শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন

নৌকাডুবির কবলে পড়েননি  দেশে ফেরা সিলেটের ১১জন

নৌকাডুবির কবলে পড়েননি  দেশে ফেরা সিলেটের ১১জন


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রাণ ফিরে পাওয়া যুবকের স্মৃতি
নৌকার জ্বালানি শেষ হওয়ে যাওয়ায় দুইদিন ভূমধ্যসাগরে নৌকা ভেসেছিল। বিমান দেখলে হাত তুলে হেল্প চাইতাম । প্রতিটি ঢেউ ছিল মৃত্যুর দূত। আমার শত্রুকেও অবৈধভাবে ইতালি যেতে বলব না
আহমেদ জামিল
অবৈধভাবে ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির কবলে পড়েননি দেশে ফেরা সিলেটের ১১ যুবক। সেদিন জ্বালানি শেষ হওয়ায় দুইদিন সাগরে ভাসছিল তাদের নৌকা। প্লাস্টিকের ছোট নৌকায় ১৫ জন বাংলাদেশিসহ ৫৭ জন অভিবাসন প্রত্যাশী লিবিয়া থেকে ইতালি যেতে চেয়েছিলেন। বড় ধরণের দুর্ঘটনা ছাড়াই তিউনিশিয়ার কোস্টগার্ড তাদের উদ্ধার করে। তবে একই সময়ে সমুদ্রপথে অবৈধভাবে লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার সময়ে গত ১০ মে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির ঘটনায় ৩৯ বাংলাদেশি নিখোঁজ রয়েছেন। ওই ঘটনায় উদ্ধার হওয়া ১৪ বাংলাদেশি এখনো তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্টের আশ্রয় শিবিরে রয়েছেন। তারা এখনো ফেরেননি। সাগরে ভাসতে থাকা নৌকা থেকে উদ্ধার হওয়ারাই গত মঙ্গলবার দেশে ফিরেন। তারা ওই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের গ্যারাকলে পড়েন। গত বুধবার তারা ঢাকা থেকে সিলেটে নিজেদের বাড়িতে ফিরেছেন।
গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে ফেরা অভিবাসন প্রত্যাশী সিলেট শহরতলীর ঘোপাল এলাকার রুবেল আহমদের সাথে কথা দৈনিক শুভ প্রতিদিনের। জ্বালানিবিহীন নৌকায় টানা ২দিন ৩ রাত ভেসে থাকার অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করেন তিনি। ইউরোপ জয়ের স্বপ্ন নিয়ে গত বছরের ১০ রমজান বাড়ি থেকে রওয়ানা হয়েছিলেন তিনি। এক বছর আবার রমজান মাসেই বাড়ি ফিরেছেন তিনি। কিন্তু সেই স্বপ্নের সমাধি দিয়ে ফিরে এসেছেন আতঁকে ওঠা জীবন যুদ্ধের স্মৃতি নিয়ে।
তিনি বলেন, গত ৯ মে ১৫জন বাংলাদেশীসহ ৫৭জনের একটি টিম নিয়ে যাত্রা শুরু করে প্লাস্টিকের একটি ছোট নৌকা। মাছের জাহাজে ইতালি পৌছানোর কথা থাকলেও আমাদের জোর করে তোলা হয় ছোট্ট নৌকাটিতে। রুবেল বলেন, ওই দিন ইফতারের পরে আমাদের ৫৭জনকে নেওয়া হয় সাগরের পাড়ে। সেখানে নিয়ে কোমর পানির মধ্য দিয়ে সাগরের তীর দিয়ে প্রায় ২ঘন্টা হাটানোর পর নিয়ে যাওয়া হয় প্লাস্টিকের নৌকায়। আমাদের মধ্যে অনেকেই যেতে অপারগতা প্রকাশ করলে দালালরা গুলি করে হত্যার হুমকি দেয়। ভয়ে আমরা নৌকায় উঠে যাই।
রুবেল বলেন, যাত্রার একদিন পরই আমাদের নৌকার জ্বালানী শেষ হয়ে যায়। এরই মধ্যে যেসব শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে তা প্রায় শেষ পর্যায়ে ছিল। এছাড়া কিছু কেক ছিল তা ইন্দোনেশিয়া ও সুদানের কয়েকজন জোর করে নিয়ে তারা খেয়ে ফেলে। জ্বালানি কেনো ফুরিয়ে গেল এ বিষয়ে জানতে চাইলে চালক আমাদের জানান, তার কিছু করার নেই। আমাদের মত সেও একজন যাত্রী। তার উত্তরে প্রাণে বাচার কোনো উপায় না পেয়ে আল্লাহ আল্লাহ করতে লাগলাম।
রুবেল বলেন, জ্বালানী শেষ হওয়ার প্রথম রাতে যেদিন আমরা সাগরে ভাসছিলাম সেদিন একটি তেলের জাহাজ আমাদের লাইট দিয়ে অনেক পথ দেখিয়েছে। কিন্তু আমরা তাদের কাছে হেল্প চাইলে কোনো সাড়া দেয়নি। তিনি বলেন, যখন সাগরের ঢেউ আসে তখন মনে হয় এই বুঝি শেষ। সাথে সাথে কালিমা পড়তে থাকি। আর আল্লাহর নাম জপতে থাকি।
রুবেল বলেন, দিনের বেলায় যখন সাগরে ভাসছিলাম তখন আকাশ দিয়ে একটি বিমান গেলে আমরা হেল্প হেল্প বলে চিৎকার শুরু করতাম। মনে হতো এই বুঝি আমাদের উদ্ধার করতে এসেছে। কিন্তু বিমানগুলো একটিবারও আমাদের দিকে ফিরে থাকায় নি। অজানা আতংক আমাদের আরো ভর করে।  তিনি বলেন, সাগরে ভাসা অবস্থায় আমাদের কাছে মনে হয়েছে জীবন মানে মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করা আর স্বপ্ন মানে তীরে আসা।
প্রাণে বেচে যাওয়া রুবেল বলেন, তিনদিন পর তিউনেশিয়ার জেলেরা আমাদের উদ্ধার করে সেদেশের কোস্ট গার্ডের কাছে হস্তান্তর করে। সেখানে আমাদের একটি কক্ষে নিয়ে রাখা হয়। পরে আইওএম এর মাধ্যমে দেশে ফেরার ব্যবস্থা করা হয়।
অবৈধপথে ঝুকি প্রসঙ্গে রুবেল জানান, আমার কোনো শত্রুকেও কোনো দিন অবৈধপথে ইতালি যেতে বলবো না। আল্লাহর অশেষ কৃপায় আমরা কোনো মতে প্রাণে বেঁচে এসেছি যা কল্পনাও করতে পারিনি। সাগরের প্রতিটি ঢেউ আমাদের মৃত্যুর দূত হয়ে এসেছিল। কিন্তু সকলের দোয়ায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছি। তিনি বলেন, দেশে দিন মজুর হিসেবে কাজ করে খাব। তবুও আর বিদেশের নাম মুখে নেবো না।
ডুবে যাওয়া নৌকার ব্যাপারে রুবেল জানান, আমাদের উদ্ধারের পর যাদের মৃত্যুর খবর শুনেছি তাদের সাথে আমরা অনেকেই পরিচিত। দালাল পারভেজ লিবিয়া নেওয়ার পর প্রথম ৭মাস আমাদের একটি ক্যাম্পে রাখে। পরে পাচমাস অন্য ক্যাম্পে রাখে। এসময় অনেকের সাথে পরিচয় হয়।
তিনি বলেন, যেদিন আমাদের টিমকে গেমের জন্য (যাত্রা শুরু) পাঠানো হয় সেদিন তাদেরও একই সাথে ছাড়া হয়। যাত্রাপথে তাদের সাথে আমাদের এক কিলোমিটারের দুরত্ব ছিল। একই সীমান্ত দিয়ে পাঠানো হয়। ভাগ্যক্রমে আমরা বেচে গিয়েছি।
সাগরে প্রাণহানির কথা বলতে গিয়ে কেদে ফেলেন রুবেল । তিনি বলেন, ঢেউ দেখলেই প্রাণ অর্ধেক হয়ে যায়। আর পানিতে নামলে তো ওঠার সাহস যে কেউ হারিয়ে ফেলবে। রুবেল জানান, জ্বালানী শেষ হয়ে যাওয়ায় সাগরে ভাসা অবস্থায় আমাদের নৌকা থেকে কয়েকজন নেমে সাঁতরে নৌকা সোজা করেছিলেন। না হলে ঢেউয়ে কোনদিকে নিয়ে যেতো আল্লাহ জানতেন।
রুবেল বলেন, নৌকাটিতে আমাদের সাথে কয়েকজন নারী ও শিশুও ছিল। ১০ মে সারাদিন সাগরে ভাসার পর নৌকায় পানি উঠতে শুরু করে। পরে আমাদের মধ্যে সাহসী কয়েকজন নৌকা থেকে নেমে পানি সেচতে সহযোগিতা করেন।
দেশে ফেরা রুবেল জানান, ২০১৮ সালের জুন মাসে ১০ রমজান বিশ্বনাথ উপজেলার কাঠলীপাড়া গ্রামের চমক আলীর ছেলে আদম বেপারি রফিকুল ইসলাম রফিক-এর মাধ্যমে রুবেলকে লিবিয়া পাঠানো হয়। রফিকের লিবিয়ায় থাকা তার পুত্র পারভেজের মাধ্যমে ইতালী পাঠানোর ব্যবস্থা করে। লিবিয়ার পৌঁছার আগে সাড়ে ৫ লাখ টাকা নেয় রফিক। এরপর গত ৯ মে লিবিয়া থেকে ইতালী পাঠানোর আগে তাদের কাছ থেকে আরো সাড়ে ৩ লাখ টাকা নেয় তারা। ঐ টাকাগুলো নিজের বসত ঘরের পাশের ৪ শতক জায়গা বিক্রি করে দেয়া হয়। সবমিলিয়ে ৯ লাখ টাকা দালাল রফিক ও তার ছেলে পারভেজের কাছ দেওয়া হয়।
এদিকে রুবেলের দেওয়া তথ্য মতে দেশে ফেরা পনেরো জনের মধ্যে সিলেটের ১১জন ও বাকিরা ঢাকার। সিলেটের ১১ জনের মধ্যে রয়েছেন বিশ্বনাথ পালরচক এলাকার মাছুম মিয়া, লালাবাজার এলাকার সাইদুল ইসলাম জাবের, সুনামগঞ্জের গোবিন্দগঞ্জ বালিয়াকান্দি এলাকার মতিন মিয়া, গোবিন্দগঞ্জ তাজপুর রাজবাড়ি এলাকার হান্নান মিয়া, একই এলাকার ইকবাল হোসেন, মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার বেড়ফুরি গ্রামের শাহেদ, সিলেটের বিয়ানীবাজার এলাকার শাহেদ আহমদ খান, হবিগঞ্জের সোহেল আহমদ, রাশেদ ও সজিব।
১৫ জন বাংলাদেশিসহ ৫৭ জন অভিবাসন প্রত্যাশী লিবিয়া থেকে ইতালি যেতে গত ৯ মে যাত্রা শুরু করেছিলেন। জ্বালানি শেষ হওয়ায় দু’দিন সাগরে ভাসার পর ১১ মে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ছাড়া তিউনিশয়ার উপকূলে পৌঁছায়। সেখানে তিউনিসিয়ার কোস্টগার্ড তাদের উদ্ধার করেন। ওই নৌকা থেকে উদ্ধার হওয়া ১৫ বাংলাদেশিকে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার সহায়তায় গত মঙ্গলবার দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। সেখানে এসে বিভিন্ন সংস্থার সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়েন তারা। পরে বুধবার রাত আড়াইটার দিকে সিলেটে এসে পৌছান তারা।
এদিকে সংবাদ মাধ্যমে এই দলটিকে সম্প্রতি ভূমধ্যসাগরে ডুবে যাওয়া নৌকা থেকে উদ্ধার হওয়া যাত্রী বলে প্রচার করা হলেও লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, গত ১০ মে ডুবে যাওয়া নৌকায় থাকা ১৪ জন জীবিত বাংলাদেশি এখনো তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্টের আশ্রয় শিবিরে রয়েছেন। ওই ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে এই দলটির (দেশে ফেরা ১৫ জন) খোঁজ পাওয়া যায়।

শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin