মঙ্গলবার, ২৩ Jul ২০২৪, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন


নদী খনন চায় হাওরবাসী

নদী খনন চায় হাওরবাসী


শেয়ার বোতাম এখানে

জয়ন্ত কুমার সরকার, দিরাই:

আগাম বন্যা থেকে হাওরের একমাত্র ফসল রক্ষায় হাওরপাড়ের মানুষ পরিকল্পিতভাবে নদীখনন চায়। কৃষক বলছেন, নদীন পানি প্রবাহ বজায় রাখতে পারলে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকা কমে যাবে এবং বাঁধ নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকবে না। নদীকে ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের আওতায় আনার জোর দাবী করছে হাওর পাড়ের কৃষক। উজানের পানি দক্ষিনে প্রবাহিত হয়। এই প্রবাহ ঠিক করতে হলে সঠিকভাবে নদীখনন জরুরী।

এ যাবৎকালে হাওরে নদীনালা ও খাল বিলে কোনরকম খনন কাজ করা হয়নি। অন্যদিকে উজান থেকে নেমে আসা ঢলের সাথে পলি মাটির স্তুপ পড়ছে। যেখানে সেখানে চর জেগেছে। ক্রমশই নদীনালা খাল বিল ভরাট হচ্ছে। বিশাল আকৃতির বিলগুলো ভরাট হয়ে ছোট পুকুরে পরিণত হয়েছে।
একসময়ের খরস্রোতা নদীগুলো নাব্যতা হারিয়ে ফেলেছে। নদীর গুলোর উপর দিয়ে হেটে পাড় হওয়া যায় এখন। ফলে বৃষ্টির পানি ধারণ করার ক্ষমতা নেই আর। যার দরূন অল্পতেই জলে নিমগ্ন হচ্ছে ফসলের জমি ।

প্রকৃতিতে জীববৈচিত্রে হুমকির স্বরূপ হয়ে দাড়িয়েছে। গেল ২০১৭ সালের অকাল বন্যায় চৈত্র মাসেই সুনামগঞ্জ নেত্রকোনা সহ আশেপাশের সকল হাওরের কাচা ধান তলিয়ে যাওয়ার পর হাওর রক্ষা বাঁধে ব্যাপক দুর্নীতির বিষয়টি সামনে আসে।

তারপর থেকে স্থানীয় কৃষকদের সমন্বয়ে ৫ সদস্য বিশিষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে বাঁধের ভাঙ্গা অংশ মেরামত পূনরাকৃতি ও নতুন করে নির্মানের কাজ হাতে নেয়। শুরু থেকেই একাজে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অবৈধ হস্তক্ষেপ, পিআইসিদের অধিক লাভের আশায় কম মাটি ফেলা, নিময় বর্হিভূতভাবে বাঁধের কাছ থেকে মাটি সংগ্রহ করে বাঁধে ফেলা, এমনকি মেজারমেন্ট অনুযায়ী কাজ না করার অভিযোগ উঠেছে। কোন কোন পিআইসি গঠনে সরাসরি স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের ব্যাপক হস্তক্ষেপের কথা বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে এসেছে।

পিআইসি গঠনে প্রকৃত কৃষকদের না রাখার অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় কৃষকদের। আবার একজন প্রভাবশালী নেতার বিরুদ্ধে একাধিক পিআইসির নিয়ন্ত্রণ রয়েছে এমন শিরোনামে পত্রিকা প্রকাশ হয়েছে। হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মানে সবচেয়ে বড় যে সমস্যা পরিলক্ষিত হয়েছে তা হলো, যথাসময়ে কাজটি শুরু না হওয়া এবং বাঁধের কাজ শেষ না হওয়া। শুরুতে পিআইসি নিয়ে কৃষকেরা আশায় বুক বাঁধলেও চলতি মৌসুমের পানি পরীক্ষায় নিরাশ হয়েছে কৃষক।

কৃষক এখন চাইছেন হাওর রক্ষার স্থায়ী সমাধান। স্থায়ী সমাধানের শুরুতেই তাদের দাবী হলো নদীনালা ও বিল খনন। কৃষকেরা এগুলো পানির ব্যাংক বলছেন। উজানে ঢল শুরু হলে সুনামগঞ্জের বুক ছিড়ে বহে যাওয়া প্রমত্তা সুরমা নদী পানিতে ভরাট হয়ে উপচে শাখা সুরমা, কালনী নদী, পিয়াইন নদীতে জমা হয়।এদিকে কালনী, দাড়াইন, শাখা সুরমা, পিয়াইন নদী, কুমারখালীসহ ছোটবড় নদী নালা থেকে ঢলের পানি দক্ষিণে প্রবাহিত হওয়ার পথ প্রায় রুদ্ধ।

নদী খননের মাধ্যমে কালনী নদী ও দাড়াইন নদীর পানি প্রবাহ বহমান রাখার দাবী দিরাই ও শাল্লাাবাসীর। এদিকে শাখাসুরমা, পিয়াইন নদী খনন করা না গেলে একই দশা হবে দিরাইয়ের বৃহত্তম কালিয়াকোটা হাওরসহ ছোটবড় অন্তত ৫টি হাওরের। দিরাইয়ের কালনীনদীর তীরবর্তী ছোটবড় ১০ টি হাওর রয়েছে। চলতি বছর বাঁধ ভেঙ্গে বৈশাখী, চাপতি, হুরামন্দিরা ও সর্বশেষ শাল্লা উপজেলার বৃহত্তম ছায়ার হাওর তলিয়ে গেছে।

দিরাইয়ের বেতই নদীর তীরে চিতলিয়া গ্রামের কৃষক সুদীপ কুমার দাস বলেন, আমাদের বেতই নদীটিতে গেল ১৫ বছর আগেও নৌকা যোগে পাড় হওয়া লাগতো। শুকনো মৌসুমে আমরা হেটে পাড় হই। এই নদীর তলদেশ দিয়ে গরুর গাড়ি, ট্রলি চলাচল করতে পারে। সামান্য বৃষ্টিতেই নদী ভরাট হয়ে যায়।

বরাম হাওর পাড়ের উজানধল গ্রামের কৃষক রূপন মিয়া বলেন, চৈত্রমাসে কালনী নদীতে সাতার দিতে ভয় হতো। কয়েকটা বছরের ব্যবধানে এসব ভরাট হয়ে গেছে। এখন সামান্য বৃষ্টি হলেই নদীতে পানি টইটুম্বুর করে। কালনী নদীর খনন করা জরুরী। নদী খনন হলে তিনি বলেন, প্রতিবছর হাওর রক্ষা বাঁধ দিয়ে সরকার শুধু শুধ টাকা গুলো নস্ট করে। অকালে বন্যা হলে এ বাঁধ যে কোন কাজে আসে না তার প্রমান আমরা পেয়েছি।

চাপতি হাওর পাড়ের কলিয়ারকাপন গ্রামের কৃষক আউয়াল মিয়া বলেন, এ বছর বৈশাখী বাঁধ ভেঙ্গেছে মূলত বাঁধের পাশে বড় কুরুং (গর্ত) থাকার কারণে। এছাড়া বাঁধের কাজে অনিয়মতো ছিলই। বাঁধের পাশের কুরুং (গর্ত) গুলো ভরাট করতে হবে। তিনি বলেন, গেল চার বছর বড়ধরনের কোন ঢল হয়নি তাই বাঁধের কোন ক্ষতি হয়নি। প্রকৃতির সহায়তায় গেল বছরগুলোতে আমাদের ধান গোলায় তুলতে পেরেছি। এবছর ঢলের পানি আসাতেই বাঁধগুলো হুটহাট করে ভেঙ্গে গেছে।

হাওরের কৃষি ও কৃষকের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে কাজ করে এমন একটি সংগঠন হাওর বাচাঁও আন্দোলন। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায় বলেন, আমরা শুরু থেকেই বলে আসছি বন্যার পানি থেকে ফসল রক্ষায় নদীখননের বিকল্প নেই। আমাদের বাড়িরে পাশের খালগুলো ভরাট হয়ে গেছে। ভরাট হওয়া খাল ও নালাগুলো খনন করতে হবে। খননের পাশাপশি বাঁধের পাশে ছোট বড় গর্তগুলো ভরাটের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করে বলেন, এসব গর্ত মূলত বাঁধের কাছ থেকে মাটি নেওয়ার ফলেই ঘটেছে। আমরা লক্ষ্য করে দেখেছি যেসব বাঁধে গর্ত রয়েছে সেসব বাঁধ অধিক ঝুকিতে ছিল এবং এসব বাঁধ ভেঙ্গেছে বেশি। তিনি বলেন সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে ছোট বড় ৩০টির মতো নদী রয়েছে। যার অধিকাংশ নদী নাব্যতা সংকটে রয়েছে। কয়েকটি নদীতো একবারে মরেই গেছে। নদী খনন করে এর মাটি ওসব গর্তে ফেলা যেতে পারে তাতে গর্তগুলো ভরাট হয়ে যাবে।

হাওর গবেষক সজল কান্তি সরকার বলেন, হাওরের জীববৈচিত্র রক্ষায় নদী খননের কোন বিকল্প নেই। এজন্য নদীকে খাল হিসেবে খনন না করে ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন ছোটবেলা দেখেছি হাওরে বাঁধ ভাঙ্গলে সাত থেকে দশ দিন সময় লাগতো হাওর ডুবতে। কারণ হাওরের মধ্যে ছোট বড় ডুবা বিল ছিল, এসব এখন ভরাট হয়ে গেছে। উজানের পানি কোন দিকে আসে সেটা চিহ্নিত করতে হবে। পরিকল্পিতভাবে নদী, হাওরের বিল ও খাল খনন করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে দিরাই শাল্লার নির্বাচিত সংসদ সদস্য ড. জয়াসেন গুপ্তা বলেন, দিরাই এবং শাল্লা উপজেলার প্রতিটি নদীর নাব্যতা ফিরাতে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করবো। আমরা হাওরের ফসল রক্ষায় স্থায়ী সমাধান চাই। কালনী, দাড়াইন, শাখা সুরমা, পিয়াইন নদী খননের কোন বিকল্প নেই। এছাড়া বাঁধের দু’পাশের গর্তগুলো যাতে ভরাট হয় সেটির বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।

পানিসম্পদ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলনে, সুনামগঞ্জের মানুষের জন্য এক হাজার ৫৪৭ কোটি টাকার ১৪টি নদী ও এর সঙ্গে যত সংযোগ খাল রয়েছে তা খননের জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। নদীপথে দিয়ে নৌ চলাচলের জন্য ফসল কেটে নিয়ে পারে সেজন্য ৯০টি কজওয়ে রাখা হয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে কজওয়ের পয়েন্টগুলো জিও ব্যাগ দিয়ে বন্ধ রাখা হবে। যখন কৃষকের ফসল কাটা শেষ হয়ে যাবে, তখন কজওয়েগুলো খুলে দেয়া হবে। এই দুটি কাজ হলে আগামীতে এরকম আগাম আগাম বন্যা হলে মোকাবেলা করতে পারবো। তিনি বলেন, আসছে আগস্ট সেপ্টেম্বর নাগাদ এর সমীক্ষা রিপোর্ট আমরা হাতে পাবো বলে আশা করছি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin