শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০১:৪৮ অপরাহ্ন

নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে

নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে


শেয়ার বোতাম এখানে

সত্তার আজাদ:
নারীর প্রতি নানা প্রতিবন্ধকতা তুলে ধরে বিনিয়োগে নারীদের উৎসাহিত করতে তার নেয়া বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে সিলেট ওউমেন্স চেম্বারের সভাপতি স্বর্ণলতা রায় বলেন, একজন নারী উদ্যোক্তা প্রথমেই সমস্যায় পড়ে তার নিজের নামে একটি ট্রেড লাইসেন্স নিবন্ধন করতে গিয়ে।

ধরা যাক একজন নারী উদ্যোক্তা থাকে গ্রামে বা পাড়ায়। সেখানে সে বিনিয়োগ করতে চায়। তার জন্য একটি ব্যাংক একাউন্ট প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু দেখা গেল সে যখন একটি একাউন্ট করতে ব্যাংকে যায়। প্রথমে সেখানেই সে বাধার সম্মুখীন হয়। ব্যবসায়ী একাউন্ট করতে ব্যাংক তার কাছে ট্রেড লাইসেন্স চায়।

সে যখন ট্রেড লাইসেন্সের জন্য সিটি কর্পোরেশন বা পৌরসভায় যায়, তখন বলা হয় গ্রামে ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স দেয়া হবে না। কিন্তু ব্যাংক ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া বাণিজ্যিক একাউন্ট খুলতে অনাগ্রহ প্রকাশ করে এবং বলে সঞ্চয়ী একাউন্ট খুলতে। কিন্তু সঞ্চয়ী একাউন্ট খুলে সে বিনিয়োগে সুবিধা ভোগ করতে পারবেনা। এমনকি রপ্তানি লাইসেন্সও করতে পারবেনা ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া। বিধায় তার বিনিয়োগের আগ্রহ কমে যায়।

তিনি আরও বলেন, সিলেটে নারীদের কাজের ক্ষেত্র যেমন কম, তেমনি পণ্যের বাজারজাত করণের সমস্যাও রয়েছে। তথ্য প্রযুক্তিতে সিলেটের নারীরা অনেক এগিয়েছে। কিন্তু কাজের ক্ষেত্র না থাকায় তারা কাজ শিখেও ঘরে বসে থাকতে হচ্ছে।

কল সেন্টার জাতীয় চাকরিতে তারা অংশ নেয়ার সুযোগ কম। আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়া সে ক্ষেত্রে অনেক এগিয়ে। কল সেন্টার তাদের দখলে থাকে। সিলেটে প্রশিক্ষিত অনেক নারী আছেন। যারা নিজেদের পণ্য দেশে বা দেশের বাইরে বিক্রি করে প্রচুর মুনাফা অর্জন করতে পারবেন। দেশের বাইরে সেভেন সিস্টারে আমাদের পণ্য রপ্তানির অনেক সুবিধা রয়েছে। প্যাকেজিং বা অন্য সুযোগের অভাবে সিলেটের নারীরা সেই বাজার ধরতে পারছেন না।

এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টিজ নারীদের সহযোগিতা করতে পারে। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের হাতেও নানা সুযোগ রয়েছে নারী উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা করার। কিন্তু তারা সে বিষয়ে নজর দিচ্ছেনা। আমাদের চেম্বার থেকে বারবার বলেছি- সিলেটে একটি মহিলা উদ্যোক্তা মার্কেট করে দিতে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নতুন করে একটি মার্কেট তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে। সেখানে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য এক বা দুই ফ্লোর রেখে দিতে পারে। আমি বারবার বলার পরও সে বিষয়ে কোনো সাড়া পাইনি।

স্বর্ণলতা রায় বলেন, নারীদের জন্য সিলেট এয়ারপোর্টে নারী কর্ণার খোলা হোক। এতে প্রবাসী ও পর্যটকরা নারীদের উৎপাদিত পণ্যের প্রতি আকৃষ্ট হবেন। এতে বাজারজাত করণের সুবিধা বাড়বে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারে নারীরা তাদের পণ্য নিয়ে প্রবেশাধিকার পাবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin