বুধবার, ২৮ Jul ২০২১, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন


ত্রিমুখি লড়াইয়ে হাবিব নৌকায়, আতিক লাঙ্গলে আর বিএনপির শফি লড়বেন স্বতন্ত্রে

ত্রিমুখি লড়াইয়ে হাবিব নৌকায়, আতিক লাঙ্গলে আর বিএনপির শফি লড়বেন স্বতন্ত্রে


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল:: সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জের একাংশ নিয়ে গঠিত শিল্প এলাকাখ্যাত সিলেট-৩ আসনটিতে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ জুলাই।

আর এই আসনটি ভোটযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হয়ে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন প্রার্থীরা। ইতিমধ্যেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি তাদের দলীয় প্রার্থী নির্ধারণ করেছে।

বিএনপি দলীয়ভাবে নির্বাচনে না আসলেও সতন্ত্র হয়ে বিএনপির শীর্ষ এক নেতা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এর ফলে নির্বাচনে ত্রিমুখী লড়াই হবে বলে এলাকার ভোটারদের মাঝে কানাঘুষা শুরু হয়েছে।

এ আসনে মোট ১১ বার নির্বাচন হওয়া এই আসনে আওয়ামী লীগ চারবার, বিএনপি তিনবার এবং জাতীয় পার্টি তিনবার জয় পেয়েছে। তাই এবারও ক্ষমতাসীন দলকে এগিয়ে রাখছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

জানা গেছে, আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত শনিবার এই আসনে হাবিবুর রহমান হাবিবকে নিজেদের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। এরআগে সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি নিজেদের প্রেসিডিয়াম সদস্য আতিকুর রহমান আতিককে প্রার্থী মনোনীত করে।

বিএনপি দলগতভাবে নির্বাচনে অংশ না নিলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এবং এই আসনের সাবেক সাংসদ শফি আহমদ চৌধুরী। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে আগামীকাল মঙ্গলবার তিনি মনোনয়নপত্র জমা দিবেন বলে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব রাজু আহমেদ।

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনকে সামনে রেখে অনেকটা চার দেয়ালে বন্দি থাকা রাজনীতি ক্রমে মাঠে গড়াচ্ছে। মনোনয়নের যুদ্ধ দ্রুত বদলাচ্ছে রাজনীতির হাওয়া। সরব হচ্ছে ভোট রাজনীতি। নির্বাচনকে সামনে রেখে গত কয়েক মাস মাঠের রাজনীতিতে চলা ভাটা কাটছে অবশেষে।

ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২৫ জন নেতা নৌকার প্রতীকের প্রত্যাশী ছিলেন। সব যাচাই বাছাই শেষে নৌকা টিকেট পেয়েছেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বাসিন্দা ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিব।

মনোনয়ন পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, যারা মনোনয়ন চেয়েছিলেন তারা সকলেই যোগ্য। তারা সবাই আমার নেতা। উনারা প্রায় সবাই আমার সিনিয়র। তাদের সকলকে নিয়েই আমি কাজ করবো। নিজের অনুসারীদের উদ্যেশে হাবিব বলেন, আমার মনোনয়ন পাওয়ার খবরে কেউ মিস্টি বিতরণ করবেন না। উল্লাস করবেন না। পারলে মসজিদে দোয়া করুন।

নৌকার মনোনয়ন নিয়ে ইতিমধ্যে সিলেট এসে সিলেট-৩ আসনের অন্তর্ভূক্ত এলাকা গুলোকে উন্নয়নের মডেলে পরিণত করার অঙ্গিকার নিয়ে ভোটের মাঠে নেমেছেন হাবিব। তাঁর এ মনোনয়ন পাওয়া পর বাকি মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নৌকার পক্ষে কাজ করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

এদিকে, সাবেক সাংসদ শফি চৌধুরীর প্রার্থী হওয়ার ঘোষণায় এই আসনে জমজমাট লড়াইয়ের আশা করছেন ভোটাররা। শিল্পপতি শফি আহমদ চৌধুরী চিকিৎসার জন্য বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন। তার ব্যক্তিগত সহকারি রাজু আহমদ রোববার দুপুরে বলেন, শফি আহমদ চৌধুরী মঙ্গলবার মনোনয়ন পত্র জমা দেবেন। তার পক্ষ থেকে মনোনয়নপত্র উত্তোলন করে তা পূরণ করে জমার দেয়ার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

শফি আহমদ চৌধুরীর প্রার্থী হওয়ার ঘোষণার ব্যাপারে জানতে চাইলে সিলেট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার বলেন, এই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিচ্ছে না এটা আমাদের দলীয় সিদ্ধান্ত। কেউ এই সিদ্ধান্ত অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া দলীয় নেতাকর্মীদেরও বলে দেওয়া হবে তার সাথে না থাকার জন্য।

শফি আহমদ চৌধুরী ২০০১ সালে বিএনপির দলীয় প্রার্থী হিসেবে সিলেট-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০৮ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েসের কাছে ধরাশায়ী হন।

অপরদিকে, সিলেট-৩ আসনে আগামীর এমপি হওয়ার লড়াইয়ে রোববার থেকে মাঠে নেমেছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক।

রোববার দুপুরে বিমানের একটি ফ্লাইটে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। এসময় বিমানবন্দরে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভ্যর্থনা জানান স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। পরে বিশাল গাড়িবহর ও মোটরসাইকের শোভাযাত্রা নিয়ে শাহজালাল রাহ. মাজার ও শাহপরাণ রাহ.-এর মাজার জিয়ারতে যান আতিক। মাজার জিয়ারত শেষে তিনি আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় নেমে পড়ার ঘোষণা দেন।

এ বিষয়ে আতিকুর রহমান আতিকের ব্যক্তিগত সহকারী আবুল খায়ের বলেন, রোববার দুপুরে স্যার (আতিক) সিলেটে এসেছেন। শাহজালাল-শাহপরাণ রাহ.-এর মাজার জিয়ারত শেষে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণরা শুরু করেন তিনি।

উল্লেখ্য, করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েস মারা যান। এরপর গত ১১ মার্চ তারিখে জাতীয় সংসদের ২৩১ সিলেট-৩ আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১২৩ এর দফা (৪) অনুযায়ী উক্ত শূন্য আসনে ৮ জুনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল। কিন্তু করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ জনিত দুর্বিপাকের কারণে এ দফায় মেয়াদান্তে ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন সম্ভব হয়নি। এ অবস্থায় শূন্য আসনটিতে ৮ জুন পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তফসিল ঘোষণা করে ইসি।

তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ১৫ জুন। মনোনয়নপত্র বাছাই ১৭ জুন এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৩ জুন। ২৪ জুন হবে প্রতীক বরাদ্দ এবং আগামী ১৪ জুলাই ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও নির্বাচন কমিশন ভোটের তারিখ পরিবর্তন করে ২৮ জুলাই নির্ধারণ করেছে।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী সিলেট-৩ আসনে মোট ২ লাখ ৫৫ হাজার ৩০৯ ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ২৮ হাজার ৬১৮ এবং নারী ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ২৬ হাজার ৬৯১ জন।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin