মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:২০ পূর্বাহ্ন



দোয়ারাবাজার-লক্ষীপুর সড়কের বেহাল দশায় চরম দূর্ভোগ

দোয়ারাবাজার-লক্ষীপুর সড়কের বেহাল দশায় চরম দূর্ভোগ


ছাতক প্রতিনিধি:
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলা সদরের সংযোগ হওয়া লক্ষীপুর ইউনিয়নের সড়কের এখন বেহাল দশা। দোয়ারাবাজার থেকে লক্ষীপুর পর্যন্ত সড়কের বেশ কিছু এলাকা রাস্তার উপর কাদার স্তুপ। বৃষ্টির পানি জমে তৈরী হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের। সম্প্রতি বন্যায় লন্ডভন্ড হয়ে গেছে সড়কের কয়েক কিলোমিটার রাস্তা। সড়কটি অস্থিত্ব বিলীন হলেও প্রয়োজনের তাগিদে চরম দূর্ভোগ স্বীকার করে নিয়ে প্রতিদিনই চলাচল করছেন এই অঞ্চলের শত শত জনসাধারণ। উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগের একমাত্র সড়কটি মেরামতের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

উপজেলা সদর থেকে সুরমা ইউনিয়ন হয়ে সড়কটি লক্ষীপুর ইউনিয়নে শেষ হয়েছে। এই সড়ক দিয়ে সুরমা, লক্ষীপুর, বোগলা ও বাংলাবাজার ইউনিয়নের শত শত জনসাধারণ নিয়মিত যাতায়াত করেন। ৩ দফা বন্যায় সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়ক এখন পথচারীদের জন্য মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সড়কটির সুরমা ইউনিয়নের শান্তিপুর-খৈয়াজুরি সেতুর উত্তর প্রান্ত থেকে শুরু করে লক্ষীপুর ইউনিয়ন পর্যন্ত সড়কের পুরো অংশ কাঁদায় ভরপুর। বেশির ভাগ জায়গার পিচ ঢালাই অন্যত্র সরে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি মিশে কাদার সৃষ্টি হয়েছে। কোনো অংশে রড, ইট-পাথর বিপদজনক ভাবে বের হয়ে আছে। এই সড়ক এখন যানবাহন চলাচলের অনুপোযোগী হওয়া সত্বেও ঝুঁকি নিয়ে যানবাহনসহ চলাচল করছে।

লক্ষীপুর ইউনিয়নের একাধিক পথচারীরা বলেন, প্রতিদিনই বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদর ও সদরের বাইরে যেতে বিপদজনক এই সড়কটি দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। প্রতিদিন অনেকেই এই সড়কে দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন। চাকুরিজীবী, ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষদের সব-সময় এই সড়কে যাতায়াত করতে হয়। বিশেষ করে এলাকার অসুস্থ রোগী, গর্ভবতী মহিলা ও প্রবীণরা সড়টি দিয়ে চলাচলে মারাত্নক বিড়ম্বনায় পড়ছেন।

নিয়মিত যাত্রীবাহী বহনকারী একাধিক অটোরিক্সা ও মোটরসাইকেল চালক বলেন, বাইরের এলাকার গাড়ি চালকরা এই সড়ক দিয়ে গাড়ি চালাতে সাহস করেন না। আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। প্রতিদিন যে কতটা ঝুঁকি নিয়ে গাড়ি চালাতে হয় তা এই সড়ক দিয়ে কেউ একবার আসা যাওয়া না করলে বুঝতে পারবেন না। অনেক সময় কাদায় গাড়ীর চাকা আটকে গেলে যাত্রীদেরকে একটু দূরত্ব পরপর নামিয়ে দেওয়া হয়। সড়কের দূরদশার কারনে দু’একদিন পরপর গাড়ি মেরামত করতে হয়। সড়কটি দ্রুত মেরামত না করা হলে যেকোনো সময় প্রানহানীর মতো বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

লক্ষীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল হক জানান, সড়কটি অনেকটাই চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এই সড়ক মেরামতের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন প্রশাসনের সাথে অনেক আগেই যোগাযোগ করে দ্রুত সড়ক মেরামতের তাগিদ দেওয়া হয়েছে। এই সড়কের জন্য অনেকেই স্থানীয় মেম্বার-চেয়ারম্যানদের দোষারোপ করছেন।

দোয়ারাবাজার উপজেলার এলজিইডি প্রকৌশলী দেবতোষ পাল বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ সড়কটির অবস্থা দেখতে এরই মধ্যে জেলা নির্বাহী প্রকৌশলীসহ অন্য কর্মকর্তাবৃন্দ পরিদর্শন করেছেন। সড়কের সামনের অংশের সাড়ে ৪ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের বিষয়ে প্রাক্কলন তৈরী করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। প্রকল্প অনুমোদন হলেই দরপত্রের মাধ্যমে শিগ্রই কাজ শুরু হবে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin