সোমবার, ২৬ Jul ২০২১, ০৮:০৭ অপরাহ্ন


দীর্ঘ ২৮ বছর সিলেটিদের হাতছাড়া ‘অর্থমন্ত্রণালয়’

দীর্ঘ ২৮ বছর সিলেটিদের হাতছাড়া ‘অর্থমন্ত্রণালয়’


শেয়ার বোতাম এখানে

সুলতান সুমন: সিলেটী অর্থমন্ত্রী। এটা ছিল দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের একটি প্রবাদ। ১৯৮০ সালে প্রথম অর্থমন্ত্রী পায় সিলেট। এরপর থেকে বিভিন্ন দল সরকার ঘঠন করে। ক্ষমতার পালাবদল হয়। দলবদলের পালাবদলে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। পেরিয়ে যায় ২৮ বছর। এই ২৮ বছরই অর্থ-মন্ত্রনালয়ের নের্তৃত্ব দিয়ে আসছিল সিলেটীরা। সিলেটী অর্থমন্ত্রীরা তাদের দ্বায়িত্ব ও কর্তব্য সততা ও নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। ফলে সকল সময় ঐ মন্ত্রনালয়টি সফল হয়। আর দেশ ও বিদেশে সুনাম কুড়িয়ে আনেন সিলেটের সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান (বিএনপি), শাহ এ এম এস কিবরিয়া (আওয়ামী লীগ) ও বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এই তিনজনই ছিলেন আওয়ামী লীগ,বিএনপি ও জাতীয় পার্টি সরকারের শাসনামলের দাপুটে মন্ত্রী। ফলে তাদের নের্তৃত্বে অর্থনীতির চাঁকা সচল হয়ে বেড়ে মাথাপিছু গড় আয়। আর দেশ হয়েছে অর্থে সমৃদ্ধশীল। দীর্ঘ ২৮ বছর অর্থ মন্ত্রনালয় সিলেটীদের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও এবার হাত ছাড়া হলো গুরুত্বপূর্ণ এই মন্ত্রনালয়টি। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের ১০ বছরের শাসনামলে অর্থমন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্বে ছিলেন সিলেট-১ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য আবুল মাল আব্দুল মুহিত। গতকাল রবিবার তৃত্বীয়বারের মতো মন্ত্রী পরিষদ গঠন করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। সেই মন্ত্রী পরিষদে নতুনভাবে অর্থমন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্ব পেয়েছেন আ হ ম মোস্তফা কামাল।
সিলেটীদের কাছ থেকে অর্থমন্ত্রনালয় হাতছাড়া হলেও পুনরুদ্ধার হয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়। আওয়ামী লীগ সরকারে থাকাকালিন দুইবারই পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়টি ছিল সিলেটিদের দখলে। সে সময় গুরুত্বপূর্ণ ঐ মন্ত্রনালয়টির দ্বায়িত্ব পালন করেন প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী। এই দুই বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ ও সাবেক মন্ত্রী মারা যাওয়ার পর অর্থমন্ত্রনালয় হাতছাড়া হয় সিলেটীদের কাছ থেকে। তাই সিলেটের প্রবীণ অনেক রাজনীবিদরা মনে করেন, যে অর্থ মন্ত্রনালয় হারিয়ে সিলেটীরা পেল পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়।
সূত্র জানায়, দীর্ঘ সময় গুরুত্বপূর্ণ অর্থ-মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করায় অন্ত্রমন্ত্রনালয় মানেই সিলেট- এমন ধারণাও তৈরি হয়েছিলো রাজনীতিতে। তবে ২৮ বছর পর এবার এর ব্যতিক্রম ঘটতে যাচ্ছে। আজ সোমবার শপথ নিতে যাওয়া মন্ত্রীপরিষদে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাচ্ছেন কুমিল্লা থেকে নির্বাচিত সাংসদ আ হ ম মোস্তফা কামাল। ফলে সিলেট থেকে কুমিল্লায় যাচ্ছে অর্থমন্ত্রণালয়। বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুৃল মুহিত অবসরের ঘোষণা দেওয়ায় আওয়ামী লীগ জিতলে কে হচ্ছেন নতুন অর্থমন্ত্রী তা নিয়ে নির্বাচনের আগে থেকেই আলোচনা ছিলো। নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে আলোচনায় ছিলো বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও বৃহত্তর সিলেটের সন্তান ড. ফরাসউদ্দিন আহমদের নাম। তবে তিনি এবার দলীয় মনোনয়ন চেয়েও পাননি। অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানও অর্থমন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেতে পারেন বলে আলোচনা ছিলো। তবে রোববার মন্ত্রীপরিষদ থেকে জানানো হয়, অর্থমন্ত্রণালয় পাচ্ছেন মোস্তফা কামাল আর মান্নান হচ্ছেন পরিকল্পনা মন্ত্রী।
১৯৮০ সালে প্রথম অর্থমন্ত্রী পায় সিলেট। জিয়াউর রহমান সরকারের অর্থমন্ত্রী হন এম সাইফুর রহমান। দুই বছর দায়িত্ব পালন করেন সাইফুর। এরপর ৮২ সালে এরশাদ সরকারের আমলে অর্থমন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান আরেক ‘সিলেটি’ আবুল মাল আবদুল মুহিত। মাঝখানে কিছুটা বিরতির পর ১৯৯১ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত টানা অর্থমন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পালন করেন তিন সিলেটি। মাঝখানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমল বাদ দিয়ে সব নির্বাচিত সরকারের আমলে অর্থের ভান্ডার সামলান এম. সাইফুর রহমান, শাহ এএমএস কিবরিয়া ও আবুল মাল আবদুল মুহিত। এরমধ্যে সাইফুর রহমান ও এএমএ মুহিত সংসদে সর্বোচ্চ ১২ বার বাজেট পেশের রেকর্ডেরও অধিকারী। আর ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত শেখ হাসিনা সরকারের প্রথম মেয়াদে অর্থমন্ত্রী ছিলেন প্রয়াত শাহ এএমএস কিবরিয়া। ২০০৮ সাল থেকে টানা ১০ বছর ধরে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন মুহিত।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin