শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ১১:১৩ অপরাহ্ন



স্কুল কর্তৃপক্ষ অমার্জিত কাজ করছে

স্কুল কর্তৃপক্ষ অমার্জিত কাজ করছে


ফারজানা ইসলাম লিনু:

সিলেটের স্কলার্সহোম স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের বেতন পরিশোধের নোটিশ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া বেশ সরগরম। যে যেভাবে পারছেন স্কলার্সহোমের মুন্ডুপাত করছেন।

সম্মানিত অভিভাবকবৃন্দ ও সচেতন নাগরিক সমাজ,আমি আপনাদের উদ্দেশ্যে অল্প কিছু কথা বলতে চাই।
বাংলাদেশ তথা সিলেটে বেশ কিছু সুনামধন্য সরকারি আধা সরকারি স্কুল রয়েছে। সেইসব স্কুল থেকে পাশ করে ছাত্রছাত্রীরা দেশ বিদেশের সুনামধন্য প্রতিষ্ঠানে উচ্চশিক্ষা নিয়ে বের হচ্ছেন। এই সব স্কুলে আসন সংখ্যার স্বল্পতা ও মেধাভিত্তিক ভর্তির কারণে সবাই সুযোগ পায়না। তাই অনেককে বেছে নিতে হয় তুলনামূলক কম সুনামের স্কুল।

আবার অনেকে অধিকতরও ভালো সেবা পাওয়ার আশায় সুযোগ পাওয়া সত্ত্বেও সরকারি, আধা সরকারি স্কুল রেখে ইংরেজি মাধ্যমের দামি স্কুলে নিজের সন্তানকে ভর্তি করান। নিজের সামর্থ্যের সাথে মিল রেখেই তারা এমনটা করেন।

স্কুল কর্তৃপক্ষ কারো বাড়িতে গিয়ে চাপ প্রয়োগ করে নিশ্চয়ই ছাত্রছাত্রী নিয়ে আসেন না।

বর্তমানে বাংলাদেশের অন্যান্য জায়গার মতো সিলেট শহরেও বেশ কিছু বৃটিশ কারিকুলাম ও ন্যাশনাল কারিকুলামের ইংরেজি ভার্সনের স্কুল রয়েছে। সেইসব স্কুলে ছাত্রছাত্রী অনুপাতে শিক্ষক কর্মচারীও রয়েছেন। যাদের পেট আছে, ক্ষুধা আছে, তৃষ্ণা আছে পরিবার আছে। বেশিরভাগের পরিবার এই পেশার উপর নির্ভরশীল।

বর্তমানে করোনাজনিত দুর্যোগের কারণে এইসব স্কুলের শিক্ষক কর্মচারিরাও কর্মহীন। বিভিন্ন স্কুল কর্তৃপক্ষ ফোনে ম্যাসেজ দিয়ে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের সমীপে বেতনের তাগদা দিচ্ছে।

  1. একজন অভিভাবক হিসেবে আমি বলবো নিঃসন্দেহে অমানবিক কাজ। স্কুল কর্তৃপক্ষ ক্ষমার অযোগ্য কাজ করছে।

কিন্তু আমার মতো একজন প্রাইভেট স্কুলের হতদরিদ্র শিক্ষকদের কি মৌলিক চাহিদা বলতে কিছু নেই?

হ্যাঁ বিশ্বব্যাপী করোনা পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে আমরা আমাদের জীবনযাত্রায় কৃচ্ছতা সাধন করতে পারি, বিলাসিতা ত্যাগ করতে পারি। এক পেটের জায়গায় আধা পেটে খেতে পারি।

কিন্তু পুরোপুরি উপোস করে তো আর বাঁচতে পারবো না। যারা ভাড়া বাসায় থাকি তাদের বাসা ভাড়া বাকি পড়ে আছে। গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, দারোয়ান, ময়লা, বুয়া, ড্রাইভার, কেয়ারটেকার সবার পেমেন্ট দিতে হবে। কারণ সবার মতো তাদেরও মতো পেট পিঠ আছে।

এইদিকে বেশিরভাগ বাড়ির মালিক বাসা ভাড়ার উপর নির্ভরশীল। বাড়িওয়ালাও পেট পিঠের দায়ে ভাড়াটিয়াকে সকাল সন্ধ্যা তাগদার উপরে রাখছে।

সুতরাং কসাই, ব্যবসায়ী, হৃদয়হীন মানুষদের প্রতি হৃদয়বানরা একটু সদয় হন। যদিও শিক্ষক কর্মচারিরা আপনাদের কাছে ভিক্ষাপ্রার্থী নন।
করোনাকালীন রোজায় একটু কম খেয়ে, অনলাইনে দুইটা ড্রেস কম কিনে বাচ্চার স্কুলের বেতন পরিশোধ করুন।
আপনি আপনার সামর্থ্য দিয়ে পারবেন দেখে সন্তানকে প্রাইভেট স্কুলে ভর্তি করেছেন।

এই মুহুর্তে হয়তো স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে বেতনের একটা অংশ মওকুফের ব্যবস্থা করা যায় কিনা চেষ্টা করতে পারেন।
অভিভাবকদের সহযোগিতায় শিক্ষক, কর্মচারিরা সবাই কোন মতে খেয়ে পরে বাঁচতে পারে। কারণ এই অর্থনৈতিক দুর্যোগের দিনে সবাই বিপদগ্রস্ত।

সবার জন্য শুভকামনা।

(পুনশ্চঃ আমি স্কলার্সহোমের শিক্ষক নই বা আবার তিন সন্তানের কেউই স্কলার্সহোমের শিক্ষার্থী নয়। স্কলার্সহোম কর্তৃপক্ষের বেতন চাওয়ার ফেসবুকে মুন্ডুপাত দেখে আমার এই লিখা, কারণ আমিও ইংরেজি মাধ্যমের প্রাইভেট স্কুলের শিক্ষক)


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin