মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৪১ অপরাহ্ন


তারের জঞ্জালমুক্ত হচ্ছে না সিলেট, ‘সিসিকের ঘাড়ে ৫ কোটি টাকা’

তারের জঞ্জালমুক্ত হচ্ছে না সিলেট, ‘সিসিকের ঘাড়ে ৫ কোটি টাকা’


শেয়ার বোতাম এখানে

আহমেদ জামিল :

সিলেট নগরে বিদ্যুৎ বিভাগের চলমান ‘পাতাল বিদ্যুৎ’ প্রকল্পকে নিজের ‘ক্রেডিট’ নিতে চেয়েছিলেন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড-পিডিবির অর্থায়নের প্রকল্পকে কাজে লাগিয়ে নগরের তারের জঞ্জাল ভূগর্ভস্থ করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু পিডিবি, ডিশ-ইন্টারনেট প্রোভাইডার ও সিসিকের ত্রি-পক্ষীয় সমন্বয়হীনতার কারণে সে ক্রেডিট যায়নি মেয়র আরিফের হাতে। ফলে তারের জঞ্জাল থেকেই যাচ্ছে সিলেট নগরে। শুধুমাত্র নগরের ৭ কি.মি সড়কের বিদ্যুতের লাইন যাচ্ছে আন্ডারগ্রাউন্ডে। বাকি তারের জঞ্জাল সেই আগের মত থেকেই যাচ্ছে। বর্তমানে এই প্রকল্পের কাজ প্রায় অর্ধেক শেষ হয়েছে। আগামী জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে শুরু হয়েছিল কাজ।
এতদিন পাতাল বিদ্যুৎ লাইন টানা নিয়ে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী খই ফুটালেও, এখন জানা গেল এই প্রকল্পে সিটি কর্পোরেশনের কোনো সংশ্লিষ্টতাই নেই। ৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে পাতাল বিদ্যুৎ লাইন টানার প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ পেয়েছে দ্যা ইস্টওয়ে ইলেকট্রিক কোম্পানি।
এদিকে বিদ্যুৎ বিভাগের এই প্রকল্প বাস্তবায়নে উল্টো সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ঘাড়ে পড়েছে ৫ কোটি টাকা। পিডিবি ওই কাজ করতে নগরীর বিভিন্ন সড়কের দু’পাশ বেশ খোড়াখুড়ি করছে। সেই সড়ক সংস্কার করতে সিসিকের প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে। এর পুরো টাকাই সিসিকের পক্ষ থেকে নির্বাহ করা হবে। পিডিবি এতে সহযোগিতা করছে না।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, সিলেটের বিদ্যুৎ বিতরণ ও সঞ্চালন লাইনগুলো পুরনো হয়ে যাওয়া এবং ঝড়বৃষ্টিপ্রবণ এলাকা হওয়ায় এই এলাকায় প্রায়ই বিদ্যুতের লাইন ছিড়ে যায়। এতে অনেক এলাকা বিদ্যুহীন হয়ে মানুষ দুর্ভোগে পড়ে। ঘটে দুর্ঘটনাও। এই সমস্যা সমাধানে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের উদ্যোগে ২০১৬ সালে সিলেটের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নে ১৮শ’ কোটি টাকার একটি প্রকল্প একনেকে পাশ হয়। ২০১৭ সাল থেকে শুরু হয় এই প্রকল্পের কাজ।
প্রাথমিকভাবে ৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সিলেট নগরের ৭ কিলোমিটার বিদ্যুৎলাইন মাটির নিচ দিয়ে টানতে সিসিকের অনুমতি চায় পিডিবি। বিদ্যুৎ বিভাগের এই প্রকল্পকে নিয়ে নিজের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেন সিসিক মেয়র আরিফ। বিদ্যুতের লাইনের সাথে সকল ডিশ ও ইন্টারনেটের লাইনও ভূগর্ভস্থ করে পুরো ক্রেডিট নিতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সঠিক সমন্বয়হীনতার কারণে সেই সুযোগ অনেকটা হাতছাড়া হয়ে গেছে মেয়র আরিফের।
জানা গেছে, সকল ডিশ ও ইন্টারনেটের লাইন মাটির নিচ দিয়ে টানতে সামিট গ্রুপকে কাজ দিয়েছিলো সরকার। সামিট গ্রুপের শর্তানুযায়ী আন্ডারগ্রাউন্ড থেকে বের করে মাত্র কয়েকটি পয়েন্ট দিবে। সেখান থেকে ইন্টারনেট গ্রাহকদের সংযোগ দিতে হবে। তাছাড়া সামিট গ্রুপ যে খরচ দাবি করেছে সে অনুযায়ী গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেট ব্যবহারের খরচ প্রায় ৪ থেকে ৫ গুণ বেড়ে যাবে। সামিট গ্রুপের এমন কঠিন শর্তে রাজি হননি ডিশ ও ইন্টারনেট ব্যবসায়ীরা। ফলে মাথার উপর থেকে ক্যাবল সরিয়ে বিকল্প ব্যবস্থা করতে ইন্টারনেট ও ডিশ ব্যবসায়ীদের নোটিশ দিয়েছিলেন মেয়র। তাতেও সাড়া দেননি ব্যবসায়ীরা। ফলে বিদ্যুতের তার ভূগর্ভে গেলেও অন্যান্য তারের জঞ্জাল থেকেই যাচ্ছে।
পিডিবি সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউল হাসান বলেন, আমাদের কাজ প্রায় ৫০ শতাংশ শেষ হয়ে গেছে। অন্য কেবলও মাটির নিচে টানতে সিসিকের সাথে শুরুতে আলাপ হলেও পরে ফলপ্রসূ হয়নি। তাই আমাদের কাজ আমাদের মতই চলছে। প্রাথমিকভাবে নগরীর ইলেক্ট্রিকসাপ্লাই রোড থেকে আম্বরখানা পয়েন্ট, চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার-কোর্টপয়েন্ট-সিটি পয়েন্ট হয়ে সুরমা পয়েন্ট পর্যন্ত ৭ কি.মি কাজ হচ্ছে। এতে ৫৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে।
পাতাল বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বাস্তবায়ন হলে নতুন সংযোগ কিভাবে দেওয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ২৫২ ডিস্ট্রিবিউশন বক্স রাখা হবে। সেখান থেকে নতুন সংযোগ দেওয়া হবে। বড় ধরণের পরিবর্তন ছাড়া আর খোড়াখুড়ির প্রয়োজন হবে না বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হকের মোবাইলে কল দিলে তিনি ব্যস্ত থাকায় কর্পোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা শাহাব উদ্দিন শিহাব বলেন, বিদ্যুতের লাইন আন্ডারগ্রাউন্ডে নেওয়ার কাজ চলছে। নগরীর ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই থেকে শুরু হয়ে জিন্দাবাজার পর্যন্ত কাজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে। বাকিটা মাসখানেকের মধ্যেই হয়ে যাবে বলে জানান তিনি।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান শুভ প্রতিদিনকে জানান, পিডিবির এই প্রকল্পের সাথে সকল ক্যাবল লাইন ভূগর্ভে নেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল সিসিকের পক্ষ থেকে। কিন্তু সামিট গ্রুপের শর্তের সাথে ডিশ ও ইন্টারনেট ব্যবসায়ীদের ‘বনিবনা’ না হওয়ায় পিডিবি নিজেরাই তাদের কাজ শুরু করেছে। এর ফলে আপাতত শুধুমাত্র বিদ্যুতের তার ভূগর্ভে যাচ্ছে।
তিনি বলেন, পিডিবির এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য রাস্তার দু’পাশ বেশ খোড়াখুড়ি করছে। পরে এই সড়ক সংস্কারের জন্য আমাদের ৫ কোটি টাকা নির্বাহ করতে হবে। এই টাকা সিসিকের কাছ থেকেই যাবে। পিডিবি ব্যয় নির্বাহে শরিক হচ্ছে না।
মেগা প্রকল্পটি বাস্তবায়নে কাছ থেকে ফিরে আসা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আসলে এখানে সমন্বয়হীনতার অভাব রয়েছে। এর ফলে এটি বাস্তবায়ন হতে নাও পারে। তিনি বলেন, আমাদের সিটি কর্পোরেশনের হাতে ক্ষমতা থাকলে আমরা অনেক কাজ নিজেদের মত করে করতে পারতাম। কিন্তু প্রত্যেকটা বিভাগ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় আলাদাভাবে কাজ করছে। তাই ভালো করে কোনো কাজ এগুচ্ছে না।

শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin