বুধবার, ২৮ Jul ২০২১, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন


দেড় বছর পর আবারও কর্মমুখর সীমান্ত নদী যাদুকাটা: শ্রমিকদের মুখে স্বস্তির হাসি

দেড় বছর পর আবারও কর্মমুখর সীমান্ত নদী যাদুকাটা: শ্রমিকদের মুখে স্বস্তির হাসি


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 741
    Shares

কামাল হোসেন, তাহিরপুর:

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী যাদুকাটাকে বলা হয়ে থাকে প্রাকৃতিক সম্পদ ও সমৃদ্ধের নদী। যুগ যুগ ধরে হাজার হাজার শ্রমজীবী পরিবারের একমাত্র কর্মসংস্থান এই যাদুকাটা নদী। কিন্তু একটি পরিবেশবাদী সংঘঠন ও এক ব্যক্তির করা উচ্চ আদালতের মামলায় বিগত দেড় বছর ধরে বালি-পাথর উত্তোলন করা আইনি জটিলতায় ইজারা বন্দোবস্ত না হওয়ায় ওই নদীতে কাজ হারিয়ে কর্মহীন হয়ে পড়ে ওইসব শ্রমজীবী পরিবার গুলো। পাশাপাশি বিপাকে পড়ে এ অঞ্চলের হাজারো বালু-পাথর ব্যবসায়ী।

গত ৮ জুন সুপ্রিমকোর্ট কর্তৃক যাদুকাটা নদীর বালি মহালের ইজারা বৈধ ঘোষনা করে। রায় শুনে যাদুকাটার শ্রমজীবী মানুষ, ব্যবসায়ীসহ এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তি নেমে এসেছে। দেড় বছর পর যাদুকাটা নদীতে বালু পাথর উত্তোলন করতে পারায় আবারও কর্মমুখর হয়ে উঠেছে সীমান্ত নদী যাদুকাটা। এ অঞ্চলের প্রায় লাখো শ্রমজীবী মানুষের রুটি রুজিরোজগার একমাত্র অবলম্বন যাদুকাটা নদীতে বালু পাথর উত্তোলন করতে পারায় তাদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে একটু স্বস্তির হাসি।

সম্প্রতি সুনাগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. জসিম উদ্দিন ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রায়হান কবির সরেজমিনে গিয়ে যাদুকাটা নদী থেকে বালু উত্তোলনের সীমানা নির্ধারণ করে তা ইজারাদারের বুঝিয়ে দেন।

শ্রমিকদের সর্দার উপজেলার ঘাগড়া গ্রামেমের হাকিকুল মিয়া বলেন, দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় ধরে নদীতে কাজ বন্ধ থাকায় হাজারো শ্রমজীবী পরিবার, ব্যবসায়ীরা ধারদেনা করে সংসার চালাতে হচ্ছে। নদীতে কাজ শুরু হবে এ খবর শুনে এখানকার প্রতিটি ঘরে যেন স্বস্তি নেমে এসেছে।
শ্রমিক জসিম উদ্দিন বলেন, এতদিন সংসার চালাতে হয়েছে ঋণ আর সুদে টাকা নিয়ে। এখন নদীতে কাজ করতে পারব এটুকু ভেবে নতুন করে বেঁচে থাকার সাহস পাচ্ছি।
লাউড়েরগড় বালি-পাথর ব্যবসায়ী রহিছ মিয়া বলেন, গত এক বছর নদীতে কাজ বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীদের পথে বসার উপক্রম হয়েছিল। কেউ কেউ লোকসান গুনতে গুণতে আজ অনেকটাই সর্বস্বান্ত। নদীতে কাজ শুরু হওয়ায় ব্যবসায়ীরা ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ পেয়েছে।

জানা গেছে, চলতি বছরের ২৩ মার্চ সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক ইজারা কার্যক্রমে অংশ গ্রহন করে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে মেসার্স নিলম এন্টারপ্রাইজ ও আজাদ হোসেন এন্টারপ্রাইজ প্রায় দশ কোটি (ভ্যাট ও ট্যাক্সসহ) টাকায় ইজারা প্রাপ্ত হন।

ইজারাপ্রাপ্ত হওয়ায় পর নিয়ম অনুসারে সরকারি কোষাগারে ইজারামূল্য পরিশোধ করলেও অপর একটি পক্ষ হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করলে শুনানী শেষে জেলা প্রশাসনের দেয়া ইজারাবন্দোবস্ত এক বছরের জন্য স্থগিত করা হয়। পরে ইজারাদারগণ স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগে আবেদন করে এ অঞ্চলের হাজার শ্রমজীবী পরিবারের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ার দাবী জানান। এর প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত পাঁচ সদস্যের একটি পুর্নাঙ্গ বেঞ্চ আবেদন শুনানীর দিন ধার্য্য করেন গত ৮ জুন। এদিন উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের পর শুনানী শেষে প্রধান বিচারপতি সুনামগঞ্জ জেলা প্রধাসনের দেয়া ইজারাবন্দোবস্ত বৈধ বলে ঘোষনা করেন।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গত সপ্তাহ খানেক আগে ইজারাদারদেরকে যাদুকাটা নদীতে বালু উত্তোলনের সীমানা বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। আজকে আমি সরেজমিনে যাদুকাটা নদীতে এসে দেখলাম এখানকার হাজারো শ্রমিকরা নদী থেকে ব্যপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। এই অঞ্চলের বেশিরভাগ শ্রমজীবি মানুষ এই যাদুকাটা নদীর বালু পাথর তাদের জীবন জীবিকার একমাত্র অবলম্বন । কিন্তু এই নদী গত ২০১৯/২০২০ সালে ইজারা বন্দোবস্ত না হগওয়ায় এসব শ্রমিকরা দীর্ঘদিন বেকার ছিল। আবারও নদীর ইজারা বন্দোবস্ত হওয়ায় নদীতে বালু পাথর উত্তোলনে শ্রমিকদের কর্মচাঞ্চল্যতা দেখে আমার খুবই ভালো লাগছে।


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 741
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin