সোমবার, ২৬ Jul ২০২১, ০৮:১২ অপরাহ্ন


নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নগরে কৌশলে চলছে বিপজ্জনক ব্যাটারিচালিত রিকশা

নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও নগরে কৌশলে চলছে বিপজ্জনক ব্যাটারিচালিত রিকশা


শেয়ার বোতাম এখানে

আহমেদ জামিল :: উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা স্বত্ত্বেও সিলেটে সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে কৌশলে চলাচল করছে বিপজ্জনক ব্যাটারিচালিত রিকশা। দিনের বেলা সংখ্যায় কম থাকলেও রাতের নগরীতে নির্বিঘেœ দাপিয়ে চলছে এসব বেআইনী রিকশা। তাছাড়া পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে রিকশার ইঞ্জিন-ব্যাটারি বিভিন্ন ধরণের ব্যানার-ফেস্টুন দিয়ে ঢেকে রাখেন চালকরা। এতে খুব সহজেই পুলিশের চোঁখকে ফাঁকি দিয়ে চলে যান চালকরা। আবার কখনোও পুলিশের হাতে ধরা পড়লে উৎকোচ দিয়ে ছাড়িয়ে নেন রিকশা। হঠাৎ করে নগরে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল বেড়ে যাওয়ায় নগরে বিদ্যুতের লোডশেডিং বেড়ে গেছে।
জানা গেছে, ২০১৬ সালে ১৯ জানুয়ারি সিলেটে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল সংক্রান্ত একটি রিট খারিজ করেন হাইকোর্ট। তখন থেকেই এসব রিকশা চলাচলে নিষোধাজ্ঞা জারি করা হয়। এরপর দীর্ঘদিন ধরে অভিযান পরিচালনা না হওয়ায় ফের বেড়েই চলছে অবৈধ রিকশার চলাচল। এমনকি প্রকাশ্যে নগরীর অভ্যন্তরে বেশ কিছু শো-রুমে বিক্রয়ও করা হচ্ছে বেআইনী এসব রিকশা।
সরেজমিনে দেখো গেছে, সিলেট নগরীর বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার চৌহাট্টা, আম্বরখানা, মদিনা মার্কেট, টিলাগড়, মিরাবাজার, সোবহানীঘাটসহ নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে দিনে দিনের বেলাও অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা। এছাড়া পাড়া-মহল্লাগুলোর ভেতরে দিনরাত্রি সমানে চলাচল করতে দেখা গেছে। এছাড়া ‘প্রতিবন্ধী’ সেজেও অনেকে চালাচ্ছেন এসব রিকশা। তাছাড়া নগরীর আনাচে কানাচে ফের গড়ে উঠেছে অটোরিকশা রাখার ও চার্জ দেয়ার গ্যারেজ। যেগুলোর বেশিরভাগেরই নেই বৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ।
জানা গেছে, ২০১৪ সাল থেকে সিলেটের রাস্তায় নামতে শুরু করে ব্যাটারিচালিত রিকশা। স্বাভাবিক রিকশার চেয়ে গতির দ্রুততর হওয়ার কারণে জনপ্রিয়তা পেয়ে যায় এটি। ক্রমশ বাড়তে থাকে এর পরিমাণ। হু হু করে বাড়তে থাকায় নগরীতে বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় চাপ বেড়ে যায়। এছাড়া যানজটের অন্যতম কারণও হয়ে দাঁড়ায় অটোরিকশাগুলো। এসব নানা সমস্যার কারণে সিলেট নগরীতেও বন্ধ করে দেয়া হয় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা। ২০১৫ সালের মাঝামাঝি থেকে এসব রিকশা অবৈধ হয়ে যায়।
পরবর্তীতে সরকারি এই নিষেধাজ্ঞার বিপরীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা মালিক সমিতির করা রিটও খারিজ করে দেয়া হয় উচ্চ আদালতে। ২০১৬ সালের ১৯ জানুয়ারি সিলেটে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল সংক্রান্ত রিট খারিজ করেন সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি এসএম মজিবুর রহমানের যৌথ বেঞ্চ।
নগরীর জালালাবাদ এলাকার বাসিন্দা আব্দুল লতিফ বলেন, নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও অনেকে প্রতিবন্ধী পরিচয় দিয়ে ব্যাটারিচালিত রিকশা চালিয়ে যাচ্ছে। রাতের বেলায় প্রকাশে বিভিন্ন সড়কে তাদের দেখা যায়। তিনি বলেন, এসব রিকশা প্রচুর পরিমাণে বিদ্যুৎ খরচ হয়। সামনে গ্রীষ্মের দিন আসছে লোডশেডিং শুরু হবে। আর আমাদের দুর্ভোগও বাড়বে।
কলেজ শিক্ষক মোহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, পুলিশের নিয়মিত অভিযান থাকলে এসব বেইনি রিকশা রাস্তায় উঠতে পারতোনা। এই রিকশাগুলো শুধু বিদ্যুতের অপচয় করছে না। চলাচলেও খুব ঝুঁকি থাকে এগুলোতে।
এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর ট্রাফিক পুলিশের ডিসি ফয়ছল মাহমুদ বলেন, সিলেট নগরীতে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চলাচলে আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাগুলোর বিরুদ্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। যেগুলো চলছে তা পুলিশের অগোচরে। যেকোনো ধরণের বেআইনী যানবাহনের বিরুদ্ধে আমরা সবসময় অভিযান চালিয়ে যাই। অভিযানে যাদের আটক করা হয়; বিধি মোতাবেক তাদের জরিমানা করা হয়।
তিনি বলেন, আইন সবার জন্য সমান। প্রতিবন্ধীর দোহাই দিলে তার জন্য নিষেধাজ্ঞা শিথিলযোগ্য হবে না। ব্যটারিচালিত রিকশা চালনোর কারো অনুমতি নেই। এ বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। শীঘ্রই আরো জোরালোভাবে অভিযান পরিচালনা করা হবে।
এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, জনগণের দুর্ভোগের কারণেই এসব ব্যটারিচালিত রিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এগুলো আবার চলাচল করলে সেই দুর্ভোগ দেখা দিবে। এটা পুলিশ প্রশাসন ভালোভাবে দেখা উচিত। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে অভিযানের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

লেও খুব ঝুঁকি থাকে এগুলোতে।
এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর ট্রাফিক পুলিশের ডিসি ফয়ছল মাহমুদ বলেন, সিলেট নগরীতে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চলাচলে আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাগুলোর বিরুদ্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। যেগুলো চলছে তা পুলিশের অগোচরে। যেকোনো ধরণের বেআইনী যানবাহনের বিরুদ্ধে আমরা সবসময় অভিযান চালিয়ে যাই। অভিযানে যাদের আটক করা হয়; বিধি মোতাবেক তাদের জরিমানা করা হয়।
তিনি বলেন, আইন সবার জন্য সমান। প্রতিবন্ধীর দোহাই দিলে তার জন্য নিষেধাজ্ঞা শিথিলযোগ্য হবে না। ব্যটারিচালিত রিকশা চালনোর কারো অনুমতি নেই। এ বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। শীঘ্রই আরো জোরালোভাবে অভিযান পরিচালনা করা হবে।
এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, জনগণের দুর্ভোগের কারণেই এসব ব্যটারিচালিত রিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এগুলো আবার চলাচল করলে সেই দুর্ভোগ দেখা দিবে। এটা পুলিশ প্রশাসন ভালোভাবে দেখা উচিত। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে অভিযানের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin