বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন


নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়


শেয়ার বোতাম এখানে

খেলাধুলা ডেস্ক:

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ঐতিহাসিক জয়ের জন্য বাংলাদেশের দরকার ৪০ রান। লক্ষ্য টপকে গেলে লেখা হবে ইতিহাস। অবসান ঘটবে প্রায় ২২ বছরের। প্রথমবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের মাটিতে জয় পাবে বাংলাদেশ।

এই লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে শুরুতেই অবশ্য হোঁচট খেতে হয় টাইগারদের। ওপেনার সাদমান ইসলাম সাজঘরে ফেরেন ৩ রান করে। ১৭ রান করে জেমিসনের বলে ধরা দিয়ে জয়ের ৬ রান দূরে থেকে ক্রিজ ছাড়েন ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত।অন্যপ্রান্তে টিকে থাকেন অধিনায়ক মুমিনুল।

শান্তর পরে ক্রিজে নামেন মুশফিকুর রহিম। শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দুই ব্যাটার। জয়ে ক্রিজ ছাড়ার আগে মুমিনুলের ব্যাট থেকে আসে ১৩ রান ও মুশফিক করেন ৫ রান। ক্রিকেটের সকল ফরম্যাট মিলিয়ে ৩২ ম্যাচ পর নিউজিল্যান্ডকে হারাল লাল-সবুজরা।নিজেদের প্রথম ইনিংসে ডেভন কনওয়ের সেঞ্চুরি ও উইল ইয়াং ও হেনরি নিকোলসের ফিফটিতে ৩২৮ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। জবাবে জয়, শান্ত, মুমিনুল ও লিটনের ফিফটিতে ৪৫৮ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ।এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে কনওয়ের সেঞ্চুরি ও উইল ইয়াং ও হেনরি নিকলসের ফিফটিতে ৩২৮ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে জয়, শান্ত, মুমিনুল ও লিটনের ফিফটিতে ৪৫৮ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ।

পাঁচ উইকেট হারিয়ে ১৪৭ রান নিয়ে টেস্টের পঞ্চম ও শেষ দিন শুরু করে ব্ল্যাক ক্যাপস। ৩৭ রানে অপরাজিত ছিলেন রস টেইলর। ৬ রান নিয়ে ক্রিজে টেইলরের সঙ্গী হিসেবে নামেন রাচিন রাভিন্দ্রা।

শেষ দিনে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাধা ছিলেন রস টেইলর। দিনের শুরুতেই কাঙ্ক্ষিত সেই উইকেট বাংলাদেশকে এনে দিলেন ইবাদত হোসেন চৌধুরি।।এই ম্যাচে দলের চাওয়া যেমন পূরণ করলেন তিনি, তেমনি অবসান হলো দেশের ক্রিকেটের দীর্ঘদিনের এক অপেক্ষারও।পঞ্চম দিনে মাত্র ২২ রান যোগ করতে পারে নিউজিল্যান্ড। ১৬৯ রানে ব্ল্যাক ক্যাপসদের গুটিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। জয়ের জন্য টাইগারদের টার্গেট দাঁড়ায় ৪০ রান।নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টের শেষ দিন সকালে টেইলরকে আউট করে ইবাদত পূর্ণ করলেন ৫ উইকেট। টেস্ট ক্যারিয়ারে তার প্রথম তো বটেই, প্রায় ৯ বছর ও ৪৭ টেস্ট পর টেস্টে ৫ উইকেটের স্বাদ পেলেন বাংলাদেশের কোনো পেসার।ইবাদত থামেননি সেখানেই। পরের ওভারেই ফিরিয়ে দেন শরিফুল ইসলামকে। পরে তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ মিলে শেষ করে দেন নিউ জিল্যান্ড ইনিংস। ইবাদত ততক্ষণে পা পৌঁছে যান রেকর্ড উচ্চতায়।

৪৬ রানে ৬ উইকেট তার, দেশের বাইরে বাংলাদেশের কোনো পেসারের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড।দেশ-বিদেশ মিলিয়ে তার চেয়ে ভালো বোলিং ফিগার আছে কেবল আরেকজন পেসারের। ২০০৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রামে ২৭ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন শাহাদাত হোসেন।২০১৩ সালে এপ্রিলে জিম্বাবুয়ে সফরে পরপর দুই টেস্টে অসাধারণ সুইং বোলিংয়ের প্রদর্শনীতে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন রবিউল ইসলাম। এরপর বাংলাদেশের আর কোনো পেসার পারছিলেন না এই মাইলফলক ছুঁতে।এই সময়টায় ৩ দফায় ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়েছেন আবু জায়েদ চৌধুরি, দুবার করে মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ। কিন্তু ৫ উইকেট আর হচ্ছিল না। অবশেষে ইবাদতের হাত ধরে কাটল সেই খরা।অথচ এই টেস্টের আগে তার উইকেট ছিল ১০ টেস্টে স্রেফ ১১টি। বোলিং গড় ছিল ৮১.৫৪, ১০টির বেশি উইকেট শিকারিদের মধ্যে টেস্ট ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে গড় যা। সেই তিনিই এবার উপহার দিলেন অসাধারণ বোলিং।

ইবাদতের এই স্বপ্নযাত্রা শুরু হয় চতুর্থ দিন দ্বিতীয় সেশনে। টানা ৯ ওভারের স্পেলে ২৩ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। এরপর শেষ সেশনে অসাধারণ এক স্পেলে তিনি ঘুরিয়ে দেন ম্যাচের মোড়ই। ৭ বলের মধ্যে ৩ উইকেট নেন ওই স্পেলে। সব মিলিয়ে স্পেলটি ছিল ৭-৩-১৫-৩।৪ উইকেট নিয়ে শেষ দিন শুরুর পর আরেকটি উইকেটের জন্য অপেক্ষা খুব একটা করতে হয়নি। দিনের দ্বিতীয় আর নিজের দ্বিতীয় বলেই ধরা দেয় সেই উইকেট। ভেতরে ঢোকা দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে বোল্ড করে দেন অভিজ্ঞ টেইলরকে। ষষ্ঠ শিকার জেমিসন আউট হন শর্ট মিড উইকেটে শরিফুল ইসলামের দুর্দান্ত ক্যাচে।

বাংলাদেশের হয়ে টেস্টে ৫ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব আগে ছিল স্রেফ ৪ জন পেসারের। সর্বোচ্চ ৪ বার নিয়েছেন শাহাদাত হোসেন, রবিউল ইসলাম ২ বার। একবার করে মঞ্জুরুল ইসলাম ও রুবেল হোসেন।নিউ জিল্যান্ডে বাংলাদেশের কোনো পেসারের ৫ উইকেট ছিল একটি। ২০১০ সালে হ্যামিল্টনে বেদম মার খেয়ে ১৬৬ রানে ৫ উইকেট নিতে পেরেছিলেন রুবেল হোসেন। ইবাদত এবার তাকে পেছনে ফেললেন অনেকটা ব্যবধানে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin