বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৫০ অপরাহ্ন

জেলা বিএনপিতে ‘হযবরল’ অবস্থা তৃণমূলে ক্ষোভ বিদ্রোহ চরমে

জেলা বিএনপিতে ‘হযবরল’ অবস্থা তৃণমূলে ক্ষোভ বিদ্রোহ চরমে


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
সিলেট বিএনপির সম্মেলনকে সামনে রেখে একের পর এক বিদ্রোহের সৃষ্টি হচ্ছে তৃণমূলে। বিদ্রোহের সূত্রপাত হয় আহবায়ক কমিটি কর্তৃক দলের ১৮ ইউনিট কমিটি গঠন নিয়ে। বিদ্রোহের বীজ বপন হয়েছে গোলাপগঞ্জ পৌর শাখার আহবায়ক কমিটি নিয়েও।

নিয়ম বর্হিভূতভাবে গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপির কমিটি অনুমোদনের পর সেটি বিলুপ্ত না করেই আরেকটি সংশোধিত কমিটি করা হয়। এনিয়ে গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপিতে অসন্তুষ বিরাজ করছে।

কমিটি থেকে বাদপড়া সদস্যরা বলছেন, দলের কর্মকা- কুক্ষিগত করতে আমাদের বাদ দেয়া হয়েছে। যারা তাদের কথা শুনবে যাদের নিয়ে ইচ্ছেখুশি কাজ করানো যাবে তাদেরকে কমিটিতে রাখা হয়েছে। কমিটি গঠনে টাকার ছড়াছড়ি হয়েছে বলে অভিযোগ করেন নেতাকর্মিরা।

অনেকেই মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে কমিটিতে স্থান পেয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এমন অবস্থায় দলের স্বার্থ জলাঞ্জলি দেয়া হয়েছে বলে দাবি তৃণমূল নেতাকর্মিদের। এসবের প্রভাব এরই মধ্যে তৃণমূলে পড়েছে বলে দাবি তাদের। দলের কবর রচনা করতেই কমিটি নিয়ে হযবরল অবস্থার সৃষ্টি করা হয় বলে জানিয়েছেন একাধিক নেতাকর্মি।

জানা যায়, ২৭ ফেব্রুয়ারি গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপির কমিটি ঘোষণা হয়। দলীয় প্যাডে জেলা আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার স্বাক্ষরিত অনুমোদিত কমিটিতে হাসান ইমদাদকে আহবায়ক করে সদস্য করা হয়, মশিকুর রহমান মহি, ছালিক আহমদ চৌধুরী, নজরুল ইসলাম, আলেকুজ্জামান আলেক, মিনহাজ উদ্দিন চৌধুরী, আব্দুল খালিক, মছরু আহমদ,

নাজমূল হোসেন নাজিম, শেখ সুহিবুর রহমান মিজু, মুজিবুর রহমান মুজিব, দুলাল আহমদ, আব্দুল জলিল (কাউন্সিলর) নুরুল আম্বিয়া চৌধুরী জামিল, মুছাব্বির আহমদ, জাহেদ আহমদ, জামাল আহমদ, ছানুয়ার হোসেন ইমানী, সুফিয়ান আহমদ খান, আজমল হোসেন ও রাজু আহমদ চৌধুরী।

ওইদিনই দলীয় প্যাডে জেলা বিএনপির আহবায়ক স্বাক্ষরিত আরেকটি সংশোধিত কমিটি অনুমোদন করা হয়। এ কমিটিতে ৬ জনকে বাদ দিয়ে নতুন ৬ সদস্যকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। সংশোধিত কমিটি থেকে বাদপড়া ৬ জন হলেন- দুলাল আহমদ, মুছাব্বির আহমদ, জাবেদ আহমদ, জামাল আহমদ, ছানুয়ার হোসেন ইমানী ও রাজু আহমদ। বাদ পড়াদের স্থলে স্থলাভিসিক্ত করা হয় জামাল আহমদ, ডা. এম এ রহিম, মাহবুবুর রহমান, নাঈম আহমদ, নুরান চৌধুরী ও সেলিম আহমদ সেলু।


আহবায়ক কমিটি থেকে বাদপড়া সদস্যরা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। দুলাল আহমদ অভিযোগ করে বলেন, আমরা দলের ত্যাগী কর্মি। সংশোধিত কমিটির নামে আমাদের বাদ দিয়ে অন্যায় করা হয়েছে। এর প্রভাব স্থানীয় পর্যায়ে দলের নেতাকর্মির মধ্যে পড়েছে।

তিনি বলেন, বিষয়টি দলের সিনিয়র নেতাদের জানানো হয়েছে। মুছাব্বির আহমদ বলেন, বিএনপিতে দালালরা ঢুকে পড়েছে। দু’একজন নেতার স্বার্থসিদ্ধির জন্য টাকার প্রভাব খাটিয়ে আমাদের বাদ দেয়া হয়। এটা আহবায়কের গর্হিত কাজ। তৃণমূলে এ নিয়ে বিদ্রোহ দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে জামাল আহমদ বলেন, ক্ষমতার অপব্যবহার করে জেলা বিএনপিতে মনগড়া কার্যক্রম চলছে। এ কাজে দলের হযবরল অবস্তার বর্হিপ্রকাশ ঘটেছে। সম্মেলনে পকেট কমিটি করতে এ অবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছে। আমার প্রতি অসম্মানজনক এ আচরণের বিচার দাবি করেছি দলের নীতি নির্ধারকদের কাছে।

এ বিষয়ে রাজু আহমদ চৌধুরী বলেন, জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি নিয়ে টাকা ছড়াছড়ি হয়েছে। টাকার বিনিময়ে কমিটি অদলবদল করা হয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপির কমিটি নিয়ে আহবায়ক জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কাহের শামীমকে টাকা দিয়ে এসব করেছেন।

আমাদের মত ত্যাগী নেতাদের বাদ দেয়ার আরেক কারণ হল- আমাদের দিয়ে ইচ্ছেখুশি কিছু করাতে পারবেননা। যারা তাদের কথা শুনবে তাদের নিয়েই কমিটি করা হয়। তবে এর প্রভাব ইতোমধ্যে দলের তৃণমূলে পড়েছে। এসব পকেট কমিটি করে দলকে জলে ডুবিয়ে দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিএনপির জেলা আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার জানান, টাইপের দেয়ার পর ভুলবসত প্রথম অনুমোদিত কমিটিতে কয়েকজনের নাম চলে আসে। পরে তাদের বাদ দিয়ে আবার সংশোধিত কমিটি অনুমোদন করি।

একটি কমিটি অনুমোদন হয়ে গেলে সেটি বিলুপ্ত না করে সংশোধিত কমিটি অনুমোদন দেয়া যায় কিনা প্রশ্নে তিনি বলেন- সাংগঠনিক বিধি মতে আগের কমিটি বিলুপ্ত করতে হয়। তবে এ বিষয়টি নিয়ে এতকিছু না ভেবে সরলতার মধ্যে আরেক কমিটি অনুমোদন দিয়ে দেই।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin