সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন


নগরে তৃতীয় স্ত্রীকে ডেকে আনেন স্বামী, কুপাল সৎ ছেলে : আটক ১

নগরে তৃতীয় স্ত্রীকে ডেকে আনেন স্বামী, কুপাল সৎ ছেলে : আটক ১


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
ঈদবাজারের জন্য টাকা দেওয়ার কথা বলে তৃতীয় স্ত্রীকে ডেকে আনেন স্বামী মুহিবুর রহমান বেলাল। এরপর সুমনা বেগমকে (৪৪) উপুর্জপুরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করেন বেলালের প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমন। সুমনা নামের ওই নারীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার রাত ১০ টায় সিলেট নগরের পাঠানটুলা এলাকায় সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজন হিসেবে শাহনুর মিয়া নামের এক যুবককে আটক করে পুলিশ। তাকে গতকাল এঘটনায় আটক দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

আহত সুমনা বেগমের মেয়ে ফাইজা আক্তার হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, ঈদের বাজারের জন্য টাকা দেওয়ার কথা বলে আমার মাকে পাঠানটুলা স্কুলের সামনে যেতে বলেন তাঁর তৃতীয় স্বামী মুহিবুর রহমান বেলাল। তিনি বাজারের টাকা হাতে দিয়ে চলে যান। এরপরই ঘটনাস্থলের পাশে আগে থেকে ওৎপেতে থাকা মুহিবুর রহমান বেলালের প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমনের নেতৃত্বে চার-পাঁচজনের একটি দল আম্মুর উপর হামলা চালায়। হামলার সময় দা, ছুড়িসহ দেশীয় অস্র দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

ঘটনার পর স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে তাকে সিলেট এমএমজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সুমনার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রাত ১২টার দিকে ওসমানী হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করেন।

সুমনা বেগমের প্রথম বিয়ের সন্তান ফাইজা আক্তার এবার চৌধুরী আমেনা আব্দুল বারী স্কুল থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। তিনি নিজের মায়ের বরাত দিয়ে বলেন, জায়গাজমি সংক্রান্ত বিরোধ ও পারিবারিক নানা সমস্যার কারণে ইমন, শাহনুর, শাকিল, জয়নাল আবেদীন, রুনার নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। এর আগেও আমার মাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিল ইমন। তখন আমার মা কোর্টে মামলা করার জন্য গেলে বাবা ও ইমন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এরপর মা ভয়ে মামলা করার সাহস পাননি।

ফাইজা আরও জানানন, আমার তৃতীয় বাবা মুহিবুর রহমান বেলালের সাথে আমার মায়ের বিয়ের পর আবার দুই ভাই ও এক বোনের জন্ম হয়। কিন্তু মুহিবুর রহমান বেলাল আমার ভাই-বোনদের বাবার স্বীকৃতি দেন নি। উল্টো আমার মাসহ আমাদেরকে হুমকি-ধমকি দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেন। বেলালের প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও তার ছেলে ইমন এতে সহযোগিতা করেন। এখন আমরা নিরুপায় হয়ে বিমানবন্দর এলাকার জাহাঙ্গীর গ্রাম এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করছি।
তবে সুমনা বেগমের তৃতীয় স্বামী মুহিবুর রহমান বেলাল নিজেকে নির্দোষ দাবি করে হামলার জন্য প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমনকে দায়ী করেছেন। তিনি এ ঘটনার সাথে কোনোভাবেই জড়িত নয় দাবি করেন।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সেলিম মিঞা বলেন, জায়গাজমি ও পারিবারিক বিরোধের কারণেই মহিলার উপর হামলা হয়েছে। কুপে সুমনা বেগমের হাতের রগ কেটে গেছে। আশঙ্কাজনকভাবে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া তাঁর স্বামী বেলালও পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে। অন্য আসামীদের ধরতে পুলিশ কাজ করছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin