রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৩:২১ অপরাহ্ন


পহেলা বৈশাখকে ঘিরে সিলেটে কঠোর নিরাপত্তা

পহেলা বৈশাখকে ঘিরে সিলেটে কঠোর নিরাপত্তা


শেয়ার বোতাম এখানে

এমদাদুল হক মান্না: পহেলা বৈশাখ। বাঙালি সংস্কৃতির অনন্য এক উৎসব। বাংলা নতুন বছর ১৪২৬ শুরু হতে বাকি আর মাত্র এক সপ্তাহ। শুধু সংস্কৃতি নয়, এই উৎসবকে ঘিরে ব্যস্ততা বেড়েছে নগরীতে। পহেলা বৈশাখকে ঘিরে চলছে সিলেটে জমজমাট প্রস্তুতি। গোটা পুলিশ প্রশাসনও ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। বাঙালির আবহমান সংস্কৃতির এ উৎসবকে নির্বিঘœ ও নিরবিচ্ছিন্ন করতে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তামূলক প্রস্তুতি গ্রহণ করছে সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি)।

 

জানা গেছে, বাঙালীর প্রাণের উৎসব কেন্দ্রে করে সিলেট মহানগর জুড়ে মানুষের ঢল নামবে। মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা হবে নগরজুড়ে। এসব অনুষ্ঠানস্থলকে নিরাপদ রাখতে বিশেষ পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। সে অনুযায়ী নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ প্রশাসন। নিরাপত্তার ব্যাপারে সামান্যতম ছাড় দিতেও নারাজ পুলিশ। পুরো নগরীর সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে পুলিশ সদস্যরা। পহেলা বৈশাখের আনন্দ আয়োজনকে নিরাপদ রাখতে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-৯ এর সদস্যরা পোষাকে ও সাদাপোষাকে দায়িত্ব পালন করবেন। র‌্যাবের একাধিক ভ্রাম্যমাণ দল মোবাইল ডিউটিতে থাকবে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে বোমা ডিস্ফোজাল ইউনিটকেও।

 

জেলা পুলিশ সুত্র জানায়, পহেলা বৈশাখে সিলেট জেলার সর্বত্র থাকবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। উপজেলার প্রতিটি মোড়ে মোড়ে, গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে, গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে পুলিশ। একইসাথে র‌্যাব ও গোয়েন্দা সদস্যরাও পুলিশের সাথে কাজ করবে। পোশাকধারী পুলিশের সাথে সাথে সাদা পোশাকের পুলিশ ও গোয়েন্দা সদস্যরা নগরীতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কাজ করবেন। এক্ষেত্রে মঙ্গল শোভাযাত্রা, জনসমাগমস্থল, বৈশাখী মেলাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন করবেন পুলিশ ও গোয়েন্দা সদস্যরা।

 

এদিকে পহেলা বৈশাখে ভুভুজেলা বাজানো, মোটরসাইকেলে দলবদ্ধভাবে হর্ণ বাজিয়ে জনবিরক্তি সৃষ্টি, খোলা ট্রাকে শহরজুড়ে বাদ্য বাজিয়ে প্রদক্ষিণ এসব কাজকে নিষিদ্ধ করেছে জেলা প্রশাসন। ইভটিজিং করা যাবে না। এ বিষয়টি দেখার জন্য সাদা পোশাকে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সদস্যরা থাকবেন। মাদক নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ফেসবুক, টুইটারের যেন কেউ অপব্যবহার করতে না পারে, সে বিষয়ে মনিটর্রিং করা হবে।
সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা বলেন, পহেলা বৈশাখকে ঘিরে পুলিশ বিশেষ পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে। ইতিমধ্যেই সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী গোয়েন্দা সদস্যরা কাজ শুরু করে দিয়েছেন। নগরীতে গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানমালায় পুলিশ বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সব কয়টি মঙ্গল শোভাযাত্রার সামনে-পেছনে থাকবে পুলিশের নিরাপত্তা। কবি নজরুল অডিটোরিয়াম, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়, এমসি কলেজ, সরকারি কলেজ, শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজ, মিরাবাজারে উদীচীর অনুষ্ঠানসহ সকল বৈশাখী অনুষ্ঠানে নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করবে পুলিশ। তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখে মানুষ আনন্দে মাতবে। কিন্তু আনন্দের মধ্যে কোনো ধরনের উচ্ছৃঙ্খল কর্মকান্ড বা নিরাপত্তায় বিঘ্ন ঘটায় এমন কর্মকান্ড চললে সেটা প্রতিহত করা হবে। মানুষের জানমালের নিরাপত্তায় নববর্ষে পুলিশ কাজ করবে। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

 

জেলা পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান জানান, সিলেট জেলায় সর্বত্র থাকবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। উপজেলার প্রতিটি মোড়ে মোড়ে, গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে, গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে পুলিশ। একইসাথে র‌্যাব ও গোয়েন্দা সদস্যরাও পুলিশের সাথে কাজ করবে। পোশাকধারী পুলিশের সাথে সাথে সাদা পোশাকের পুলিশ ও গোয়েন্দা সদস্যরা নগরীতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কাজ করবেন। যে কোনও ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দক্ষ ও তৎপর থাকবে।

 

এদিকে রঙ নিয়ে কোনো ধরনের বাড়াবাড়ি বরদাশত করা হবে না বলে জানিয়েছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম। তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখে অপসংস্কৃতির চর্চা করা যাবেনা এ ধরনের কাজে কাউকে দেখা গেলে সাথে সাথে আটক করা হবে। বৈশাখের আনন্দের মধ্যে কোনো ধরনের উচ্ছৃঙ্খল কর্মকান্ড চলতে দেয়া হবে না বলেও হুশিয়ারি করেন তিনি। নববর্ষের অনুষ্ঠান নিরাপদ ও আনন্দময় করতে সকল নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin