রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন


নবীগঞ্জে বজ্রপাতে ঝলসে যাওয়া যুবক ১৬ দিন ধরে বিনা চিকিৎসায় পড়ে আছেন

নবীগঞ্জে বজ্রপাতে ঝলসে যাওয়া যুবক ১৬ দিন ধরে বিনা চিকিৎসায় পড়ে আছেন


শেয়ার বোতাম এখানে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বজ্রপাতে লায়েক মিয়া (১৮) নামে এক যুবকের শরিরের ৬৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। অথচ টাকার অভাবে ১৬ দিনেও হয়নি কোন চিকিৎসা। বিনা চিকিৎসায় এই যুবক এখন মৃত্যু পথযাত্রী। সে নবীগঞ্জ উপজেলার গুমগুমিয়া গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৯ এপ্রিল গুমগুমিয়ার গ্রামের পাশে ‘গরশোলা’ হাওরে ধান কাটতে যায় লায়েক। এসময় হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড় শুরু হলে তার উপর বজ্রপাত ঘটে। তাৎক্ষণিক স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করেন। সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর তার অবস্থা আশংঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসক তাকে ঢাকা বার্ন ইউনিটে প্রেরণ করেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার শরিরের প্রায় ৬৫ শতাংশ ঝলসে গেছে।
এদিকে, চিকিৎসকরা লায়েক মিয়াকে ঢাকা প্রেরণ করলে টাকার অভাবে সেখানে নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। পরিবারের লোকজন তাকে নিয়ে বাড়িতে চলে আসেন। ৬৫ শতাংশ ঝলসে যাওয়া শরির নিয়েই দীর্ঘ ১৬ দিন ধরে বিনা চিকিৎসায় বাড়িতে পড়ে রয়েছে অহভাগা এই যুবক। অসহ্য যন্ত্রনায় নিদ্রাহীন দিনরাত কাটছে তার। পুড়া যন্ত্রনায় ক্ষণে ক্ষণে চিৎকার করে উঠছে। অথচ সমাজের কোন ভিত্তবানও এগিয়ে আসছেন না তার পাশে।
এ ব্যাপারে লায়েক মিয়ার পিতা আব্দুর রহিম বলেন- ‘আমি গরিব কৃষক। টাকা পয়সা নেই, নেই কোন সয়-সম্পত্তি। টাকার অভাবে মৃত্যুমুখে পড়ে থাকা আমার ছেলের চিকিৎসা করাতে পারছি না। পাশে বসে বসে ছেলের মৃত্যু যন্ত্রনা প্রত্যক্ষ করছি।’
তিনি বলেন- ‘যদি জায়গা-জমিন থাকত, তাহলে তা বিক্রি করে ছেলের চিকিৎসা করাতাম। কিন্তু আমার কিছুই নাই। সমাজের ভিত্তবানরা এগিয়ে না আসলে আমার ছেলেকে আমি বাঁচাতে পারব না।’


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin