মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭ অপরাহ্ন


নারীরা নিজেদের পৃথিবী সাজিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের মতো করে:

নারীরা নিজেদের পৃথিবী সাজিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের মতো করে:


শেয়ার বোতাম এখানে

‘নারীরা নিজেদের পৃথিবী সাজিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের মতো করে’ সাদেকা বেগম ব্রাক ব্যাংক কর্মকর্তা’

মবরুর আহমদ সাজু:

এক সময়ের নারীরা থাকতেন ঘরের মধ্যে আবন্ধ। এখন সেই দিন পরিবর্তন হয়েছে। নারীরা আজ তাদের স্বমহিমায়  নিজেদের মেধা-যোগ্যতা দিয়ে স্থান করে নিচ্ছেন সাফল্যের সর্বোচ্চ শিখরে। বিশেষ করে সময়ের তালে তালে সরকারি-বেসরকারি ব্যবসা বাণিজ্যসহ বিভিন্ন উচ্চ পদে নারীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে ।  ফলে সময়ে পরিক্রমায় নারীরা নিজেদের পৃথিবী নিজেরা সাজিয়ে নিচ্ছি নিজেদের মতো করে।

সুতারাং এই যখন বাস্তবতা। তখন আজ ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস । গতকাল নারী দিবসের বিষয় নিয়ে কথা হয়, সিলেট নগরীর জিন্দাবাজার শাখার ব্রাক ব্যাংকের জনপ্রিয় কর্মকর্তা সাদেকা বেগম’র সাথে। একান্ত আলাপচারিতায় ব্রাক ব্যাংকের নারী এই ব্যাংকার সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কথা বলেন,আমাদের প্রতিবেদকের সাথে যা পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।

প্রথমেই সাদেকা বেগম জানালেন, এক সময় স্কুলের টিচার ছিলেন, basic bas school এ, তারপর আইসিবি ইসলামি ব্যাংকে যোগদান। বর্তমানে তিনি ব্রাক ব্যাংক জিন্দাবাজার শাখায় কর্মরত আছেন।

তিনি জানান, কিশোরী মোহন থেকে এসএস সি, মদন মোহন কলেজ থেকে মার্স্টাস ও লিডিং ইউনিভার্সিটি থেকে এম বিএ শেষ করে চাকুরীতে জয়েন্ট করেন। সবমিলিয়ে দীর্ঘ ১০বছর যাবত চাকুরী করছেন। এই দশ বছরে নারীদের ব্যাপক জাগরণ হয়েছে বলে মনে করেন সাদেকা বেগম।

তিনি বলেন,এক সময় নারী থাকতো ঘরের মধ্যে আবন্ধ। এখন সেই দিন পরিবর্তন হয়েছে।নারী তার নিজের মেধা-যোগ্যতা দিয়ে স্থান করে নিচ্ছে ফলে সাফল্যের সর্বোচ্চ শিখরে আরোহন করছে।

বিশেষ করে ব্যবসা বানিজ্যসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠার উচ্চে পদে নারীর সংখ্যাও দিনে দিনে বাড়ছে। সেজন্য নারীরা নিজেদের পৃথিবী নিজেরা সাজিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের মতো করে।

কর্মক্ষেত্রে কতটা নারীবান্ধব জানতে চাইলে?তিনি জানান,বিগত সময়ের চেয়ে বর্তমানে বেশিসংখ্যক নারী কর্মক্ষেত্রে রয়েছেন। সিদ্ধান্ত গ্রহণ থেকে শুরু করে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন প্রতিটি পর্যায়ে নারী তার বিচক্ষণতা, দক্ষতা ও বুদ্ধিমত্তা, একাগ্রতার ছাপ রাখছেন।

বিশেষ করে কর্মজীবী নারীর ঘরে বাইরে চ্যালেঞ্জ যেন একটু বেশি। সংসার-সন্তান সামলে কর্মক্ষেত্রকেও দিতে হয় সমান গুরুত্ব। কর্মজীবী নারী শব্দটি শুনলেই চোখে ভেসে ওঠে একজন ব্যস্ত ও দায়িত্বশীল এক নারীর চেহারা।

দশভুজার মতো কর্মজীবী নারী ঘরে ও বাইরে দুই জায়গাতেই নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে থাকেন। দায়িত্ব পালন শুরু হয় সেই ভোর থেকেই।

তিনি জানান,সকালের খাবার তৈরি করা, বাচ্চাদের স্কুলে পাঠানোর জন্য তৈরি করা, তাদের টিফিন তৈরি করা, সকাল ও দুপুরে বরের খাবার গুছিয়ে দেয়া, দুপুরে পরিবারে বাকি সদস্যরা কী খাবে সেই দিকটা সামলে অফিসের জন্য নিজেকে তৈরি করা তো সোজা কথা নয়?

ক্যারিয়ার হিসেবে নারীদের জন্য ব্যাংক কেমন বলে মনে করেন? এমন প্রশ্নের জবাবে সাদেকা বেগম বলেন, যদি নারী চ্যালেঞ্জ নেওয়ার সাহসটা মনে রাখেন,তাহলে যেকোনও জায়গা তার জায়গা হয়ে উঠবে।

আমি তো আমার সঙ্গে যে নারীরা কাজ করে তাদের সবসময়ই বলি এগিয়ে চলার সাহসটা রেখে সততার সঙ্গে কাজ করলে নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী একদিন লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেই।

ব্যাংকে নারীদের জন্য বরং বিশেষ কিছু সুবিধাই রয়েছে। এখানে ডেস্কজব বেশি। এখানে নিজের এরিয়া অনুযায়ী কাজটা শেখার সুযোগ থাকে।

ফলে একেবারে শুরু থেকে যারা ব্যাংকিংকে ক্যারিয়ার হিসেবে ভাববেন তারা আসলেই নিশ্চিন্তে কাজ করতে পারবেন। তবে তাকে নিজের সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। কারণ,যেকোন পেশার মতোই এখানেও তাকে পেছন দিকে টেনে নেওয়ার নানা জায়গা আছে। এসব এড়ানোর রাস্তা নারীরাই ভাল জানেন বুঝেন।

তিনি বলেন, বিশ্বে যা কিছু মহান ,চির কল্যানকর অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর’

সাদেকা বলেন, আগের বাংলাদেশ আর বর্তমান বাংলাদেশ এক নয়? বর্তমান বাংলাদেশ বিশ্বের সাথে প্রতিযোগিতা করে চলে। বর্তমান সরকার নারী বান্ধব সরকার। আর এটা কেবল জননেত্রী শেখহাসিনার জন্য হয়েছে।

বর্তমান সরকারের জন্য পরিবার কর্মক্ষেত্রে, সমাজে সর্বত্রই নারী সাফল্য পেতে নেমেছে চ্যালেঞ্জ নিয়ে।

সংসার-সন্তান সামলে কর্মক্ষেত্রকেও সমান গুরুত্ব পাচ্ছে নারীরা। দায়িত্ব পালন করছে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ পদে। বর্তমানে চারপাশে আমি অনেক নারীকেই দেখছি, যারা অনেক বড় পর্যায়ে কাজ করছেন। এখন ভালো ফলাফলসহ অনেক মেয়ে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করছে। ফলে কাজের ক্ষেত্রে এন্ট্রি লেভেলে আমরা অনেক মেয়েকে পাচ্ছি।

অনেক কোম্পানির সিইও, সিএফও থেকে শুরু করে বোর্ড অব ডিরেক্টরেও নারীরা রয়েছেন। সবমিলিয়ে বলা যায়, নারীরা চ্যালেঞ্জটা নিতে পারছেন।

বাংলাদেশে নারীদের অংশগ্রহণ জানতে চাইলে সাদেকা বলেন, নারীরা সংসারে কাজ করবে, আগের সেই চিরাচরিত ধারণা এখন দ্রুত পাল্ট যাচ্ছে।

সংসারবহির্ভূত অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে নারীর অংশগ্রহণ আজ আর নজিরবিহীন নয়। এক সময় যেসব কাজ শুধু পুরুষদের জন্যই নির্ধারিত ছিল, সেসব কাজে এখন নারীরাও অংশগ্রহণ করছে।

সাদেকা জানান, তিন দশক আগে কল্পনা করা না গেলেও এখন বিচারক, সচিব, সেনা কর্মকর্তা, প্যারাট্রুপার, বিজিবির সৈনিক, পুলিশের এসপি, ট্রাফিক সার্জেন্টসহ সব ক্ষেত্রেই নারীর পদচারণা রয়েছে। লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে বাংলাদেশের অগ্রগতিতে প্রশংসায় পঞ্চমুখ এখন সারা বিশ্ব।

সরকার নারীর আর্থিক ক্ষমতায়নে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এবং কর্মক্ষেত্রে নানাভাবে নারীর অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করছে।

এসব উদ্যোগের কারণেই নারীরা চারদেয়ালের গন্ডি পেরিয়ে এখন প্রাতিষ্ঠানিক অপ্রাতিষ্ঠানিক নানা কর্মক্ষেত্রে ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে একসময়কার দরিদ্র পরিবারগুলোতেও আর্থিক সচ্ছলতার ছোঁয়া লাগতে শুরু করেছে ব্যবসা-বাণিজ্যে।

এই ব্যাংকার বলেন,ব্যবসা-বাণিজ্যে নারীরা এগিয়ে যাচ্ছেন। এসএমই খাতকে এগিয়ে নিতে সরকার কাজ করছে। এ দেশ সবার। সবাই মিলে এগিয়ে যেতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের দেশ বানাতে প্রধানমন্ত্রী কাজ করে যাচ্ছেন। অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়তে নারী, পুরুষ সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে।

বর্তমান সময়ে নারীর কাজ পুরুষের কাজ বলে আলাদা কিছু নেই। নারী ও পুরুষ সবক্ষেত্রে সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন। তবুও পুরুষতান্ত্রিক সমাজে নারীর জন্য কাজ ভাগ করে দেখানোর প্রবণতা দেখা যায়। পাঠ্যপুস্তাকের প্রশ্নেও তা উঠে আসে। কিন্তু কেন?

নারীর কাজ ও পুরুষের কাজের মধ্যে পার্থক্য কী জানতে চাইলে সাদেকা বলেন, নারীর কাজ ও পুরুষের কাজের মধ্যে পার্থক্য কী। আলাদা করে কোনো দিন ভাবতে হয়নি। এখন তো নয়ই। যে সময়ে আমরা চলছি, এখন নারীরা পুরুষের চেয়ে পিছিয়ে নেই কোনো দিক থেকেই। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন তাঁরা।

নারী পুরুষ নিয়ে সাদেকা বলেন, নারীর পাশে প্রথমেই দাঁড়াতে হবে পুরুষকে। সবাই মিলে চাইলে অবশ্যই এ সমাজ হয়ে উঠবে সুন্দর।
নারী নিজের অধিকার সম্পর্কে সচেতন নিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তা সাদেকা আরো বলেন,

একটু একটু করে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। পরিবার গঠনে, সমাজ বিনির্মাণে সর্বপরি দেশমাতৃকার সম্মান অর্জনে। আজকের নারীরা সর্বময় বিরাজমান।

নারীরা শ্রমিক, কৃষিকাজ, বিমান চালনা, পুলিশ বাহিনী, সশস্ত্র বাহিনীসহ এমন কোন চাকরি নেই যে করছে না। এমনকি মিডিয়াতেও সাহসী ভুমিকা রাখছে নারী সংবাদকর্মীরা। সবমিলিয়ে নারীর এ এগিয়ে চলা তার অধিকার প্রতিষ্ঠারই সংগ্রাম।

দেখুন আগেই বলেছি? বর্তমান সরকার নারী বান্ধব সরকার। নারীদের এগিয়ে নিতে বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিচ্ছে। এই সব প্রশিক্ষণ নিয়ে নারীরা তাদের জীবন জীবিকা উপার্জন করছে।

শুধু নারীদের আর্থিক ভাবে নয় রাজনৈতিক ভাবেও এগিয়ে নেয়ার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। নারীরা এখন সরসারি ও সংরক্ষিত আসনে নির্বাচনে অংশ নিতে পারে, যেটা আমার কাছে মনে হয় নারীর অধিকার, সচেতনতা ও এগিয়ে চলার উদহারণ


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin