রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৮ অপরাহ্ন


নৌকা পেলেন সাবেক শিবির নেতা!, সমালোচনার ঝড়

নৌকা পেলেন সাবেক শিবির নেতা!, সমালোচনার ঝড়


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ৬নং দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকার প্রতীক পেলেন ইকবাল হোসেন ইমাদ। নৌকা পাওয়ায় একদিকে ইমাদ সমর্থন গোষ্ঠী উল্লাসে মত্ত, অপরদিকে সিলেট জেলা জুড়ে বইছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জেলা, উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

তৃণমূল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, ইকবাল হোসেন ইমাদ কোম্পানীগঞ্জ ছাত্রশিবিরে ২০০৬ সালে (আংশিক) ও ২০০৭ সালে পূর্ণাঙ্গ সেক্রেটারির দায়িত্বে ছিলেন। তাঁর সময়ে সভাপতি ছিলেন আব্দুস শাকুর। ২০১৬ সাল পর্যন্ত জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। এর প্রমাণ তাঁর ফেসবুক আইডিতে ছিল কিন্তু সম্প্রতি তিনি সমালোচনার মুখে ফেসবুক আইডিটি ডি-এক্টিভ করে দেন।

নেতাকর্মীরা আরও জানান, ২০১৮ সালের দিকে আওয়ামী লীগে যোগ দেন ইমাদ। যোগদানের পর ২০১৯ সালে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটিতে সদস্যপদ লাভ করেন। মাত্র দুই বছরের মধ্যে নৌকার টিকেট পাওয়ায় স্থানীয় নেতাকর্মীরা সহজভাবে তা মেনে নিতে পারছেন না।

এর আগে দলের অভ্যন্তরীণ কাউন্সিলে ২০টি ভোটের মধ্যে ১১ ভোট পেয়ে প্রাথমিকভাবে নৌকার প্রার্থী হিসেবে এগিয়ে যান ইমাদ। জেলা আওয়ামী লীগও তাকে নৌকা দিতে কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠায়।

আওয়ামী লীগের নৌকায় ওঠার পেছনে শিবির নেতা ইমাদ নেতাকর্মীদের পেছনে মোটা অংকের টাকা ব্যয় করেছেন- এমন অভিযোগ তৃণমূলের। স্থানীয়ভাবে ইটভাটার মালিকানা থাকায় অনেক নেতার বাড়ি তৈরির জন্য তিনি বিনা পয়সায় ইটও দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল ইসলাম বলেন, একজন শিবির নেতার সঙ্গে আমরা কী করে রাজনীতি করব। ইকবাল হোসেন ইমাদ কমিটিতে এলে শুরুতে আমি প্রতিবাদ করি। তিনি অদৃশ্য শক্তির কারণে কমিটিতে থেকে যান। এখন নৌকার কাণ্ডারি হয়েছেন।

এদিকে, ইমাদকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত করার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিগত দিনে সরকার বিরোধী অপতৎপরতার বিষয়গুলো তুলে ধরছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। ২০১৪ সালে যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমকে অধ্যাপক গোলাম আযম, একটি নাম, একটি ইতিহাস- বলে আখ্যা দিয়েছিলেন ইমাদ। ২০১৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর গাজীপুরে ১৪৪ ধারা জারির বিরুদ্ধে ‘সরকারের অন্যায় সিদ্ধান্ত রুখে দেওয়ার আহ্বান জামায়াত ইসলামীর’-এমন স্ট্যাটাস দেন। এছাড়া ২০১৬ সালের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ইকবাল হোসেন ইমাদের নেতিবাচক স্ট্যাটাসও সংগ্রহে রেখেছেন ছাত্রলীগ নেতারা।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ক্ষোভ প্রকাশ করে স্ট্যাটাস দেন- ছি! ছি!! ছি!!! এ লজ্জা কার? দক্ষিণ রণিখাইয়ে কি নেই কোনো আওয়ামীলীগার? শিবিরের সাবেক উপজেলা সেক্রেটারি নৌকার প্রার্থী! এ দায় কার আর কেনো?

ইমাদকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্তের পর যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ দেওয়ান তার ফেসবুকে লেখেন- এত এত সুস্পষ্ট অভিযোগ থাকার পরও নৌকা পেলো শিবিরের সাবেক সেক্রেটারি ইকবাল হোসেন ইমাদ। সে চেয়ারম্যান হোক বা এমপি, তাতে আমার কিছ্ছু আসে যায় না। আমি তাকে চিনি শিবিরের সেক্রেটারি হিসেবে, সারা জীবন তাই জানবো।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পাড়ুয়া বটেতল গ্রামের বাসিন্দা জাহিদ দেওয়ান ক্ষোভ প্রকাশ করে স্ট্যাটাসে আরও লিখেছেন, কোম্পানীগঞ্জের সবাই জানে, তবুও নীরব। জানি না কোন কারণে সমাজে এই নীতিনৈতিকতার অবক্ষয়। অনেকে ম্যাসেজ করেছেন, কি হলো প্রতিবাদ করে, আমি মেনে নিতে পারিনি, তাই প্রতিবাদ করেছি। সারা জীবন করে যাবো-বলতে পারবো-এটা আমার ব্যক্তিত্ব (ইগো)।

সিলেট মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গোলাম হাসান চৌধুরী সাজন ও জেলা যুবলীগ নেতা রেজাউল ইসলাম রেজা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দেন- তৃণমূল আওয়ামী লীগে পচন ধরেছে। টাকায় বিবেক বিক্রি হচ্ছে। সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্র শিবিরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন ইমাদ দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। ইমাদ ২০০৬-০৭ সেশনে কোম্পানীগঞ্জ ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারি ছিলেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তারা।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খলিলুর রহমান বলেন, ইমাদ কোম্পানীগঞ্জ ইসলামী ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারি ছিল। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের ম্যানেজ করেই দলের মনোনয়ন পেয়েছে।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান বলেন, ইমাদের বিরুদ্ধে শিবির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ শুনেছি। ইমাদ যখন আওয়ামী লীগের কমিটিতে এলেন তখন কোনো অভিযোগ উঠেনি। এখন অভিযোগ তোলা হলেও কেউ কোনো প্রমাণ দিচ্ছে না। ফেসবুকের কয়েকটি স্ক্রিনশট তো কোনো প্রমাণ হতে পারে না। তাছাড়া প্রার্থী বাছাই নিয়ে বৈঠকে তিনি তৃণমূলের সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন। কেন্দ্রীয় নেতারাও নিশ্চয়ই তার বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো প্রমাণ পাননি। তাই মনোনয়ন দিয়েছেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin