শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১১:২৭ পূর্বাহ্ন


ডা. মঈন : একজন মানবিক ডাক্তারের স্মৃতিচারণা

ডা. মঈন : একজন মানবিক ডাক্তারের স্মৃতিচারণা


শেয়ার বোতাম এখানে

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শাহারুল কিবরিয়া: ২৬ মার্চ করোনা সংক্রমণের গতি টেনে ধরতে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর থেকে অবসর সময় পেয়ে গেলাম অনেকটা অনাকাঙ্ক্ষিতভাবেই। প্রথম কয়েকটা দিন কেটে গেল।রোজা রাখার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে নিলাম সহজেই।এরপরে শখের বাগানের যত্ন নিয়ে আর ঘরের কাজে টুকটাক হাত লাগিয়ে সময় কাটানোর চেষ্টা। টের পেলাম অবসর আর ছুটি কাটানো মাঝে মাঝে কতটা কষ্টকর হতে পারে। একপর্যায়ে সাংবাদিক ভগ্নিপতি ছামির মাহমুদের সাথে পরামর্শ করলাম ছাত্রজীবনের লেখালেখির অভ্যাসটা আবারও ঝালিয়ে নেয়া যায় কিনা? এখানেও সমস্যা। ভেবে পাইনা কি লিখব, কি নিয়েই বা লিখব?

অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে এবার লেখার বিষয় পেয়ে গেলাম। এটা লিখতে যে আনন্দ হচ্ছে সেটা কোনোভাবেই না। চরম হতাশা আর বেদনা নিয়ে আজ মনে হলো সদ্য পরলোকগত ডা. মঈনের কিছু স্মৃতি রোমন্থন করি।

২০১২ সালের শেষ দিকে হঠাতই শরীরযন্ত্রে কিছু যন্ত্রণা দেখা দিল। কোলেস্টেরল, ট্রাই গ্লিসারাইড অনেক বেড়ে গেল।সারাক্ষণ মাথার ব্যথা, এমনই যে মাথায় কাপড় বেঁধে রাখি যন্ত্রণা মুক্তির জন্যে। আমার মেঝ মামা অধ্যাপক ডা. একেএম রাজ্জাক সিলেট আসলে উনার সাথে ঢাকা গেলাম। গ্রীণ লাইফ হাসপাতাল আর ঢাকা সিএমএইচ-এ আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হল। মামা পরামর্শ দিলেন সিলেটের স্থানীয় কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকার যাতে নিয়মিত ফলোআপ করা যায়। ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক, মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মঈন উদ্দিনের কাছে একটা চিঠি লিখে দেখা করতে বললেন মামা।

সিলেটে ফিরে দেখা করলাম ডাক্তার সাহেবের সাথে। চেম্বারে সিরিয়াল নিয়ে বসে আছি। রোগী ভেতরে যায়, বের আর হয় না! বিরক্তি চরমে। ভাবছি চেম্বারে ডাক্তার সাহেব কি রোগীর সাথে খেজুরে আলাপজুড়ে দেন নাকি? এতক্ষণ লাগে রোগী দেখতে?

আমার সিরিয়াল অবশেষে এল। ভেতরে গিয়ে মামার চিঠি দেখালাম। তখন ডাক্তার সাহেব বললেন তিনি আমার ছোট মামা এডভোকেট একেএম বদরুদ্দোজার ভায়রা হন। মামীর মামাতো বোন ডা. রিফাতের হাজবেন্ড তিনি। আমার সাথে তাদের বেশি একটা দেখা সাক্ষাত হয়নি তাই আগে থেকে জানতাম না। উনি মেঝ মামাকে ফোন করে আমার হিস্ট্রি জেনে নিলেন। তারপর আমাকে যখন পরীক্ষা নিরীক্ষা করছেন তখন বুঝতে পারলাম রোগী ঢুকলে আর বের হয় না কেন? এত বিশদভাবে তিনি সব খুঁটিয়ে দেখলেন। আমার পরিবারের হিস্ট্রি নিলেন আর তারপর ওষুধ দিলেন।

অনেক ডাক্তার যেখানে নাম শুনেই ২-৪ টা ঔষধ লিখে দেন সেখানে ডা. মঈনকে দেখলাম অন্যরকম। একই সাথে বুঝলাম মামা কেন আমাকে তাঁর কাছে রেফার করেছিলেন। সেই থেকে শুরু। একে একে আমার আম্মা অধ্যাপক ফরিদা বেগম, বোন, আমাদের নানি (আম্মার খালা) সবাই আমরা ডা. মঈনের রোগী হয়ে গেলাম। তিনি বলে দিয়েছিলেন যাতে কখনও সিরিয়াল না নেই। ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বার দিয়ে বলেছিলেন যাতে তাকে ফোন করে সরাসরি চেম্বারে চলে যাই।

আমার নানি মারা যাওয়ার আগে পর্যন্ত (২০১৮) আর কোনো ডাক্তারের কাছে যেতেন না। একবার ডা. মঈনই নানীকে নিউরোলজির একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে রেফার করেন। তাকে দেখিয়েই নানি আবার ডা. মঈনের কাছে, ঔষধ ঠিক আছে কিনা দেখাতে। এতটাই নির্ভরতা ছিল। আর ডাক্তার সাহেব উনাকে এমনভাবে দেখতেন যে কখনো কখনো নানিকে কেবল কথা বলেই বিদায় করে দিলেও নানি বলতেন তিনি সুস্থ!আমরা এটা নিয়ে নানিকে অনেক জ্বালাতন করেছি। কিন্তু নানি কখনো অন্য ডাক্তারের কাছে যেতে রাজি ছিলেন না।

আমাদের পরিবারে যেহেতু নামকরা অনেক ডাক্তার আছেন তাই অনেকেই আমার কাছে চিকিৎসা পরামর্শ চান। সিলেটে মেডিসিনের কোনো ডাক্তারের ব্যাপারে জানতে চাইলে আমি নির্দ্বিধায় ডা. মঈনের কথা বলতাম। কখনো কেউ এসে বলেনি যে তারা অসন্তুষ্ট হয়েছেন। আমার শিক্ষক আব্দুল বাসিত চৌধুরী আর তাঁর স্ত্রীকে এভাবে পাঠিয়েছি। তারাও পরে নিয়মিত ফলোআপ করাতেন।আজ তাদের ছেলে আমার বাল্যবন্ধু এজাজ ভারাক্রান্ত মনে তাঁর স্মৃতিচারণা করছিল সুদূর কানাডা থেকে। এতেই বুঝা যায় তিনি কতটা ভালো ও মানবিক চিকিৎসক ছিলেন।

 

আত্মীয়তার সূত্রে ডা. মঈন উদ্দিন আমাদের অনেক কাছের একজন মানুষ ছিলেন। ২০১৭ সালে বন্ধুর বিয়েতে কুলাউড়া যাওয়ার পথে ফেঞ্চুগঞ্জে জুমআর নামাজ আদায় করার পর দেখি ডাক্তার সাহেব দাড়িয়ে আছেন। ডেকে নিয়ে সবার খুঁজ নিলেন। আম্মাকে নিয়ে কেন যাই না এটাও জানতে চাইলেন।কিছুটা লজ্জা নিয়েই জানালাম আম্মার শারিরীক জটিলতা অনেক বেশি হওয়ার কারণে খালামনি অধ্যাপক ফাতেমা তাকে ঢাকায় নিয়েই চেকআপ করান। বিস্তারিত শুনে বললেন সেটাই সঠিক পদক্ষেপ, তারপরও তাঁর কোনো সহায়তা প্রয়োজন হলে যাতে জানাই। সেই তাঁর সাথে শেষ দেখা আমার।

 

দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিলে তাঁর ফেসবুক ওয়ালে নিয়মিত করোনার ব্যাপারে জানাতেন, আমি ফলো করতাম। মার্চ মাসের ২৪ তারিখ একজন পরিচিত ব্যক্তি আমার অফিসে আসলেন। বকথায় কথায় জানালেন তাঁর এলাকায় করোনা রোগী ধরা পড়েছে।এলাকার চেয়ারম্যান মিটিং করে সবাইকে জানিয়েছেন। উনি নিজে সেই মিটিংয়ে ছিলেন।চেয়ারম্যান সাহেব নাকি বলেছেন সেই রোগী তাঁর সাথে (চেয়ারম্যান) ঘনিষ্ঠভাবে মিশেছেন। তিনি নিজেও এখন ভীত করোনা আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে!

আমার তখন ভেতর ভেতর অস্থিরতা। চেয়ারম্যান সাহেব যদি করোনা রোগীর সাথে মিশেন আর পরে মিটিং করে সবাইকে বলেন, তবে সেই মিটিংয়ে যারা ছিলেন তারাও তো একেকজন করোনা বোমা হয়ে গেছেন! যাই হোক ভদ্রলোক চলে যাওয়ার পরে ব্লিচিং পাউডারের পানি দিয়ে ভালো করে অফিসের সব জায়গা পরিষ্কার করালাম।তারপর আগ্রহের বশে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলাম (আমরা তো এমনটাই করি)। ডা. মঈন আমার স্ট্যাটাস দেখে বিস্তারিত জানতে চাইলেন। তিনি নিজে থেকেই আমাকে আশ্বস্ত করে বললেন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে তিনি ঘটনার সত্যতা যাচাই করে দেখবেন এবং আমাকে জানাবেন। আমাকে এটাও অভয় দিলেন যে ফেসবুকে লেখার কারণে আমি যাতে বিড়ম্বনার শিকার না হই সেটাও তিনি দেখবেন।

মার্চের ২৮ তারিখ আমি উনাকে আরেকটা মেসেজ পাঠালাম।আমার খালামনি অধ্যাপক ডা. ফাতেমা জানতে চাইছেন সিলেটের হাসপাতালগুলোতে কি ধরনের সুরক্ষা সামগ্রী আছে। আমাদের ওয়াদুদ ময়মুন্নেছা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে কিছু সুরক্ষা সামগ্রী দিতে উদ্যোগ নেয়া হবে। ডা. মঈন সাহেবের কাছে আমি জানতে চাইলাম ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জন্য আমরা কি ধরনের সহায়তা করতে পারি। ডা. মঈন সেই মেসেজ পড়েননি। ততক্ষণে তিনি করোনা সন্দেহে নিজে থেকেই হোম কোয়ারান্টাইনে চলে গেছেন। ৫ এপ্রিল তাঁর করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসল।

সিলেটে প্রথম কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগীর খবর জানলাম অনলাইন গণমাধ্যমের কল্যাণে।জানতাম না রোগী আমাদের আপনজন ডা. মঈন উদ্দিন। খানিক পরেই দেখলাম কিছু বিবেকহীন অতি উৎসাহী মানুষ ডাক্তার সাহেবের নাম, বাসার ঠিকানা, ফোন নাম্বার এমনকি ছবিসহ বিস্তারিত দিতে থাকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও টুইটারে। আমি কাওসার আহমেদ টিপু মামাকে ফোন করে ঘটনার সত্যতা যাচাই করে নিলাম। বুঝলাম কেন ডাক্তার সাহেব আমার সেই মেসেজটি পড়েননি। এরপর থেকে নিয়মিত খুঁজ নিচ্ছিলাম তাঁর শারিরীক অবস্থার। তাকে ঢাকায় নেওয়ার পর থেকে খালামনি অধ্যাপক ডা.  ফাতেমা নিয়মিত তাঁর শারিরীক অবস্থা আমাদের জানাচ্ছিলেন। আশাবাদী ছিলাম আমরা সবাই।সিলেটে কি চিকিৎসা হয়েছিল আমি জানিনা। কিন্তু ঢাকায় ডাক্তাররা তাকে সুস্থ করে তোলার সব চেষ্টাই করছিলেন। আর আমরা ধরেই নিয়েছিলাম যে কিছু জটিলতা দেখা দিলেও বয়স আর শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় ডাক্তার সাহেব ঠিকই সামলে উঠবেন। আমরা ভাবি এক, আল্লাহ তাঁর প্রিয় বান্দাদের জন্য অন্য সিদ্ধান্ত নিয়ে রাখেন।

ডা. মঈন করোনার ভয়াবহতা নিয়ে খুবই সচেতন ছিলেন। তাঁর পরিবারের কাছ থেকে আমরা জানতে পারি পরিবারের সদস্যদের সুরক্ষিত রাখতে চেষ্টার কোনো অন্ত করেননি তিনি। প্রতিটি নিরাপত্তা কৌশল তিনি অবলম্বন করেছেন। বারবার হাত ধুয়া, বাইরে থেকে এসে নিজেকে জীবানুমুক্ত করা, সব কিছুই তিনি করেছেন, অন্যকে তা করতে উৎসাহ দিয়েছেন। তারপরও তিনিই সিলেটের প্রথম কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগী হয়ে গেলেন কিভাবে? সম্ভবত আমার আপনার মত কোনো রোগী নিজের রোগ আর ভ্রমণের ইতিহাস অথবা কোনো বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসার ইতিহাস গোপন করে ডাক্তার সাহেবের কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন। আমরা বলছি ডাক্তার মঈন কোভিড-১৯ আক্রান্ত সিলেটের প্রথম রোগী। আমি নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি তিনি তা নন। তাঁর রোগ নির্ণয় করা হয়েছে, কিন্তু যে বা যারা তাঁকে আক্রান্ত করেছেন তাদের এখনও চিহ্নিত করা যায়নি।

ডাক্তার মঈন তাঁর জীবন দিয়ে আমাদের বুঝিয়ে গেলেন আমরা যতই সতর্ক থাকি না কেন, করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কতটা বেশি। একই সাথে এটাও বুঝিয়ে দিলেন যারা বলছেন “আমাদের কিছু হবে না” তারা কোন বোকার স্বর্গে বাস করছেন।

এখনও আমরা আগ্রহের বশে বাজারে, ব্যাংকে আর অলি-গলিতে ঘুরে বেড়াচ্ছি, আমাদের তো কিছু হবে না। মসজিদে নামাজ সীমিত হওয়ার আগে সবাই নামাজি হয়ে গিয়েছিলাম কেবল ঘুরে বেড়ানোর অজুহাত তৈরির খাতিরে। আমরা কেউ কেউ আবার আল্লাহর গজব কেন এসেছে তা নিয়ে ভাবতে ভাবতে নিজেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছি যে আমরা এই গজবের আগুনে পুড়ব না, আমাদের ঈমানি শক্তি অনেক বেশি তাই।

আমার দেখা একজন ঈমানদার ও মানব দরদি মানুষ ছিলেন ডা. মঈন। ভালো ডাক্তার আর সর্বোপরি ভালো একজন মানুষ। তিনি নিজের জীবন দিয়ে যে সতর্কতা আমাদের জানিয়ে গেছেন, আসুন সময় থাকতে আমরা সেটা মানতে চেষ্টা করি। ঘরে থাকি, নিজেকে সুস্থ রাখি, অন্যকে সুস্থ থাকার সুযোগ দেই।

লেখক: শাহারুল কিবরিয়া, বিশিষ্ট ব্যাংকার ও লেখক।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin