শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০১:০১ অপরাহ্ন



নারায়ণগঞ্জে ৬১ করোনা মৃতের দাফনে এগিয়ে আসা কাউন্সিলরের স্ত্রীর জন্য মিলছে না আইসিইউ

নারায়ণগঞ্জে ৬১ করোনা মৃতের দাফনে এগিয়ে আসা কাউন্সিলরের স্ত্রীর জন্য মিলছে না আইসিইউ


সুমু মির্জা, ঢাকা প্রতিনিধি:
কোবিড-১৯ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মৃত ব্যক্তিদের দাফনে শুরু থেকেই সামনে থেকে লড়েছেন নারায়ণগঞ্জের আলোচিত কাউন্সিলর ও বন্দর নগরীতে মানবতার ফেরিওয়ালা খ্যাত মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।নিজের নিজের টিম নিয়ে এ পর্যন্ত ৬১ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত লাশের দাফন সম্পূর্ণ করেছেন।

করোনা যুদ্ধের এই অদম্য সৈনিক এবং তার স্ত্রী আফরোজা খন্দকার লুনা দুজনই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কাউন্সিলর খোরশেদের একদিন আগে নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ আসা তার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা এখন সংকটাপন্ন। তিনি প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টে ভুগছেন।

নারায়ণগঞ্জ ছাপিয়ে দেশ বিদেশে বহুল প্রশংশিত এই কাউন্সিলর নিজের অসুস্থতা নিয়েও এখন স্ত্রীর জীবন বাঁচাতে অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ছুটছেন। নারায়ণগঞ্জ শহরের কোনো হাসপাতালে আইসিইউ না পেয়ে শনিবার মধ্যরাতের পর কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার কাঁচপুর সাজেদা হাসপাতালে পৌছেছেন।

তবে সেখান থেকে আইসিইউ পাওয়ার কোনো নিশ্চয়তা মিলেনি। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কাউন্সিলর খোরশেদের পরিচয় পেয়ে সকালে আইসিইউয়ের ব্যবস্থা করে দেওয়ার চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

শনিবার মধ্যরাতে সাজেদা হাসপাতালে পৌছার পর এসব তথ্য কাউন্সিলর খোরশেদ বলেন, “কিছুক্ষণ আগে আমার স্ত্রী আফরোজা খন্দকার লুনার নাকে অক্সিজেন লাগানো হয়েছে।তার পুরো শরীর নিস্তেজ হয়ে গেছে। একটু দোয়া করেন সবাই প্লিজ।”

তিনি বলেন, আমি নিজেও এখন  করোনায় আক্রান্ত। আমার করোনা পজেটিভ আসার খবর পাওয়ার পর  আমার স্ত্রী লুনা আরও ভেঙে পড়েছে। গেল শনিবারে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের। এর আগে তার স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে বাড়িতেই ছিলেন।

স্ত্রীসহ নিজে করোনা আক্রান্ত হয়ে জীবন সংকটে থাকলেও কাউন্সিলর খোরশেদ বলেন, আমরা আক্রান্ত হলেও আমাদের সব কার্যক্রম চলবে। আমার টিম সব সময় সক্রিয় থাকবে, আমার ফোনও চালু থাকবে।

আমি যতদিন বেঁচে আছি করোনা যুদ্ধ থেকে এক বিন্দুও নড়বো না। আল্লাহ যেন আমাকে সুস্থ করেন এবং আগের মতো মানুষের সেবা করতে পারি আল্লাহ যেন সেই তৌফিক দান করেন।আমার জন্য আমার আল্লাহই যথেষ্ট। আমি আল্লাহর ইচ্ছায় করোনা পজিটিভ হয়েছি।

তিনি বলেন, হয়তো আগামী ৪ দিন আমি স্বশরীরে উপস্থিত না থাকলেও আমাদের দাফন, টেলিমেডিসিন, প্লাজমা সংগ্রহ, সবজি বিতরণ, মধ্যবিত্তের জন্য ভর্তূকি মূল্যে খাবার বিক্রি ও ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

শুক্রবার (২৯ মে) পর্যন্ত ৬১টি মরদেহ দাফন করেছেন বলে কাউন্সিলর খোরশেদ জানান।করোনা সঙ্কটে এমন মানব দরদী কাউন্সিলরের জন্য নারায়ণগঞ্জবাসি বিভিন্ন জায়গায় খোরশেদ আলম খন্দকার ও তাঁর স্ত্রীর করোনা মুক্তির জন্য দোয়ার আয়োজন করছেন।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin