মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৪০ অপরাহ্ন


তীব্র তাপদাহে অস্থির জনজীবন

তীব্র তাপদাহে অস্থির জনজীবন


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক: সারাদেশে তাপপ্রবাহ চলছে। বৃহস্পতিবার দেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ফরিদপুরে ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। সিলেটে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, আগামী কয়েকদিন মৃদু তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।
গরম আবহাওয়ার কারণে সিলেটসহ সারাদেশের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। ঘরের বাইরে বের হলেই প্রখর রোদের তাপে শরীর পুড়ে যাচ্ছে; ঘেমে অস্থির হচ্ছে ছোটবড় সকলে। গরমের কবল থেকে রক্ষা পেতে অনেকেই ছাতা মাথায় রাস্তায় চলাফেরা করছেন। গরমে তৃষ্ণা মেটাতে বিভিন্ন জুস ও শরবতের দোকানে চাহিদা বেড়েছে। মৃদু তাপপ্রবাহের কারণে রাস্তাঘাটে বিক্রি হওয়া পানি খেয়ে অনেকেই ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন ধরনের পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন।
বৃহস্পতিবার ১২ বৈশাখ। বৈশাখের ১২টি দিন পেরিয়ে গেলেও বৃষ্টির দেখা নেই। বৈশাখ মাস আসার পর বৃষ্টির দেখা নেই বললেই চলে। এই সুযোগে সূর্য প্রচ- উত্তাপ ছড়াচ্ছে। বৈশাখের গরম শুধু সিলেটেই নয়, দেশজুড়েই পড়েছে।
আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, সিলেটসহ সারা দেশের ওপর দিয়ে মৃদু দাবদাহ বয়ে যাচ্ছে। এই দাবদাহ আরও কয়েক দিন অব্যাহত থাকতে পারে। তবে আগামী তিন দিনের মধ্যে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।
আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘শুক্রবার তাপমাত্রা আরও কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে। এ অবস্থায় সাগরে নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়ে থাকে। এ মাসের শেষ দিকে মধ্য বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। নিম্নচাপটি শক্তিশালী হয়ে ২৮, ২৯ ও ৩০ এপ্রিলের পর ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। এরপর সেটি আগামী ৩ মে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। তবে তার গতিপথ কী হতে পারে, সে সম্পর্কিত তথ্য নিম্নচাপ সৃষ্টি হলে পরে হয়তো জানা যাবে।’
বানিয়াচংয়ে তীব্র তাপদাহে অস্থির জনজীবন : বৈশাখের তাপদাহে পুড়ছে সারা দেশ। বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা বেশি থাকায় গরম আরও বেশি অসহনীয় হয়ে উঠছে। হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায়ও এই তাপদাহের প্রভাব। বৈশ্বিক উষ্ণায়নে ক্রমেই প্রভাব ফেলেছে এই এলাকার প্রাত্যহিক জনজীবনে। অব্যাহত তীব্র তাপদাহের কারণে জনজীবনে নেমে এসেছে চরম বিপর্যয়। তাপদাহের বৃদ্ধির সাথে সাথে দেখা দিচ্ছে বিভিন্ন রকমের রোগবালাই। বিশেষ করে গত দুদিনের প্রচন্ড গরমে জীবন অস্তির হয়ে পড়েছে।
দিন বাড়ার সাথে সুর্যের প্রখরতার প্রচন্ড তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষ প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে একেবারেই বাইরে বের হচ্ছেন না। তবে খেটে খাওয়া মানুষ জীবিকার তাগিদে দৈনন্দিন কর্মকান্ড করতে বাধ্য হচ্ছেন।
সরেজমিনে বানিয়াচংয়ের কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, খেটে খাওয়া লোকজন সামান্য একটু শান্তির আশায় বিভিন্ন ছায়াদানকারী গাছের তলায় বিশ্রাম নিচ্ছেন। তরুণ ছেলেদের বিভিন্ন কোমল পানীয়র দোকানে দাঁড়িয়ে বা বসে সফট ড্রিংক্স, ঠান্ডা পানি ইত্যাদি পান করতে দেখা গেছে। সেই সাথে প্রচন্ড গরমে লেবুর শরবত ও ডাবের পানি বিক্রিও বেড়ে গেছে। ছোট ছোট বাচ্চাদের দল বেঁধে পুকুরে নেমে গোসল করতে দেখা যায়। অন্যদিকে এই গরমে বাজারে কদর বেড়েছে আইসক্রিম ফেরিওয়ালাদের।
বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. রিফায়েত হাসান অপু জানান, এই গরমে বেশিক্ষণ খোলা স্থানে থাকলে হিট স্ট্রোকের আশংকা বেশি থাকে। চলমান তাপদাহ থেকে যতদূর পারা যায় নিজেদের ছায়ায় রাখার চেষ্টা করুন। অবশ্যই সুপেয় পানি পান করতে হবে। শরীরের ঘাম শুকানোর আগেই গোসল করে শরীর পরিস্কার করে নেয়া ভাল। বিশেষ করে রোদ থেকে ফিরে ফ্রিজের রক্ষিত ঠান্ডা পানির সাথে নরমাল পানি মিশিয়ে খাওয়া উচিত। খুব সমস্যা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করুন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin