বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন



নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গোয়ালাবাজারে চলছে কেনাকাটা, বাড়ছে করোনা ঝুঁকি

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গোয়ালাবাজারে চলছে কেনাকাটা, বাড়ছে করোনা ঝুঁকি


ওসমানীনগর প্রতিনিধি:

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। এরপর থেকে সারাদেশের বাজারে ওষুধের দোকান এবং নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কাঁচাবাজার ও মুদি দোকান খোলার অনুমতি রয়েছে। গণপরিবহন, বিপনীবিতান সব নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বিনা প্রয়োজনে বাইরে বের হওয়া মানুষের চলাচলে নিয়ন্ত্রণ আনা হয়। তবে এ সকল নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ওসমানীনগর উপজেলার ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্র গোয়ালাবাজারে খুলেছে কাপড়, জুতা, টেইলার্স, কসমেটিকসসহ সকল পণ্যের দোকানপাট। এর ফলে বাজারে আসছেন পুরো ওসমানীনগর উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। এতে করে বাজারে ভিড় বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে করোনা ঝুঁকিও।  আজ সোমবার সরেজমিনে গোয়ালাবাজারে এমন পরিস্থিতি দেখা যায়।

গোয়ালাবাজারের প্রতিটি গলিতে গলিতে গড়ে উঠা সব ধরনের দোকানসহ ছোট-খাটো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান খোলা দেখা গেছে। যানবাহনও চলছে পাল্লা দিয়ে। প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও জুতা ও কাপড়ের দোকানে এখন যেন কেনাকাটার ধুম। এছাড়া ভ্রাম্যমাণ হকাররাও বিভিন্ন আইটেম নিয়ে দোকান খুলে বসেছেন ফুটপাত জুড়ে।

কয়েকদিনে ধরেই এসব দোকান খুলতে শুরু করেছেন দোকানিরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী বলেন, আগে অর্ধেক খুলে বসে ছিলেন। আজ প্রায় পুরোপুরি খুলেই ব্যবসা চালাচ্ছেন। বিভিন্ন কৌশলে খোলা রাখা হয়েছে দোকানপাট গুলো এমন তথ্য দিয়ে নাম প্রকাশ না করা শর্তে আরেক দোকানদার বলেন, খোলার পর থেকেই প্রত্যেকটি দোকানে বেচাকেনা খারাপ যাচ্ছে না। ছোট-বড় প্রায় সকল কাপড়ের দোকানেই গড়ে ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া প্রশাসনের কেউ জিজ্ঞেস করলে দোকান পরিস্কারের অজুহাত দেখানো হচ্ছে।

একাধিক জনের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, ঘরে বাজার নেই তাই একটু বাজার করতে বের হয়েছিলাম। বের হয়ে অবাক হয়েছি যে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ছাড়াও অন্য দোকান খুলতে শুরু করেছে। লকডাউন মনে হচ্ছে না। স্থানীয়রা বলছে এই যদি হয় পরিস্থিতি তাহলে লকডাউন রেখে লাভ কি?

গোয়ালাবাজার বনিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পরিমল কান্তি বলেন, কয়েকটি দোকানের সাটার এক পাট খোলা হয়। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে কয়েকটি দোকান খুলেছে ব্যাবসায়ীরা। এ প্রতিনিধিকে বলেন, ভাই বাজারের উপরে যেভাবে প্রভাব পড়েনা এই ভাবে রির্পোট করেন।

গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। অবশ্যই এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয়ের সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সমন্বয়ে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin