সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন


নেতৃত্বে আসছে বড় পরিবর্তন!

নেতৃত্বে আসছে বড় পরিবর্তন!


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল:
সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের কোনো আভাসই ছিল না। সম্মেলন নিয়ে শীর্ষ নেতাদেরও ছিল না কোনো আগ্রহ। ফলে তিন বছরের কমিটি দিয়ে পার হয়ে গেছে আট বছর। অবশেষে কেন্দ্রের কঠোরতায় আগামী ৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। সম্মেলনকে ঘিরে তোড়জোড় শুরু করছেন সিলেট আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। এদিকে সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা হওয়ার পর সাড়া পড়েছে তৃণমূলে। আওয়াজ উঠেছে তৃণমূলের মতামত ও সমর্থনের মাধ্যমে সিলেটের আগামী নেতৃত্ব নির্বাচনের। এতে করে নেতৃত্বের বড় ধরনের পরিবর্তনের আভাস মিলছে নেতাদের কাছ থেকে।

জানা গেছে, সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের চার সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয় ২০১১ সালের ২১ নভেম্বর। পরদিন উভয় শাখায় ৭১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ করা হয়। ২০১১ সালের ২২ নভেম্বর সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়। সেই সময় আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ানকে সভাপতি ও শফিকুর রহমান চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে ঘোষণা করা হয় জেলা কমিটি। ২০১৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান মারা গেলে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান। পাশাপাশি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন এই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ। এরপর সম্মেলন আয়োজন করে নতুন কমিটি গঠনের কথা ছিল। কিন্তু ওই ২০১১ সালের কমিটি দিয়ে ও ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দিয়ে এখনও সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাচ্ছে সিলেট আওয়ামী লীগ। ৩ বছরের কমিটি পার করে দিচ্ছে প্রায় ৮ বছর।

দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূল নেতা-কর্মীরাও সম্মেলনের জন্য দায়িত্বশীল নেতাদের তাগিদ দিয়ে আসছিলেন। অবশেষে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন সামনে রেখে কেন্দ্র থেকে কঠোর বার্তা এসেছে। সম্মেলনের জন্য সিলেট আওয়ামী লীগকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়ে চিঠি দেওয়া হয় কেন্দ্র থেকে। এরপর ২৬ সেপ্টেম্বর সিলেটে এসে এ সময়ের মধ্যেই সম্মেলন করতে বলে যান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। চাপের মুখে বর্ধিত সভা আহ্বান করে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ। জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিলেটের দায়িত্বশীলদের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করে আগামী নভেম্বরের শেষ দিকে এ সম্মেলন হবে বলে জানিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। অবশেষে ৫ ডিসেম্বর সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করে জেলা আওয়ামী লীগ।

জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। পদ প্রত্যাশীদের মধ্যে শুরু হয়েছে লবিং ও দৌড়ঝাঁপ। কেউ আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না বললেও ভিতরে ভিতরে দুটি প্যানেলেই লবিং চলছে বলে একটি বিশ্বস্থ সূত্রে জানা গেছে। পদ প্রত্যাশীরা প্রকাশ্যে তাদের প্রার্থীতা প্রকাশ করছেন না। তারা দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তকেই মেনে নেবেন বলে জানান। তবে তৃণমূল থেকে আওয়াজ উঠেছে তৃণমূলের মতামত ও সমর্থনের মাধ্যমে সিলেটের আগামী নেতৃত্ব নির্বাচনের।

এরইমধ্যে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদপ্রত্যাশী হিসেবে আলোচনায় আছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক জকিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ এবং বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী। এছাড়াও সভাপতি পদপ্রত্যাশী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ চৌধুরী। আর সাধারণ সম্পাদকের প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক অ্যাডভোকেট নিজাম উদ্দিন, অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, নাসির উদ্দিন খান ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ মোশাহিদ আলীর নাম শোনা যাচ্ছে। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে তৃণমূল নেতাদের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান ও অ্যাডভোকেট নিজাম উদ্দিন।

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ মোশাহিদ আলী বলেন, দীর্ঘদিন কমিটি না হওয়ায় সিলেট আওয়ামী লীগে একদিকে নতুন নেতৃত্ব ওঠে আসছে না, অন্যদিকে সাংগঠনিক কার্যক্রমে স্থবিরতা নেমে এসেছে। তৃণমূলের নেতারা সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হতে আমাকে অনুরোধ জানাচ্ছেন। তবে, শেখ হাসিনা সকল সিদ্ধান্তের মালিক। তিনি যদি আমাকে সম্পাদক করেন তাহলে তৃণমূল নেতাদের নিয়ে দলের জন্য কাজ করে যাব। শাহ মোশাহিদ আলী আগামী ৫ ডিসেম্বর কাউন্সিলের মাধ্যমে আগামীর নেতৃত্ব আসবে বলে দাবী করেন।

নতুন নেতৃত্বের ভীষণ প্রয়োজন মন্তব্য করে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সম্পাদক সুজাত আলী রফিক বলেন, শেখ হাসিনা যদি আমাকে দায়িত্ব দেন তাহলে আমি প্রস্তুত রয়েছি। আমাকে না দিলেও দলের জন্য কাজ করছি আজীবন করে যাব। কারো কোন প্যানেল নেই দাবী করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনাই সিদ্ধান্ত নেবেন কিভাবে কমিটি হবে।

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান বলেন, তৃণমূল থেকে পরিবর্তনের একটি ডাক এসেছে। তবে কমিটি আলোচনার মাধ্যমেই হবে। শেখ হাসিনা ও কেন্দ্রীয় নেতারা ঠিক করবেন কাউন্সিল না মতামতের ভিত্তিতে কমিটি হবে। ৫ ডিসেম্বর সম্ভাব্য তারিখ এটা পরিবর্তন হতেও পারে বলে জানান তিনি। নেত্রী, কেন্দ্রীয় নেতা বা তৃণমূলের নেতারা আমাকে কোন দায়িত্ব দিলে আপ্রাণ কাজ করে যাব।

এ প্রসঙ্গে সভাপতি প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার চেষ্ঠা করেছি। নেত্রীর নির্দের অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছি। নেত্রীর নির্দেশে দু’দুবার সাংসদ প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়িয়েছি। আগামীতেও যে কোন দায়িত্ব দিলে তা মাথা পেতে নেব। দলের জন্য আজীবন কাজ করে যাব।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদপ্রত্যাশী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক জকিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, ছাত্র রাজনীতি থেকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দলের আদর্শ বুকে ধারণ করে দলের জন্য কাজ করেছি। সিলেট আওয়ামী লীগকে চাঙ্গা করতে অনেক চেষ্ঠা করেছি কিন্তু কাজ করার সুযোগ দেয়া হয়না। শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে কমিটি হবে। তিনি যার হাতে নেতৃত্ব দিবেন তার মাধ্যমে কাজ আজীবন দলের জন্য কাজ করে যাব। তবে সিলেট আওয়ামী লীগকে বাচিঁয়ে রাখতে নতুন নেতৃত্বের প্রয়োজন বলে জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin