শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন

দালালের হাত ধরে ইউরোপ গিয়ে বিপাকে সিলেটের এক তরুণী

দালালের হাত ধরে ইউরোপ গিয়ে বিপাকে সিলেটের এক তরুণী


শেয়ার বোতাম এখানে

মো. শাফী চৌধুরী : ভাগ্যোর চাকা ঘোরাতে ইউরোপ যেতে দালালের খপ্পড়ে পড়েন মিনা আক্তার (ছদ¥নাম)। তার বয়স ২৫। তিনি ইউরোপের দেশ মাল্টায় যাওয়ার জন্য দালাল মো. মনজুর আহমেদের ফাঁদে পা ফেলেন।

দালাল মঞ্জুরের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানার মিন নগর গ্রামে। সে মুমিন উদ্দিনের ছেলে। বিদেশ যাওয়ার আশায় মিনা তার খালা নার্গিস আক্তারকে সাথে নিয়ে দালাল মনজুরের সাথে দেখা করেন। আলোচনা শেষে দালালরা মিনা ও তার খালাকে নিয়ে ভিসা আনতে ভারতে যান। সেখানে যাওয়ার পর থেকেই দালালরা নির্যাতন শুরু করে মিনা আক্তারের উপর।

পরে আত্মীয় স্বজনের সহযোগীতায় ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে তিনি দেশে ফেরত আসেন। অবশেষে ডিসেম্বরে তিনি পাড়ি জমান মাল্টায়। মাল্টায় পৌছে তিনি আরো বেকায়দায় পড়েন। যে কোম্পানী তাকে চাকরীর অফার লেটার পাঠায় সেখানে পৌঁছে তাদের সাথে যোগাযোগ করেন। তারা মিনা আক্তার নামের কাউকে চাকরির অফার লেটার দেয়নি বলে জানায়।

এতে মিনা আক্তার বিপাকে পড়েন। এদিকে ভিসার মেয়াদ শেষের পথে অন্যদিকে চাকরীদাতা প্রতিষ্ঠানের অস্বীকার। এতে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন মিনা। শেষে কোন উপায়ন্তুর না পেয়ে তিনি পাড়ি দেন ফ্রান্সে। এখন সেখানেই চলছে মিনা আক্তারের বেঁচে থাকার লড়াই।

এ ঘটনায় মিনা আক্তারের খালা নার্গিস সুলতানা কয়তুন বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে সিলেটের মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট ১ম আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর সি.আর Ñ২১/২০২০ইং। মামলার বাদী নার্গিস আক্তার জানান, দালাল মনজুর আহমেদ মিনা আক্তারকে ১ বছরের ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় মাল্টায় পাঠানোর কথা বলে। এজন্য দালালের সাথে ৬ লাখ টাকা চুক্তি হয়। চুক্তির দেড় মাস পর তারিখ বিহীন ১২ লাখ টাকার একটি চেক দেয়ার দাবি করে দালাল। তাকে চেকও প্রদান করা হয়।

চুক্তির দেড় মাস পর মাল্টার ভিসার পান মিনা। কিন্তু ভিসা সম্বলিত পাসপোর্ট ভারতীয় দালালরা তাদের হাতে নিয়ে যায়। তখন দালাল চক্র জানান, দেশে থাকা তাদের এজেন্ট মনজুরকে ৬ লাখ টাকা দিলে তারা মিনা আক্তারের পাসপোর্ট ফেরত দিবে।

মিনা এতে অস্বীকৃতি জানালে ভারতে থাকা দালাল চক্রের সদস্য বিলাল ও সাজিদ তাকে হোটেল রুমে আটক রেখে শারীরিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে মিনা তার খালাকে বিষয়টি জানান। তখন মিনার খালা নার্গিস আক্তার মনজুরের সাথে যোগাযোগ করেন। তখন মনজুর তাকে জানায়, টাকা না দিলে তার পক্ষে কিছু করার নেই। নার্গিস আক্তার ৪ লাখ টাকা মনজুরের হাতে তুলে দেন। এসময় মনজুর তাদের কাছ থেকে আরো ১২ লাখ টাকার একটি চেক নিয়ে একটি স্ট্যাম্পে নার্গিস আক্তারের সাক্ষর রাখে।

এ ঘটনায় মিনা আক্তার ভারতীয় পুলিশের স্মরাণাপন্ন হয়েও দালালদের শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন থেকে মুক্তি পাননি। এরপর মিনা মাল্টায় পাড়ি জমালেও চুক্তি অনুযায়ী চাকরি হয়নি তার। দালালরা দেশেও মিনার খালাকে হুমকি মুখে রেখেছে।

এ ব্যাপারে মিনা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনে জানান, আমার উপর নির্যাতনের ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ি। মাল্টায় এসে যেখানে কাজ পাওয়ার কথা সেখানেও কাজ পাইনি। পরে আমি ফ্রান্সে চলে আসি। এখনো আমার ভবিষৎ অনিশ্চিত। জানিনা এখানে আমি কতদিন থাকতে পারব। আমি মনজুর ও তার সহযোগীদের বিচার চাই।’

এ ব্যাপারে মামলার বাদী নার্গিস আক্তার জানান, দালাল মনজুর ও তার সহযোগীরা মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে আমার ভাইঝির উপর অমানবিক নির্যাতন চালায়। তাকে ভারতে নিয়ে হোটেল কক্ষে আটক রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায়। সেই নির্যাতনের চিহ্ন এখনো আমার ভাইঝির শরীরে দৃশ্যমান আছে। চেক দিয়ে আমাদেরকে ব্ল্যাকমেইল করছে। এমনকি আমাদেরকে প্রাণ নাশেরও হুমকি দিচ্ছে। তাদের হুমকির কারণে আমাদের জীবন নিরাপত্তাহীন।

এ ব্যাপারে মনজুর আহমদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মিনা আক্তার ও তার খালা নার্গিস আক্তার আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। তারা তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য আমার বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমা করে সামাজিকভাবে হেয় করছে। তিনি বলেন, আমার সাথে মেয়েটির কথা হয়েছিল ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে আমি থাকে মাল্টায় পাঠাব। তাই আমি তার ফাইল প্রসেসিং করি। কিন্তু ভিসা পাওয়ার পর থেকে তারা আমার সাথে টালবাহনা শুরু করে। আমি জোরপূর্বকভাবে কোন চেক নেই নি। দু‘পক্ষের মধ্যস্থতায় একটি চুক্তি সাক্ষর হয়।’ এ বিষয়ে মনজুর আহমদের ট্যাভেলসের নাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি ঢাকার একটি ট্যাভেলসের এজেন্ট হিসেবে কাজ করি। আমার নিজস্ব কোন ট্র্যাভেলস নেই।’



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin