রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫২ পূর্বাহ্ন


নৌকায় ভোট চাইতে এসেছি

নৌকায় ভোট চাইতে এসেছি


শেয়ার বোতাম এখানে

সিলেটের ৪ জেলায় পৃথক মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, হাওর অঞ্চলের পর্যটন কেন্দ্র তৈরি এবং সিলেট অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার আশ্বাস

ফয়সল আহমদ মুন্না / নবীন সোহেল,
নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে সিলেটের আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে বক্তব্য দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচির কথা তুলে ধরেন। সরকারের সফলতার গল্প শুনে সেখানে উপস্থিত নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নৌকা নৌকা বলে সে­াগান দিতে শুরু করে । এ সময় প্রধানমন্ত্রী বক্তব্যে তিনি বলেছেন,

 

আবার সরকার গঠন করলে সিলেটের ৪ জেলায় পৃথক মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ উন্নয়নের প্রতীক। নৌকা বিজয়ী হলে দেশে উন্নয়ন হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হয়। কলকারখানার চাকা ঘুরে। ব্যবসা বাণিজ্য প্রসারিত হয়। মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য কাজ করি আমরা। আর বিএনপি দুর্নীতি করে। তারা দুর্নীতিতে বারবার চ্যাম্পিয়ান হয়। ধানের শীষ দুর্নীতির প্রতীক। প্রধানমন্ত্রী ভোটারদের নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, এখন আপনারা ঠিক করুন কাকে ভোট দেবেন। কাকে ক্ষমতায় আনবেন। উন্নয়নের পথে এগুবে বাংলাদেশ নাকি আবার দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হবে।

শনিবার বিকেল ৪টায় সিলেটের ঐতিহাসিক আলিয়া মাঠে নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দানকালে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনা এসময় সিলেটকে অর্থনৈতিক অঞ্চলের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে বাংলাদেশ মানে ছিলো জঙ্গিবাদ আর সন্ত্রাসের দেশ। বিএনপি মানেই পেট্টল দিয়ে মানুষ মারা, আওয়ামীলীগ মানে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করা। তিনি বলেন, নুহ নবীর আমলে মানব জাতিকে রক্ষা করেছিলো নৌকা। আর এখন বাংলাদেশের মানুষকে রক্ষা করতে নৌকা নিয়েই কাজ করছি। আসন্ন নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে জনগণের সেবা করার সুযোগ দিন। ২০০৮ সালে তাদের অপকর্মের কারণে তাদের নির্বাচিত সেনা প্রধান ও তত্ত্বাবদায়ক সরকার প্রধান তাদেরকে মামলা দিয়ে জেল কাটিয়েছে। মানুষ খুন, মানি লন্ডারিং, অস্ত্রপাচার মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী পালিয়ে বিদেশ থেকে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

৩৫ মিনিটের বক্তব্যে শেখ হাসিনা বলেন, আমি দুর্নিতি করতে আসিনি, নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে আসিনি, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে এসেছি। গত ২৯ জানুয়ারী এসেছিলাম আবারো আপনাদের কাছে এসেছি উন্নয়নের মার্কা নৌকা মার্কায় ভোট চাইতে। তিনি বলেন, সিলেটের ৪টি জেলার সার্বিক উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচী হাতে নিয়েছি। বিমান বন্দরকে আরো উন্নতিকরণ, প্রবাসীদের ব্যবসার বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে ও এ অঞ্চলের শিক্ষিত যুব সমাজকে কাজে লাগাতে সিলেটে অর্থনৈতিক অঞ্চলে পরিনত করা হবে। সিলেটের প্রতিটি শহরের জলাবদ্ধতা মুক্ত করতে বেশ কিছু পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। হাওর অঞ্চলের জন্য পর্যটন কেন্দ্র তৈরী করা, হাওরের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে বহুমাত্রীক পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। নদীগুলোর ভাঙ্গণ রোধ ও নদীর নব্যতা ফিরিয়ে আনতে অনেক কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। তারুণ্যের শক্তি ও মেধা কাজে লাগিয়ে উন্নত দেশ গড়ার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করছে।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে সিলেট আসেন। সিলেটে এসে হযরত শাজালাল (র.) মাজার, হযরত শাহপরানের (র.) মাজার ও হযরত গাজী বুরহান উদ্দিন (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন। সিলেট সার্কিট হাউজে দুপুরের খাবার শেষে ৩টা ১২ মিনিটে নগরীর আলিয়া মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় যোগ দেন। মঞ্চে উঠেই তিনি সবার উদ্দেশ্যে হাত না অভিবাদন জানান। এসময় উপস্থিত নেতাকর্মি ও সমর্থরা হাততালী দিয়ে দলীয় প্রধানকে অভিবাদন জানান। স্থানীয় ও কেন্দ্রিয় নেতাদের বক্তব্য শেষে ৪টা ২ মিনিটে বক্তব্য শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

শেখ হাসিনা তাঁর বক্তব্যে বলেন, নৌকায় ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিলেন বলেই আওয়ামী লীগের সরকার গত ১০ বছরে দেশের উন্নয়নের সাথে সিলেটেও ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। চায়ের দেশ সিলেটে কোন চায়ের মিলার ছিলো না। আওয়ামী লীগের সরকার সিলেটের শ্রীমঙ্গলে সেই মিলার স্থাপন করেছে। চা শ্রমিকদের জন্য খাদ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ তাদের জীবন মান উন্নয়নে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। সিলেটের যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। সিলেট-ঢাকা সড়ক ফোর লেনে উন্নতি করা হয়েছে। দৃষ্টিনন্দন ক্রিকেট স্টেডিয়াম হয়েছে। বিভাগের জন্য সব অবকাঠামো স্থাপন করা হয়েছে। সিলেটে প্রথম আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দর হয়েছিলো আওয়ামী লীগের আমলেই।

 

তিনি বলেন, কওমী মাদ্রাসার জন্য দাওরায়ে হাদীসকে মাষ্টার্স ডিগ্রি সমামনা করা হয়েছে। ৫৬০টি মসজিদ করা হয়েছে। নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই জানুয়ারীর ১তারিখ বিনা পয়সায় শিক্ষার্থীরা বই পাচ্ছে। ২কোটি ৪লক্ষ শিক্ষার্থী বৃত্তি ও ১কোটি শিক্ষার্থী মায়েরা উপবৃত্তি টাকার মোবাইলে পাচ্ছেন। বেকার যুবকরা বিনা জামানতে ২লক্ষ টাকা ঋণ পাচ্ছেন। শিক্ষার আধুনিক উন্নয়নে প্রতিটি স্কুলে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম করা হয়েছে। নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলে বিদ্যুৎ খাত এখন ১৬০০ মেগাওয়াট থেকে ২০হাজার মেগাওয়াটে গিয়ে দাড়িয়েছে। তিনি বলেন, আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় আসলে ২০২১ সালে দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে আলো জ্বলবে। আওয়ামী লীগ সরকার আসলে মানুষের কল্যাণ হয়। মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়। আজ দেশ খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ন। মানুষের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে চাই।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা শেখ মুজিব আমাদের একটি স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছিলেন। যুদ্ধবিদ্ধস্থ দেশকে স্বল্পন্নোত দেশ গড়েছিলেন। এবং সোনার বাংলায় রুপান্তরিত করতে কাজ শুরু করেছিলেন। কিন্তু দেশকে অর্থনৈতিক মুক্তি দেয়ার আগ মুহুর্তে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট স্বাধীনতা বিরোধীরা স্বপরিবারে হত্যা করেছিলো। আমি ও আমার বোন শেখ রেহেনা দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে যাই। তারা শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেনি, থামিয়ে দিয়েছিলো দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি। এবং দেশকে লুটেপুটে খেয়েছিলো। ২১বছর পর ক্ষমতায় আসে আবার আওয়ামী লীগ। খাদ্য, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে উন্নয়নে এবং দেশের রক্ষা ভাবমূর্তি রক্ষায় কাজ করেছিলো।

 

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বৃহত্তর সিলেটের বিভিন্ন আসনে আওয়ামী লীগ ও এর নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাদের জন্য ভোট চান জনতার কাছে। জনতাও হাত তুলে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার অঙ্গীকার করেন শেখ হাসিনার কাছে।

 

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের পরিচালনায় বিকেল ২টায় শুরু হওয়া জনসভায় বক্তব্য রাখেন, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ,

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবল হক হানিফ, জাহাঙ্গির কবির নানক, আব্দুর রহমান এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, আফম বাহা উদ্দিন নাছিম এমপি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুননেছা ইন্দিরা, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দি। আরো বক্তব্য রাখেন,সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল কবির ইমন, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাহুর রহমান, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা আবু কাওছার, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের নেত্রী নাজমা আক্তার। ভোট চেয়ে বক্তব্য রাখেন সিলেট-১ আসনের মহাজোটের প্রার্থী ড.একে আব্দুল মোমেন, সিলেট-২ আসনের মহাজোট প্রার্থী ইয়াহইয়া চৌধুরী (লাঙ্গল), সিলেট-৩ আসনের প্রার্থী মাহমুদ সামাদ কয়েছ (নৌকা), সিলেট-৪ আসনের প্রার্থী ইমরান আহমদ (নৌকা), সিলেট-৫ আসনের প্রার্থী হাফিজ মজুমদার (নৌকা)। এরআগে জনসভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ। শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন, কালেক্টর মসজিদের ইমাম ও খতিব হাফিজ মাওলানা শাহ্ আলম, গীতাপাঠ করেন, জয়ন্ত বিজয় চক্রবর্তি, ত্রীপদী পাঠ করেন, আনন্দ বিঞ্চু ও বাইবেল থেকে পাঠ করেন, দীকল শর্মা।

 

 

জনসভায় চোরের সম্মান বাচাঁতে কেদেছেন ফখরুল এমন মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ মাহবুবুল আলম হানিফ। জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, এই বাংলাদেশে চোরের দল আর ক্ষমতায় আসতে পারবে না। যারা এতিমের টাকা মেরে খায় তাদের জনগণ বয়কট করেছে। জনগণ চোর বাটপারদের প্রত্যাখান করেছে। ৩০ ডিসেম্বর শুধু নৌকা প্রতীকেই নির্বাচন হবে।
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, সিলেট থেকে বাংলা ভাইকে গ্রেফতার করা হয়েছিলো। এই সিলেটকে বিএনপি জামাত জোট জঙ্গির আস্তানা করতে চেয়েছিল। খালেদা তারেক দেশকে ধ্বংস করেছেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে সন্ত্রাসের দেশ থেকে উন্নয়নের দেশে পরিনত করেছেন। তাই ৩০ ডিসেম্বর নৌকায় ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারাবহিকতা বজায় রাখুন।

 

 

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান এমপি, শেখ হাসিনা সকল ভাল কাজ শুরু করার আগে পূণ্যভূমি সিলেটে এসে ওলি আওলিয়ার ও সিলেটবাসীর দোয়া নিয়ে যান। এবারও এসেছেন সিলেটবাসী শেখ হাসিনাকে খালি হাতে ফেরত দিবেন না। মোমেনসহ সবকটি আসনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করে ৪র্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসাবে।

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, সিলেটে এই জনস্রোত দেখে মনে হচ্ছে সিলেট থেকেই প্রমাণিত হলো নৌকার জোয়ার।

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশে যে উন্নয়ন হয়েছে। তার ধারাবাহিকতা রাখতে সিলেটের ১৯টি আসনেই শেখ হাসিনার নৌকার বিজয় নিশ্চিত হবে।

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহা উদ্দিন নাছিম এমপি তাঁর বক্তব্যে বলেছেন, যত দেশ উন্নয়নের শীর্ষে রয়েছে সেইসব দেশের একজন করে যোগ্য নেতা ছিলেন, বাংলাদেশেও জš§ নিয়েছিলেন এরকম এক নেতা। কিন্তু তাঁকে হত্যা করে থামিয়ে দিয়েছিলো দেশদ্রোহীরা। আমরা ভাগ্যমান জাতি বলেই শেখ হাসিনার মতো একজন নেতা পেয়েছি। যার নেতৃত্বে দেশ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুননেছা ইন্দিরা বলেন, বিএনপি জামাতের রাজনীতিতে দেশ পিছনে গিয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এখন উন্নয়নের শীর্ষে অবস্থান করছে। বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে মর্যাদার আসনে দাঁড়িয়েছে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা।

 

 

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দি বলেন, দারিদ্র, ক্ষুধা নির্মূল করে অভাবনীয় উন্নয়নে বাংলাদেশ এখর রোল মডেল। এর ধারাবহিকতা রক্ষা করতে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহবান জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin