বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন


পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি ইসরাইল আলী সাদেকের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি ইসরাইল আলী সাদেকের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, সফল রাষ্ট্রনায়ক, মাদার অব হিউম্যানিটি, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সফল পররাষ্ট্রনীতি এবং বর্তমান সরকারের গৃহীত চলমান উন্নয়নের অংশ হিসেবে সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ছয়লেনের কাজ শুরু হয়েছে। সম্প্রতি সিলেট বিমানবন্দর-বাদাঘাট-কুমারগাঁও চারলেন সড়ক প্রকল্পটিও একনেকে পাশ হয়েছে। সিলেট মহানগরীতেও একের পর এক বাস্তাবায়িত হচ্ছে উন্নয়ন প্রকল্প। সিলেটের উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখায় গত ২৯ ডিসেম্বর সিলেট ঐতিহাসিক রেজিস্ট্রারি মাঠে সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, আলোকিত-উন্নত সিলেটের স্বপ্নদ্রষ্টা ড. এ কে আবদুল মোমেনকে নাগরিক সংবর্ধনা দেয় সিলেট সিটি করপোরেশন।

ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ইসরাইল আলী সাদেকের (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন-বিএনএ, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখা) নেতৃত্বে সিলেটের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কয়েক হাজার নার্সিং কর্মকর্তা ও নার্সিং শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

তদের এই বর্ণাঢ্য অংশগ্রহণের বিষয়টি চোখ এড়ায়নি গণপ্রজান্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেটের কৃতিসন্তান ড. এ কে আবদুল মোমেনর। নাগরিক সংবর্ধনায় তাদের অংশগ্রহণের জন্য তিনি তাদের কাছে ধন্যবাদ পত্র পাঠিয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি ২০২২) সকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা শফিউল আলম জুয়েল ধন্যবাদপত্রটি তাদের কাছে হস্তান্তর করেছেন।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন-বিএনএ, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখার সাধারণ সম্পাদক ইসরাইল আলী সাদেক বলেন, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই ধন্যবাদপত্রটি আমাদের কাছে অনেক মূল্যবান। আমি মনেকরি মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই ধন্যবাদপত্রটি বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কাজে আমাদের সম্পৃক্ততার একটি স্মারকপত্র। এই সম্মান শুধু সিলেটের নার্সিং সমাজের নয়, সারাদেশের নার্সিং কর্মকর্তা ও নার্সিং শিক্ষার্থীদের। আমাদের মতো নার্সিং কর্মকর্তা ও নার্সিং শিক্ষার্থীদের এভাবে সম্মানিত করায় মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন স্যারের প্রতি সিলেট বিভাগের সকল নার্সিং কর্মকর্তা ও নার্সিং শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

তিনি আরো বলেন, একটি কথা না বললেই নয় যে, শুধু স্যার নয়, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন স্যারের সুযোগ্য সহধর্মিনী সেলিনা মোমেন ম্যাডামও একজন মানবিক মানুষ। কোভিডকালীন সময়ে তিনি নিজের সুরক্ষার কথা চিন্তা না করে সিলেটে এসে সাধারণ মানুষের কাছে ছুটে গেছেন। মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন খাদ্য সহায়তা। তাঁর বক্তব্য ছিল, ‘ভোটের সময় মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছি, কোভিডের এই দু:সময়ে মানুষের পাশে না থাকলে তা হবে হটকারিতা’।

তিনি বলেন, করোনার দুঃসময়েও তিনি সিলেটের নার্সিং কর্মকর্তাদের ভুলেননি। কোভিড সংক্রমণের শুরুতে তিনি সিলেটের নার্সিং কর্মকর্তাদের জন্য সুরক্ষা সামগ্রী পাঠান। কোভিডকালীন সময় ঈদের দিন নার্সিং কর্মকর্তাদের জন্য তিনি ফলমূলসহ নানা উপহার পাঠিয়েছেন।

সিলেটের প্রথম কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল ‘শহিদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল’-এর নার্সিং কর্মকর্তা রুহুল আমিন (কোডিভ আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া প্রথম পুরুষ নার্সিং কর্মকর্তা) মারা গেলে তার পরিবারের পাশে দাঁড়ান সেলিনা মোমেন ম্যাডাম। রুহুল আমিন ভাইয়ের পরিবারকে নগদ ২ লাখ টাকা, তিন মাসের খাবার ও তার একমাত্র ছেলের পড়ালেখার ব্যবস্থা করেন তিনি। আল্লাহ যেন মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন স্যার ও উনার সহধর্মিনী সেলিনা মোমেন ম্যাডামকে দীর্ঘায়ূ ও সুস্থতা দান করেন- সেই কামনা করি। একই সাথে আগামীতেও মানীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন স্যারের ডাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের যে কোন উন্নয়ন কাজে আমরা বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন ও নার্সিং শিক্ষার্থীরা অংশ নিতে প্রস্তুত আছি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin