সোমবার, ২৬ Jul ২০২১, ০৭:৫০ অপরাহ্ন


নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও মহাসড়কে চলছে অটোরিকশা: দক্ষিণ সুরমা থানার নামে ‘টোকেনে’ বাণিজ্য, মুলহোতা আলতাব

নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও মহাসড়কে চলছে অটোরিকশা: দক্ষিণ সুরমা থানার নামে ‘টোকেনে’ বাণিজ্য, মুলহোতা আলতাব


শেয়ার বোতাম এখানে

ফয়ছল আহমদ মুন্না: মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের হাইওয়ে পুলিশের সামনে দিয়ে অবাধে চলছে সিএনজিচালিত অটোরিকশা। মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলের কারণে বাড়ছে দুর্ঘটনা। প্রতিনিয়ত মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে নতুন নতুন নাম। মহাসড়কে অটোরকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে ৩ বছর। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আইন কানুনের তোয়াক্কা না করেই টোকেন বাণিজ্যের কারণে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কসহ আশপাশের সড়কগুলোতে অবাধে চলছে সিএনজিচালিত অটোরিকশাগুলো।
এসব সিএনজিচালিত অটোরিকশাগুলোতে প্রতি মাসে লাগানো হয় নতুন নতুন স্টিকার। কে দিচ্ছে বা কোথা থেকে আসছে এসব স্টিকার? এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে কৌতুহল বেড়েছে অনেকটা। ড্রাইভাররা মুখ খুলতে নারাজ। স্টিকার ক্রেতা হয়ে স্ট্যান্ড থেকে ধাপে ধাপে এজেন্টের কাছে। অবশেষে বেরিয়ে এলো থলের বিড়াল!

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মুখ খুললেন এক টোকেন এজেন্ট। তাঁর বক্তব্যে ওঠে আসে আসল ঘটনা। এই স্টিকার গুলো হাইওয়ে পুলিশ ও দক্ষিণ সুরমা থানার একটি বিশেষ চক্র তাদের নির্ধারিত এজেন্টের কাছে বিক্রি করে। পুলিশের সেই বিশেষ এজেন্ট ‘ভুইয়ার পাম্পের আলতাব’ নামে পরিচিত। এই আলতাব আহমদ চৌধুরী নগরীর দক্ষিণ সুরমার বাবনা পয়েন্টে ভূঁইয়া পাম্প সংলগ্ন স্ট্যাডের দায়িত্বে আছেন। সিলেটে পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে এমন কেউ নেই যে তাকে চেনেন না। সিলেটের সিএনজিচালিত অটোরিকশার সবগুলো স্ট্যান্ড তাঁর নিয়ন্ত্রিত। পুলিশকে মাসোয়ারা দিয়ে যেখানে সেখানে স্ট্যান্ড তৈরি করে চালকদের সাথে নীরব চাঁদাবাজিও করেন এই আলতাব। তাঁর কাছে জিম্মি রয়েছেন চালকরাও। রয়েছে তার বিরুদ্ধে পরিবহন নৈরাজ্য ও দূর্নীতির অভিযোগ। তবুও অধরা সেই টোকেন রাজা আলতাব পুলিশের একটি চক্রের কাছ থেকে মাসিক টোকেন কিনেন। কোন কোন মাসে তাদেরকে মাসিক টাকা দিয়ে তিনি নিজেই টোকেন তৈরি করেন। আলতাবের আবার বিশেষ এজেন্ট আছে সিলেটের প্রতিটি স্ট্যান্ডে। তাঁর কাছে অর্ডার দিয়ে ছোট স্ট্যান্ডের এজেন্টরা পায়। তারা প্রতি টিকেটে ১০০-২০০ টাকা লাভ করে বিক্রি করে গাড়ির চালকদের কাছে। বর্তমানে টোকেনের বিষয়টি সকলের জানাজানি হয়ে যাওয়ায় এখন থেকে টোকেনের বদলে চালকদের দেয়া হচ্ছে বিশেষ কার্ড।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মহাসড়কে নিয়মিত চলাচল করে সিলেটের প্রায় ৩০-৩৫ স্ট্যান্ডের সিএনজি। এসব স্ট্যান্ডে প্রায় ২০০-২৫০ সিএনজি রয়েছে। আবার মফস্বলে চলাচলকারী অনেক সিএনজি অটোরিকশায় এসব টোকেন লাগানো আছে। সব মিলিয়ে সিলেটে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার সিএনজি অটোরিকশায় এসব টোকেন লাগানো আছে। এই টোকেন থেকে মাসে আয় হয় ৩ থেকে সাড়ে ৩লাখ টাকা। সেই সুবাদে প্রতি বছরে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি।

এই স্টিকার হাইওয়ে পুলিশের বিশেষ সংকেত। এটা গাড়ির সামনে লাগানো থাকলে মহাসড়কে আর সিগন্যাল দিবেনা পুলিশ। কাগজবিহীন গাড়ির জন্য প্রতি মাসে এক হাজার টাকা। আর রেজিস্টেশন গাড়ির জন্য ৬শত টাকা দিতে হয়। তবে প্রতি মাসেই এই স্টিকার পাল্টানো হয়। এমনটাই জানালেন সেই টোকেন বিক্রেতা।

সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালকদের সাথে আলাপকালে অনেকেই জানান, মাসিক টোকেন কিনে মহাসড়কে গাড়ি চালাচ্ছি। প্রশাসন আমাদের ধরবে কেন? এই স্টিকারের মেয়াদ একমাস, একমাস পরে আবার নতুন করে কিনতে হয়।

 

সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধের জন্য মহাসড়কে সিএনজি অটোরিকশা নিষিদ্ধ করার জনভোগান্তি হলেও সরকার চাপের কাছে নতস্বীকার করেনি। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় নিষিদ্ধ এসব যান চলাচল বন্ধে কঠোর অভিযান পরিচালনা করা হয় কিন্তু সরকারের উচ্চ কর্মকর্তারা যখন বেশি চাঁপ প্রয়োগ করেন, তখনই কিছু দিন লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করা হয়। সিএনজি অটোরিকশা আটক ও মামলা দেওয়া হয়।
এদিকে, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিলেট মহাসড়কে বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের তিন অটোরিকশাযাত্রী নিহত হন। এদের মধ্যে একজন নববধু ও দুই কলেজ পড়–য়া ছাত্রী। তাদের জীবন শুরু হওয়ার আগেই শেষ হয়ে যায় তাদের স্বপ্ন। এ সড়ক দূঘর্টনায় দায়ী করা হয়েছে সিএনজিকেই। এছাড়াও নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) ২০১৮সালের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, সিলেট বিভাগে ১৬২টি সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৯৫জন। আহত হয়েছেন ৪৯৯জন। এসব দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ হিসেবে দায়ী করা হয়েছে মহাসড়কে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিকশাকে।

 

 

বিশেষ স্টিকারের মাধ্যমে চালকদের সিএনজি চলাচলের সুযোগ দেয় হাইওয়ে পুলিশ। এটা চাঁদাবাজির অন্যতম কৌশল। এমন অপকৌশলে দিনের পর দিন চালকদের কাছ থেকে হাইওয়ে পুলিশ হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। হাইওয়ে পুলিশের এমন চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল।

 

টোকেনে দক্ষিণ সুরমা থানার নাম থাকা প্রসঙ্গে মহানগর পুলিশের দক্ষিণ সুরমা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) খায়রুল ফজল শুভ প্রতিদিনকে বলেন, দক্ষিণ সুরমা থানা থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে কোন টোকেন দেয়া হয়না। যদি কোনো চালক আমাদের থানার নাম ব্যবহার করে মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালায় তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মহাসড়কে সিএনজি অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করতে প্রতিদিনই থানা থেকে অভিযান চালানো হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

এ ব্যাপারে সিলেট বিআরটিএ’র সহকারি পরিচালক ডালিম উদ্দিন শুভ প্রতিদিনকে জানান, মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা বন্ধ করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা সম্ভব। কিন্তু সিএনজিচালিত অটোরিকশা টোকেন সম্বন্ধে আমাদের কিছু জানা নেই।

 

এবিষয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক ডিসি) ফয়ছল মাহমুদ শুভ প্রতিদিনকে জানান, মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচল অবৈধ। টোকেন বাণিজ্যের সাথে যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। আর কোন পুলিশ কর্মকর্তা বা ট্রাফিক এই টোকেন বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মহাসড়কে অবৈধভাবে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিকশা বিরুদ্ধে শীঘ্রই আমরা এ্যাকশনে যাবো।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin