শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০১:৫৮ পূর্বাহ্ন


তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফিরলেন ২ বাংলাদেশি

তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফিরলেন ২ বাংলাদেশি


শেয়ার বোতাম এখানে

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি:

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাবের কারণে চলমান লকডাউনে ভারতের গৌহাটিতে আটকে পড়া দুইজন বাংলাদেশি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার তামাবিল স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন দিয়ে দেশে ফিরেছেন। দেশে ফেরা ওই দুই বাংলাদেশি হলেন মো. আফসর আলী ও মো. কাজল মিয়া।

তারা আজ (৩ জুন) বুধবার দুপুরে তামাবিল ইমিগ্রেশন হয়ে দেশে ফিরেন। তারা দুজনই ভ্রমণ ভিসায় ভারতে গিয়ে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে আটকে পড়েছিলেন।

তামাবিল ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ইমিগ্রেশন সুবিধা বন্ধ থাকায় ভ্রমণ ভিসায় ভারতে গিয়ে ওই দুই বাংলাদেশি ভারতের গৌহাটিতে আটকে পড়েন। দুই দেশের সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের যোগাযোগের মাধ্যমে আবেদন করা ওই দুই নাগরিককে দেশে ফেরত পাঠিয়েছে। এর আগে ওই দুই নাগরিক বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে দেশে ফিরে আসার জন্য আবেদন করেছিলেন।

এ সময় বিজিবি, ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস এর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তামাবিল স্থলবন্দরে নিয়োজিত মেডিকেল টিমের দায়িত্বে থাকা গোয়াইনঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. রাশেদুল ইসলাম বলেন, ভারত থেকে দেশে ফেরা দুই বাংলাদেশি নাগরিক তামাবিল ইমিগ্রেশন হয়ে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের পর প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় করে তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোনো উপসর্গ পাওয়া যায়নি। তারা দুজনেই শারীরিকভাবে সুস্থ রয়েছেন। তারপরও তাদেরকে নিজ নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে অবস্থান করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে তামাবিল স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশের ইনচার্জ (এসআই) সৈয়দ মওদুদ আহমেদ রুমি বলেন, স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম প্রায় দুই মাস ধরে বন্ধ ধরে রয়েছে। যে কারণে বিভিন্ন সময়ে বিজনেস, ভ্রমণ ও স্টুডেন্ট ভিসায় ভারতে গিয়ে বাংলাদেশের কিছু নাগরিক আটকে পড়েছিলেন। তারা দূতাবাসের মাধ্যমে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে যোগাযোগ করে পর্যায়ক্রমে দেশে ফিরছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় আজকেও দুই বাংলাদেশি তামাবিল ইমিগ্রেশন দিয়ে দেশে ফিরছেন। দেশে ফেরত আসা বাংলাদেশিদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে বাড়ি যাওয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin