৮০ পাউন্ড বুঝে নিয়েছিলেন। তবে ৭ নভেম্বর ২০২২ তারিখে সাউথ ইস্ট রিজিওনের ইসি সভার কার্যববরণী এবং বক্তব্য (যার রেকর্ড রয়েছে) এবং পূর্বেকার কথা অনুযায়ী ট্রেজারার সুফি সুহেল আহমদ ৩০ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে নগদ এবং চেকের সমস্ত অর্থ পেয়েছেন এবং তিনি একটি কালো প্লাস্টিকের ব্যাগে কেন্দ্রকে সবকিছু সমযে দিয়েছেন।

এছাড়া সেন্ট্রাল চেয়ার ২২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখের এনইসি সভায় এটি নিশ্চিত করেছেন যে, তিনি নিজেই সাউথ ইস্ট রিজিওনের সকল মেম্বারশীপের ফি ব্যাংকিং করেছেন। জিএসসি’র ২০১৯/২০ সালের সেন্ট্রাল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী দেখা যায় £১০,৮৭৪ পাউন্ড প্লাস £৯২০ পাউন্ড (পোর্টসমাউথ শাখা) মিলে মোট ফান্ড জমা হয়েছে £১১,৭৯৪ পাউন্ড। সেন্ট্রাল ব্যাংক একাউন্টে ১২-১২-২০১৯, ১৯-১২-২০১৯ এবং ১৬-১২-২০১৯ তারিখের এই ফান্ড জমা হয়েছে। তবে £২৪,১৮০ পাউন্ড মিলাতে হলে বাকি £১২,৩৮৬ পাউন্ড কোথাও থাকতে হবে। তাই সাউথ ইস্ট রিজিওনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট’র স্টেটমেন্ট চেক করে মিসিং £১২,৩৮৬ পাউন্ড মেম্বারশিপ ফি খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করা হয় ।

সাউথ ইস্ট রিজিওনের একাউন্টে ৯-১২-২০১৯ তারিখে মাত্র £৩,৫২০ খোঁজে পান। এই ফান্ড কোথা থেকে এসেছে তা নিশ্চিত করতে সাউথ ইস্ট রিজিওনের তৎকালীন দায়িত্বশলীদের জিজ্ঞাসা করা হলেও পরিষ্কার উত্তর মিলেনি। সত্যকার অর্থে ‘মনে করতে পারছি না’ অথবা ‘নো কমেন্ট’ জাতীয় কথা বলে আর্থিক অনিয়মের বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার ব্যর্থ চেষ্টা করা হচ্ছে । সাউথ ইস্ট রিজিওনে জমাকৃত ফান্ড যদি সদস্যদের ফি’র ফান্ড হয়, তাহলেও £৮,৮৬৬ পাউন্ড মিসিং রয়ে গেছে যা প্রায় ৯০০ জন সদস্যের মেম্বারশিপকে প্রশ্নবিদ্ধ করে, যারা আদৌ সদস্য হিসেবে বিদ্যমান থাকতে পারে অথবা নাও থাকতে পারে। সাউথ ইস্ট রিজিওনের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট থেকে দেখা যায় আরও কিছু ফান্ড ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখ মেম্বারশিপ ফি প্রদানের ডেডলাইনের অনেক পরে, এমনকি বছর দুই বছর পরে জমা হয়েছে ।

উদাহরণস্বরূপ ১১ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে বেডফোর্ড থেকে টি আলী মিনার রেফারেন্সের মাধ্যমে £৫১০ পাউন্ড – ক্রেডিট করা হয়েছিল ৷ এটি ছিল মেম্বারশিপ ডেডলাইনের বছর খানেক পরে এবং বেডফোর্ডের ঘোষিত মেম্বারশীপের অর্ধেকেরও কম ফি। এখন যদি মেম্বারশিপ ডেডলাইনের পরে জমাকৃত ফি নিয়ে মেম্বারশিপ অনুমোদন অথবা যাদের ফি আদৌ ব্যাংকে জমা হয় নাই তাদেরকে অনুমোদন দেয়া হয় তাহলে এটি একটি জালিয়াতি ও ক্ষমতার চরম অপব্যবহার । এসব সদস্যদের মধ্য থেকে ভোটিং ডেলিগেট সিলেক্ট করে যে ভোটার তালিকা তৈরী করা হয়েছে তা একটি অস্বচ্ছ ভোটার তালিকা।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, জিএসসি’র বিজিএম এবং নির্বাচনের উদ্দেশ্যে ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে অনুমোদিত সদস্যসংখ্যা অবশ্যই প্রশ্নবিদ্ধ এবং এ থেকে ভোটিং ডেলিগেট সিলেক্ট করে কখনো একটি স্বচ্ছ ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হতে পারে না। আরো কয়েকটি রিজিওনে একই ধরণের অনিয়ম হয়েছে। ভোটার তালিকা স্বচ্ছ না করে নির্বাচন পরিচালনা করার অর্থ হলো সংগঠনের জেনুইন সদস্য এবং কমিউনিটির সাথে প্রতারণা করা। সম্মানিত সাংবাদিকবৃন্দ, ২। সংগঠনে বিভিন্ন অনিয়ম বিশেষ করে আর্থিক অনিয়মের বিষয়টি আমাদের জানালে আমরা দুইজন এনইসি সদস্য চ্যারিটি ট্রাস্টি হিসেবে সেন্ট্রাল কমিটির সেক্রেটারিকে সেন্ট্রাল ব্যাংক একাউন্টের স্টেটমেন্ট দেখানোর অনুরোধ করি এবং সাউথ ইস্ট রিজিওনের কতজন মেম্বারের মেম্বারশিপ ফি সময়মতো জমা হয়েছে তা জানতে ২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে একটি চিঠি লিখি।

তিনি আরো বলেন, সেন্ট্রাল সেক্রেটারী খুসরু খান সাহেব ৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে জানান যে, সাউথ ইস্ট রিজিওনের পক্ষ থেকে সেন্ট্রাল ব্যাংক একাউন্টে শুধুমাত্র সেন্ট্রালের পরশন (প্রতি মেম্বারের জন্য ৪ পাউন্ড করে জমা হয়েছে) ।

এছাড়া এনইসি আমাদের অভিযোগ খুবই গুরুত্বের সাথে নিয়েছে বিধায় মেম্বারশিপ ফি-সহ অন্যান্য অভিযোগের তদন্ত করার জন্য একটি কমিটি করেছে যা এনইসি নির্বাচনের এক মাস পরে অর্থ্যাৎ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিবে। নির্বাচনের পরে প্রতিবেদন দাখিলের বিষয়টি এবং সাউথ ইস্ট রিজিওনের ট্রেজারারের বক্তব্য এবং সেন্ট্রাল সেক্রেটারীর বক্তব্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়াতে মেম্বারশিপ ফি’র ব্রেক ডাউন দিয়ে তার মন্তব্য জানতে চাই। কিন্তু তিনি কোনো উত্তর না দিয়ে বলেন, তদন্ত কমিটি বিষয়টি দেখবে। যাদেরকে দিয়ে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে তাদের দু’জন সদস্য আবার এই নির্বাচনে উনাদের প্যানেলভুক্ত হয়ে নির্বাচন করছেন। আর ওপর সদস্য বার্মিংহামে উনাদের প্যানেল পরিচিতি সভায় তাদের পক্ষে সাফাই করেছেন এবং সম্মানিত প্যাট্রনদের নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেছেন।

তাই নির্বাচনের এক মাস পর মেম্বারশিপ তথা ভোটার ডেলিগেট বিষয়ে সিদ্বান্ত এবং নিজেদের প্যানেলভুক্ত লোকদের দিয়ে তদন্ত কমিটি যে সবই পাতানো তা বুঝতে আর বাকি থাকলো না। জিএসসিতে এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ‘বেড়ায় ধান খাচ্ছে’। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আমাদের দাবি হলো, যেসব সদস্যদের ফি যথাসময়ে অর্থাৎ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখের মধ্যে যারা ফি জমা দেননি তাদের চিহ্নিত করতে হবে এবং যদি এদের মধ্য থেকে কাউকে ভোটিং ডেলিগেট (ভোটার প্রতিনিধি) হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় তাহলে সেন্ট্রাল কমিটির নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার বাতিল করা দরকার। নতুন ভোটার তালিকা (ভোটিং ডেলিগেট) শুধুমাত্র রিজিওনের বৈধ ভোটদানকারী সদস্যদের মধ্যে থেকে তৈরি করে নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। তাই আমরা এই অস্বচ্ছ নির্বাচনের প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত থেকে কোনোভাবেই প্রহসনের নির্বাচনকে বৈধতা দিতে পারি না।

তিনি বলেন, জিএসসির সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৫(২) এবং অনুচ্ছেদ ৯(১) লঙ্গন করে বর্তমান দায়িত্বশীলরা সংবিধানকে শুধু বৃদ্ধাঙ্গুলি নয় বরং কমিউনিটিকে হেই করছেন। সংবিধানের অনুচ্ছেদঃ ৮(২) অনুসারে রিজিওনের সাধারণ সদস্য কর্তৃক নির্বাচনের মাধ্যমে ভোটিং ডেলিগেট নির্ধারণের বিধান রয়েছে। অথচ বর্তমান দায়িত্বশীলরা মেম্বারশিপ অনুমোদনে অনিয়মের মাধ্যমে তাদের পছন্দের লোকদের বিভিন্ন রিজিওনে দায়িত্বে বসিয়ে পক্ষপাতমূলক ও একতরফা ভোটিং ডেলিগেট করিয়ে আবারো নিজেদের পদ-পদবী ধরে রাখতে হেন কোনো কাজ নাই যা তারা করছেন না।

২০১৯ সালে মেম্বারসিপ ফর্ম ফি-সহ জমা দিয়ে আমরা সবাই ২ বছরের জন্য GSC এর মেম্বার হই। ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ সালে সবার মেম্বারশীপের মেয়াদ শেষ হয়। অতএব আমরা কেউই বৈধ ভোটার নই। সাধারন মেম্বারদের এই অবস্থার জন্য দায়ী জিএসসি সেন্ট্রালের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ । জিএসসি সেন্ট্রাল এনইসি’র মেয়াদ ছিল দুবছর । কোনপ্রকার এজিএম বা এসজিএম ছাড়া পাঁচ বছর অতিবাহিত হওয়ায়, তারাও এখন অবৈধ । তাই বিশেষ সাধারণ সভা করে সকলের মতামতের ভিত্তিতে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করেই কেবল নির্বাচন সম্পন্ন করে কার্যকরী কমিটি ও চ্যারিটি ট্রাস্টি নির্বাচিত করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা পূর্বেও উল্লেখ করেছি যে, ইতিমধ্যে দুই জন নির্বাচন কমিশনার পদত্যাগ করেছেন। যদিও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা তা এখনো অফিসিয়ালি জানেন না। ঘোষিত নির্বাচনে ১১ ডিসেম্বর ২০২২ ছিল নমিনেশন জমা দেয়ার শেষ তারিখ, আর ১৮ ডিসেম্বর ২০২২, বিকেল ৫ ঘটিকা ছিল নমিনেশন প্রত্যাহারের শেষ সময়। কিন্তু ১৮ ডিসেম্বর বেলা ১টার দিকে দিকে জেনারেল সেক্রেটারি যিনি আবার নির্বাচনে একই পদে প্রার্থীও বটে। তিনি এবং বর্তমান চেয়ার মিলে তথাকথিত এডমিনিস্ট্রেটিভ ক্ষমতা বলে নির্বাচন কন্ট্রোলের দায়িত্ব নিয়ে নেন। এর পরেই চলে একের পর এক লঙ্কা কান্ড। বিলেতে বাঙালি কমিউনিটির এক উজ্জ্বল নক্ষত্র প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আব্দুর রাকীব ২০ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে সেক্রেটারি খুসরু খাঁন সাহেবকে একটি মেসেজ লিখে পদত্যাগ করেন। তিনি তার মেসেজে একটি বিষয় উল্লেখ করেন যে, তাঁর সাথে যে তিনজন নির্বাচন কমিশনারকে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল তাদের সাথে তিনি কখনো বসার সুযোগ পান নাই এবং উনাদের কোনো উপস্থিতি নির্বাচনী প্রক্রিয়াতে ছিল না। তাই তিনি মনে করেছেন এই ধরণের পরিস্থিতিতে এবং এই সময়ের মধ্যে তার পক্ষে একটি অবাধ, নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ নির্বাচন উপহার দেয়া সম্ভব নয়। এর পরে জিএসসির সিনিয়র লিডার এবং নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং আমরা কয়েকজনের মতামতকে অগ্রাহ্য করে তথাকথিত মেজরিটির জোরে (যারা প্রত্যেকেই আবার এই নির্বাচনে প্রার্থী) নতুনভাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আবুল কালামকে দায়িত্ব দেয়া হয়। জনাব মোহাম্মদ আব্দুর রাকিব সাহেবের পদত্যাগের পরও তিনজন নির্বাচন কমিশনার ছিলেন, যা সংবিধানের ক্রাইটেরিয়া পুরোপুরি পূর্ণ করে। তাহলে ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আবুল কালামকে আনার কেন প্রয়োজন পড়লো? তা আজ মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন! আমাদের এখন মনে হচ্ছে দায়িত্ব পেয়েই একটি প্যানেলভূক্তদের সবাইকে নির্বাচিত ঘোষণাটা দেয়ার জন্য তিনি উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষা করেছিলেন । শুরুতে খুবই কৌশলে লিখিত দিলে সব কিছু দেখবেন বলে জানান এবং অভিযোগ দিতে বলেন। অভিযোগ পেয়েও মিডিয়াতে বলেছেন অভিযোগ পান নাই। ২ জানুয়ারিতে একজন প্রার্থীর লিখিত ইমেইলের জবাবে প্যাট্রনদের অনুসন্ধানে কি বেরিয়ে আসে তার জন্য অপেক্ষা করছেন বলেও জানান । কিন্তু এখন বলছেন এসব বিষয় তার জুরিসডিকশনের মধ্যে পরে না। মিডিয়াতে একেক সময় একেক কথা বলে তিনি ছলে-বলে কৌশলে একটা প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে তারই খুব কাছের বন্ধু, সাবেক ব্যবসায়িক পার্টনারের প্যানেলকে নির্বাচিত করতেই যেন তার সকল প্রচেষ্টা।
অভিযোগ পেয়ে এখন বলছেন এসব অনিয়ম ও অভিযোগ আমাদের দেখার এখতিয়ার নেই। তাহলে সোজাসাপ্টা প্রশ্ন হলো পদত্যাগের এখতিয়ারটুকুও কি অন্যের হাতে? ৫। একটি স্বচ্ছ, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করার জন্য যেসব উপাদানের ঘাটতির কারণ দেখিয়ে কমিউনিটির দু’জন সম্মানিত ব্যক্তিত্ব নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব থেকে সরে গিয়েছেন এখন তার থেকে আরো বেশি বিষয়াদি বিশেষ করে মেম্বারশিপ ফি নিয়ে অনিয়মের বিষয়টি আরো পরিষ্কারভাবে উঠে এসেছে । তাই সালিসকারী দুইজন প্যাট্রনদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন পাওয়ার পরেও যারা নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, তারা জিএসসি এবং কমিউনিটিকে বিভক্ত করার নীল নকশা বাস্তবায়ন করছেন। বিলেতের বাঙালি কমিউনিটির ইতিহাসে উনারা একটি কালো অধ্যায়ের রচনা করতে চলছেন।

তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, নির্বাচনের সাধারণ রীতি-নীতির বরখেলাপ করে বর্তমান নির্বাচনে একটি প্যানেলভুক্ত সদস্যদের এনইসি তথা দায়িত্বশলীদের আজ্ঞাবহ হয়ে কাজ করে নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতদুষ্ট ও প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে নর্থ কোরিয়া স্টাইলের নির্বাচনকেও হার মানাতে যাচ্ছে । অনেক প্রমাণাদি ও যথেষ্ট সময় দেয়ার পরেও যেহেতু উনাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হয় নাই। তাই আমরা এই নির্বাচনকে প্রত্যাখ্যান করছি এবং অবিলম্বে তাদের পদত্যাগ দাবি করছি।
আজ থেকে আমরা এই প্রহসনের নির্বাচন বর্জন করলাম।

বিলেতের মিডিয়া রিপোর্ট ও কমিউনিটি সংগঠকদের মধ্যস্থতায় কর্ণপাত না করায় জিএসসিতে আর্থিক স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনতে, মেম্বারশিপ ফি-সহ বাংলাদেশে বিতরণকৃত আড়াই কোটি টাকার হিসেব পেতে এবং স্বচ্ছ ভোটার তালিকা দিয়ে নির্বাচন সম্পন্ন করতে আমাদের পক্ষ থেকে লিগ্যাল প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। আমরা সময়মতো আপনাদের এ বিষয়ে আপডেট করে জানাবো।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন চেয়ারপার্সন পদ – প্রার্থী মসুদ আহমেদ, ট্রেজারার পদ-প্রার্থী মিসেস হেলেন ইসলাম ,ও জিএসসির সাবেক জয়েন্ট সেক্রেটারি মোহাম্মদ মকিস মনসুর।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জিএসসি’র পেট্রন ড. হাসনাত এম হোসাইন এমবিই, পেট্রন কে এম আবু তাহের চৌধুরী, ফাউন্ডার্স ট্রেজারার মাহিদুর রহমান, জিএসসির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আব্দুল কাইয়ুম কায়সার, সাবেক উপদেষ্টা আব্দুল আহাদ চৌধুরী, জামাল হোসেন, কদর উদ্দিন, আব্দুর রহিম রনজু,রেজাউল করিম সিপার, নুরুল ইসলাম, গিয়াস উদ্দিন, মাওলানা রফিক আহমদ, আহবাব হোসেন, মুজিবুর রহমান, রকিবুর রহমান, এ বি রুনেল, শেখ সুমন তরফদার সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এনইসি পদপ্রার্থীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।
তাজুল ইসলাম, জামাল হোসেন, শিপার রেজাউল করিম, কদর উদ্দিন, আব্দুর রহিম রঞ্জু, আব্দুল বাসিত রফি, শেখ নুরুল ইসলাম, গিয়াস উদ্দিন প্রমূখ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin