রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন


দুর্বল অর্থনীতির উদ্বেগ নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ দফা প্রস্তাব

দুর্বল অর্থনীতির উদ্বেগ নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ দফা প্রস্তাব


শেয়ার বোতাম এখানে

২০২১ সালে ডাভোসে ‘প্রধান ফোকাস বাংলাদেশ’
ডব্লিউইএফ’র গ্রীষ্মকালীন সম্মেলন উদ্বোধন

ফয়ছল আহমদ মুন্না, চীনের দালিয়ান থেকে :
টেকসই বিশ্ব গড়ে তুলতে এবং অপেক্ষাকৃত দুর্বল অর্থনীতির মূল উদ্বেগ নিরসনের লক্ষ্যে পাঁচ দফা প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি মঙ্গলবার বিকেলে ডালিয়ান ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টারে ডব্লিউইএফ-এর সভায় ‘কো-অপারেশন ইন দ্য প্যাসিফিক রিম’ শীর্ষক একটি প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে শেখ হাসিনা এই প্রস্তাব উত্থাপন করেন। প্রধানমন্ত্রী ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ)-এর বার্ষিক সভায় অংশ নিতে এখন চীনের দালিয়ান শহরে অবস্থান করছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মাঝেমধ্যে শুধু কয়েকটি বৃহৎ অর্থনীতির সক্ষমতা অথবা তাদের প্রয়োজনের আঙ্গিকেই সবকিছু দেখি। কিন্তু টেকসই বিশ্বের জন্য আমাদেরকে অবশ্যই ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীসমূহের অথবা অপেক্ষাকৃত দুর্বল অর্থনীতিগুলোর মূল উদ্বেগ নিরসনের উপায়ও বের করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার পাঁচ দশকের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা আমাকে বলছে যে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠী ও দুর্বল অর্থনীতিকে মাথায় রেখেই ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে যে-কোনো পদক্ষেপ নিতে হবে।’ এসময় শেখ হাসিনা পাঁচ দফা প্রস্তাবনা দেন। এগুলো হচ্ছে-

১. দেশগুলোর মধ্যে পারস্পারিক শান্তি-সম্প্রীতি স্থিতিশীলতার পরিবেশ সৃষ্টি।

২. টেকসই উন্নয়নের সব দিকে দৃষ্টি দিতে হবে।

৩. দেশগুলোর পারস্পারিক স্বার্থে বিশ্বাস ও শ্রদ্ধার ভিত্তিতে সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।

৪. সকলের জন্য সম্পদ সৃষ্টির লক্ষ্যে সার্বিক উন্নয়ন করতে হবে ও

৫. প্রতিদ্বন্ধিতায় নয় সুষ্ঠু প্রতিযোগিতার পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে যখন তিনি বাংলাদেশ সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন, তখন ভারতের সাথে গঙ্গা নদীর পানি বন্টন করা ছিল বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং ইস্যু। তিনি বলেন, ‘আমরা পারস্পারিক সমঝোতার ভিত্তিতে মিয়ানমার ও ভারতের সাথে আমাদের সমুদ্রসীমা নির্ধারিত করেছি এবং এখন বাংলাদেশ ও ভারত আন্তঃসীমান্ত নৌপথ উন্নয়নে যৌথভাবে কাজ করছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি সব সময় বিশ্বাস করেন যে আয়তনের দিক দিয়ে ভারতের চেয়ে অনেক ছোট হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশ টেকসই উন্নয়ন ও যোগাযোগের মাধ্যমে এর ভূখন্ড ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারে। তিনি বলেন, ‘আমরা একটি নীতিভিত্তিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চাই। হা, ভূ-রাজনীতি সবসময়ই জীবনের একটি অংশ। তবে আমাদের সতর্কতার সাথে ইস্যুগুলোকে মূল্যায়ন করে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। আমরা স্বল্প সময়ের অর্জনের জন্য দীর্ঘদিনের স্বার্থকে বিসর্জন দিতে পারি না। শেখ হাসিনা বলেন, সকল দেশের মধ্যে অভিন্ন সমৃদ্ধি নিশ্চিতে এখনো প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইন্দো-প্যাসিফিক বিশ্বের সবচেয়ে গতিশীল অঞ্চল বলে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত। একইভাবে, বঙ্গোপসাগর একটি উদীয়মান ও সমৃদ্ধ অঞ্চল। এই অঞ্চলে ১.৫ বিলিয়ন লোকের বাস। তিনি বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরের আশপাশে বসবাসকারী মানুষের উন্নয়নের ব্যাপক সম্ভবনা রয়েছে। ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলটিকে বাণিজ্য ও নিরাপত্তা ইস্যু হিসেবে দেখার প্রবণতা রয়েছে।’

এর আগে ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) গ্রীষ্মকালীন সম্মেলনে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকালে দালিয়ান আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামের ‘ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম’স অ্যানুয়াল মিটিং অব দ্য নিউ চ্যাম্পিয়নস ২০১৯’ শীর্ষক ৩ দিনব্যাপী এ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা অংশ নিয়েছেন। যোগ দিয়েছেন বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ী, শিক্ষাবিদসহ প্রায় ১ হাজার ৮০০ মতো অতিথি। এ সম্মেলন ডব্লিউইএফ সামার দাভোস হিসেবে পরিচিত।
উত্তর-পূর্ব এশিয়ার অন্যতম ব্যবসা ও অর্থনৈতিক কেন্দ্র উত্তর চীনের হংকং হিসেবে সুপরিচিত লিয়াওনিং প্রদেশ দালিয়ানে শুরু হওয়া বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের গ্রীষ্মকালীন সম্মেলনের উদ্বোধন করেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লী কেকিয়াং।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত সুইজারল্যান্ডের জেনেভাভিত্তিক সংগঠন ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ) এর প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী চেয়ারম্যান ক্লাউস সোয়াব এবং লিয়াওনিং প্রদেশের গভর্নর তাং ইউজুন। বিশ্ব পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ, আঞ্চলিক সহযোগিতা, অর্থনৈতিক অসমতা এবং প্রযুক্তিগত সংকটের বিষয়ে নতুন পথ খোঁজা হবে এ সম্মেলনে।

২০২১ সালে ডাভোসে ‘প্রধান ফোকাস বাংলাদেশ’ : ২০২১ সালের ডাভোস সম্মেলনে বাংলাদেশকে প্রধান ফোকাস হিসেবে তুলে ধরবে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম এবং তার আগের বছর সংস্থাটি ঢাকায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক জানিয়েছেন।
তাদের এই সিদ্ধান্তকে বাংলাদেশের জন্য ‘বিরাট অর্জন’ বলছেন পররাষ্ট্র সচিব। মঙ্গলবার চীনের ডালিয়ান কনফারেন্স সেন্টারে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী চেয়ারম্যান ক্লস সয়াবের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানান তিনি।

বৈঠকের পর পররাষ্ট্র সচিব সাংবাদিকদের বলেন, সয়াব বলেছেন যে, বাংলাদেশকে ফোকাস করে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরাম কিছু করবে। তখন দুইজনের মধ্যে আলোচনার ফলশ্রুতিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে ২০২০ সালে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরাম বাংলাদেশে একটা ইভেন্ট করবে। পরের বছর ২০২১ সালে ডাভোসে বাংলাদেশকে ফোকাস করে একটা বড় ইভেন্ট হবে।

ক্লস সয়াব ২০২০ সালে বাংলাদেশে আসার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন জানিয়ে সচিব বলেন, “উনি নিজে থেকে বলেছেন, আমি বাংলাদেশে যাব। ২০২১-এ ডাভোসে দেশ হিসেবে মেইন ফোকাস হবে বাংলাদেশ। এটা একটা বিরাট অ্যাচিভমেন্ট। এটা সহজে আসে না।

আমি মনে করি যে, এটা খুবই অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক যে, ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরাম বাংলাদেশকে, বঙ্গবন্ধুকে ফোকাস করতে চাচ্ছে। এদিন সকালে ডালিয়ানে ‘সামার ডাভোস’ নামে পরিচিতি পাওয়া ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের ‘ডব্লিউইএফ এনুয়াল মিটিং অব দ্যা নিউ চ্যাম্পিয়ন্স-২০১৯’ এর উদ্বোধন হয়েছে। বিভিন্ন দেশের সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যক্তিরা ছাড়াও ব্যবসায়ী, নাগরিক সমাজ, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রায় দুই হাজার প্রতিনিধি এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।

ধনী ও ক্ষমতাধরদের আলোচনা সভা হিসেবে পরিচিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের ২০১৭ সালের বার্ষিক বৈঠকে বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা অংশগ্রহণ করেন।

শেখ হাসিনা ও ক্লস সয়াবের বৈঠকে আগামী অক্টোবরে দিল্লিতে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের সাউথ এশিয়া ফোরামে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী আলোচনা করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

শহীদুল হক বলেন, আগামী তিন থেকে চার অক্টোবর দিল্লিতে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের সাউথ এশিয়া ফোরাম হবে। সেখানে একটা সেশনে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদীকে রেখে আঞ্চলিক সহযোগিতা ও অর্থনৈতিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে সেশনের প্রস্তাব করেছেন সয়াব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটা গ্রহণ করেছেন এবং আমরা এটা নিয়ে কাজ শুরু করেছি।

বৈঠকে আলোচনার বিষয় তুলে ধরে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, অধ্যাপক ক্লস সয়াব প্রথমেই বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য উন্নয়নের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন, আপনার দূরদর্শিতা ও বুদ্ধিদীপ্ত নীতি নির্ধারণ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। এর ফলেই প্রবৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক উন্নতি হচ্ছে। উনি বলেছেন, এটা বিস্ময়ের কথা যে, সম্পদের এত অপ্রতুলতা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশ যে এই ধরনের উন্নয়ন করে এটা আসলেই একটা বিস্ময়কর ব্যাপার।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় শেখ হাসিনাকে প্রশংসা করে সয়াব বলেছেন, এই প্ল্যাটফর্মে বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করে থাকি এবং ভবিষ্যতে আপনিও এই প্ল্যাটফর্মকে এ ইস্যুতে ব্যবহার করতে পারবেন।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী ভাসানচরের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেছেন, আমরা দ্বিপাক্ষিকভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো যাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সহযোগিতারও দরকার আছে। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার নজরুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin