বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:০১ অপরাহ্ন



পর্দা নারীর বন্দীদশা নয়

পর্দা নারীর বন্দীদশা নয়


মাহমুদ আহমদ:

দু’দিন আগে মাদ্রাসাপড়ুয়া ছেলের সঙ্গে বোরকা পরা মায়ের ক্রিকেট খেলার ছবিটি দ্য ডেইলি স্টারে ছাপা হলে ছবিটি ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। যদিও মা-ছেলের খেলার এমন দৃশ্য একটি স্বাভাবিক বিষয় আর সন্তানের প্রতি মায়ের স্নেহ ভালোবাসার নির্মল সম্পর্কেরই বহিঃপ্রকাশ। বোরকা পরে একজন নারী খেলছেন আর তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পক্ষে বিপক্ষে অনেক আলোচনা লক্ষ্য করছি।

আসলে অনেকেই পর্দা প্রথাকে নারীর বন্দীদশা বলে সমালোচনা করেন। কিন্তু ইসলামি পর্দার অর্থ নারীকে গৃহকোণে অবরোধবাসিনী করে রাখা নয়। কবি কাজী নজরুল ইসলাম যথার্থ গেয়েছেন-
‘বলে না কুরআন, বলে না হাদিস, ইসলামি ইতিহাস,
নারী নর দাসী বন্দিনী রবে হেরেমেতে বার মাস।’
ঠিক তাই। সীমা, সময়, ক্ষেত্র ও নিয়মের মধ্যে থেকে একজন নারী প্রয়োজনে বিভিন্ন স্থানে যেতে পারে, কাজ করতে পারে এবং পুরুষের সাথে কথাবার্তা বলতে পারে। শুধুমাত্র নিজের শালীনতা, পবিত্রতা, সম্ভ্রম, মান-মর্যাদা ও অধিকার বজায় রাখার জন্য তার স্বাধীন চলাফেরার ওপর নির্ধারিত পদ্ধতি দেয়া হয়েছে। আমরা সুসভ্য মানুষ হিসেবে পরিচিত হতে দেহের শালীনতা বজায় রাখার জন্য কাপড় পরিধান করি। নারীর অধিক শালীনতা বজায় রাখার প্রয়োজনেই পর্দার প্রয়োজন হয়।

নারীর জয়যাত্রা এখন সর্বত্রই। কোথায় নেই নারীর পদচারণা। নারী তার আপন মেধা-যোগ্যতায় স্থান করে নিচ্ছে সাফল্যের সর্বোচ্চ শিখরে। ইসলামের ইতিহাস আলোকপাত করলে দেখা যায়, ইসলামের প্রথম যুগে আরবের মহিলারা পর্দা-প্রথা পালনের মাধ্যমে জ্ঞান অর্জনে পন্ডিত ও কবি হিসেবে সুখ্যাতি লাভ করেন।

মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সহধর্মিণী হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা শিক্ষা ও সাহসের জন্য বিখ্যাত ছিলেন। হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে ছয় বা সাত জন সাহাবাকে জ্ঞানের প্রথম শ্রেণিতে গণ্য করতেন তাদের মধ্যে বিবি আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা ছিলেন অন্যতম। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার অসাধারণ জ্ঞানের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, ‘তোমরা ইসলামের অর্ধেক জ্ঞান বিবি আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার নিকট শিক্ষা করবে।’ হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার বাগ্মিতা সম্পর্কে আমির মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন- ‘আমি আয়েশার তুলনায় অধিকতর মার্জিত কোন বক্তার বক্তৃতা কখনও শুনিনি।’

ইসলামের প্রাথমিক যুগে আরব দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে মুসলমান মহিলারা পর্দা রক্ষা করে জমিতে চাষাবাদ, পশুপালন এবং ব্যবসা-বাণিজ্য করেছেন। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পত্নী হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা যুদ্ধের সময় যুদ্ধ পরিচালনা করেছেন। প্রিয়তমা কন্যা হজরত ফাতেমা রাদিয়াল্লাহু আনহা মুসলিম যোদ্ধাহতদের সেবা-শুশ্রূষা করেছেন।

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা ও হজরত উম্মে সালমা রাদিয়াল্লাহু আনহা ওহুদ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ফুফু হজরত সুফিয়া বিনতে আবদিল মুত্তালিব রাদিয়াল্লাহু আনহা খায়বর যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। উম্মুল খায়ের, জুরকা বিনতে আদি, ইকরামা বিনতে আতরাশ ও উম্মে সিনান অসংখ্য যুদ্ধে প্রতিরক্ষামূলক কাজে সহযোগিতা করেন। উম্মে আতিয়া আনসারি রাদিয়াল্লাহু আনহা মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে সাতটি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। উমাইয়া বিনতে কায়েস কিফারিয়া খায়বর যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। উম্মে হাকিম বিনতে হারিস রোমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কন্যা হজরত ফাতিমা রাদিয়াল্লাহু আনহা, দৌহীত্র-কন্যা সাকিনা খাতুন, হজরত আলীর কন্যা যারকা, ইয়াযিদ আনসারির কন্যা আসমা ও নজদের অধিবাসী খান্সাসহ বহু আরব মহিলা কবি, বক্তা, পন্ডিত ও জ্ঞানী হিসেবে দেশে সুনাম অর্জন করেছিলেন। তথাকথিত আরব সংস্কৃতিতে সেই নারী সমাজের অবদান অসাধারণ ছিল। বিশ্ব দরবারে মুসলমান জাতির জ্ঞান-বিজ্ঞানের উন্নয়নে মুসলমান নারী সমাজের অবদান অবিস্মরণীয়।

হারুন অর রশিদের সময়ে আরব রমণীগণ অশ্ব পৃষ্ঠে আরোহণ করে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতেন। মুসলিম মহিলারা জ্ঞান-বিজ্ঞানে লব্ধ-জ্ঞান পুরুষের পাশাপাশি কর্ম-ক্ষেত্রে প্রয়োগে নিজেদের কৃতিত্বের গৌরবোজ্জ্বল স্বাক্ষর রেখেছেন।
উম্মে আম্মারা রাদিয়াল্লাহু আনহু উহুদের যুদ্ধে দৃঢ়তা ও সাহসিকতার যে পরিচয় দিয়েছেন, ইতিহাসে তা চিরকাল ভাস্বর হয়ে থাকবে। যুদ্ধের একপর্যায়ে কাফেররা মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে অস্ত্রশস্ত্রসহ ঘেরাও করে ফেললে উম্মে আম্মারা তরবারি হাতে সিংহের মতো শত্রুর ব্যূহ ভেদ করে সামনে এগিয়ে যান। শত্রুর তরবারি থেকে মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে রক্ষার জন্য বীরদর্পে অস্ত্র চালনা করেন। রণক্ষেত্রে তার বীরত্ব ও সাহসিকতার পরিচয় দিতে গিয়ে স্বয়ং মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ডানে-বাঁয়ে যেদিকে তাকিয়েছি, উম্মে আম্মারাকে আমি আমার চারপাশে যুদ্ধ করতে দেখেছি।

মুসাইলামার বিরুদ্ধে যে সৈন্য বাহিনী প্রেরিত হয়েছিল তার অন্যতম যোদ্ধা ছিল হজরত নাসিবা রাদিয়াল্লাহু আনহা। তিনি তার পুত্র হাবিব বিন জায়েদকে নিয়ে এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। যুদ্ধের একপর্যায়ে অত্যন্ত মর্মান্তিকভাবে মুসাইলামাতুল কাজ্জাব তার প্রিয় পুত্রকে শহীদ করে। এরপর নাসিবা রাদিয়াল্লাহু আনহা শপথ করেন যে মুসাইলামা জীবিত থাকতে তিনি গোসলের পানি স্পর্শ করবেন না। সে যুদ্ধে তিনি অসামান্য বীরত্ব প্রদর্শন করেন। যুদ্ধ শেষে যখন ফিরে আসেন তখন তার শরীরে তরবারি ও বর্শার বারোটি আঘাত ছিল। এমনকি এ যুদ্ধে তিনি একটি হাতও হারান।’ (উসদুল গাবাহ)

মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে পর্দা পালন করে শুধু মহিলা সাহাবিরা হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে যুদ্ধেই যেতেন না বরং বিভিন্ন কাজে অংশ নিতেন। মুজাহিদদের পানি পান করাতেন, তাদের সেবা-শুশ্রƒষা করতেন, যুদ্ধে নিহত ও আহত ব্যক্তিদের মদিনায় পৌঁছানোর কাজে সাহায্য করতেন। আহতদের ক্ষতস্থান ব্যান্ডেজ করে দিতেন এবং অসুস্থদের চিকিৎসা ও সেবা করতেন।

তাই কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছেন-
‘কোনো কালে একা হয়নি ক’জয়ী পুরুষের তরবারি
প্রেরণা দিয়াছে, শক্তি দিয়াছে, বিজয়লক্ষ্মী নারী।’

আসলে মুসলিম জাতির গৌরবের দিনে পর্দা-প্রথা মুসলমান নারীদের বিভিন্ন কর্মে কখনই প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেনি। সেই শিক্ষারই বাস্তব দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করলেন ঝর্ণা আক্তার। ছেলের সাথে বোরখা পরে ক্রিকেট খেলে তিনিও বুঝালেন পর্দা কখনই নারীর বন্দীদশার কারণ হতে পারে না।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin