শনিবার, ১৯ Jun ২০২১, ০৬:১২ অপরাহ্ন

পানির তীব্র সংকটে অতিষ্ঠ নগরবাসী

পানির তীব্র সংকটে অতিষ্ঠ নগরবাসী


শেয়ার বোতাম এখানে

জনদুর্ভোগে নগরবাসী
প্রতিদিন ৪ কোটি লিটার চাহিদা
সিসিক বলছে ঘাটতি নেই

সুমন ইসলাম :

পানি জীবন ধারনের এক অপরিহার্য উপাদান। বিশুদ্ধ পানি ছাড়া বিশেষ করে মানবজীবন কল্পনা করা যায় না। শঙ্কার বিষয় হলো পবিত্র রমজান মাসে প্রচন্ড দাবদাহে সিলেট নগরজুড়ে তীব্র পানি সংকট দেখা গিয়েছে। স্তর নেমে যাওয়ায় নগরীর বেশিরভাগ টিউবওয়েলে পানি উঠছে না। নগরীর বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার কোলোনীতে এ অবস্থা আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ভোক্তভোগীরা অভিযোগ করছেন, পানির চাহিদানুযায়ী সরবরাহ করতে না সিসিক। তবে সিসিক কর্তৃপক্ষ বলছে নগরে পানির কোনো ঘাটতি নেই।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের তথ্য মতে, সিলেট নগরে প্রতিদিন চাহিদা ৪ কোটি লিটার পানি। রমজান মাস উপলক্ষ্যে ভ্রাম্যমাণ গাড়ী দিয়ে নগরীতে ইফতারের আগমুহুর্ত প্রায় ২ হাজার লিটার পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে রমজান মাসে পানি সংকটের কথা স্বীকার করে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে মানুষের কাছে বিশুদ্ধ পানি পৌছে দিতে সিসিকের বিশেষ ব্যবস্থা হচ্ছে ভ্রাম্যমান গাড়ী। তবে ভূক্তভোগীদের অভিযোগ, তারা পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পাচ্ছেন না। সীমিত পানি সিসিক সরবরাহ করতেছে যাহা দৈনন্দিন জীবনে খুবই অপ্রতুল্য।

জানা গেছে, নগরীর বিভিন্ন এলাকায় প্রতিবছরই ১ মিটার পানির স্তর নীচে নেমে যাচ্ছে। ফলে বিভিন্ন টিউবওয়েলে পানি উঠছে না। যার কারণে নগরবাসীর পানির ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। তারপরও সিসিক সিলেটে প্রতিদিন ৪ কোটি লিটার পানি চাহিদার যোগান দিয়ে যাচ্ছে। সিটি কর্পোরেশনের ৫৫ হাজার ৫৬৭টি হাউজহোল সাপ্লাই পানির লাইন সংযোগ রয়েছে। এতে সর্বাত্মকভাবে পানি সরবরাহ করার চেষ্টা করে যাচ্ছে সিসিক এবং আরও ৪১টি সচল পাম্প রয়েছে। এগুলো থেকেও বাড়তি যোগান দেওয়া হচ্ছে সিসিকের বিভিন্ন এলাকায়। তবুও পানির জন্য হাহাকার যেন থামছে না।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, নগরের ছাড়ারপাড়, শেখঘাট, বালুচর, ভাতালিয়া, ঘাসিটুলা, যতরপুর, বাগবাড়িসহ নগরের অধিকংশ এলাকার টিউবওয়ল গুলোতে পানি উঠছে না। এসব এলাকায় সিকিকের ৪১ টি বিশেষ পাম্প হাউজ দিয়ে প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৯টায়, দুপুর ২ টায় এবং রাত ৮ টায় সাপ্লাইয়ের পানি সরবারাহ করা হচ্ছে। সরবরাহকৃত পানি নেওয়ার জন্য নারী পুরুষ লাইন ধরে থাকেন। এছাড়া ভ্রাম্যমান গাড়ি দিয়ে প্রতিদিন ইফতারের পূর্ব মূহুর্তে পানি সরবরাহ করছে সিসিক।

তবে নগরের ২৭ টি ওয়ার্ড ঘুরে কিছু ওয়ার্ডে ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ দেখা যায়, নগরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডে, এখানে ১২ টি ভিন্ন ভিন্ন পয়েন্টে টিউবওয়েল স্থাপন করে, সামার্সিয়াল মোটর দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে ৪ /৫ টি টেপ দিয়ে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। প্রতিটি স্থানেই একটি নির্দেশনা লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং ওয়ার্ডবাসী কখন পানি নিতে পারবেন তা উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিকন্দর আলী বলেন, পানির স্তর দিন দিন নিচে নেমে যাওয়ায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় পানির সমস্যা দেখা দিয়েছে। মানুষের পানি চাহিদা পুরন করতে সিসিক সাধ্যমত চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবুও সমস্যা সমাধান হচ্ছে না। ওয়ার্ডবাসীর এমন দূর্ভোগে ব্যাক্তিগত উদ্যোগে ওয়াডের্র ১২ টি টিউবওয়েল স্থাপন করে সামার্সিয়াল মোটর লাগিয়ে দিয়েছি এতে করে ওয়ার্ডের জনগণের পানির চাহিদা অনেকটা পুরন হচ্ছে। তাদেরকে সাপ্ল¬াইর পানির উপর নির্ভর থাকতে হচ্ছে না। জনগনে আমাদেরকে তাঁদেরকে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার জন্যই নির্বাচিত করেছে সুতরাং তাদের সুবিধা অসুবিধা আমাদেরই দেখতে হবে, এ ক্ষেত্রেও যদি প্রত্যেক কাউন্সিলর আমার মতো উদ্যোগ গ্রহণ করেন তাহলে সিসিক এরিয়ায় পানির সমস্যা অনেকটা সমাধান হবে বলে তিনি মনে করেন।

নগরীর ১২নং ওয়ার্ড শেখঘাটের বাসিন্দা খালেদ আহমদ জানান, রমজানে পানির ভোগান্তি অস্থির করে তুলছে। টিবওয়েলে উঠছে না পানি, ফলে নির্ভর থাকতে হচ্ছে সাপ্লাই এর পানির উপর। এ যেন আরো বড় ভোগান্তি। স্থানীয় কাউন্সিলরের নেতৃত্বে বিশেষভাবে শেখঘাট পয়েন্টে পানি সরবরাহ করছে সিসিক। বাসাতে পানির লাইন না থাকায় শেখঘাটে লাইন ধরে পানি আনতে হয় একদিকে তীব্র গরম অন্যদিকে লাইনে দাঁড়িয়ে সীমিত পানি অতিষ্ঠকর হয়ে উঠছে।
শিবগঞ্জ এলাকার সাহা চৌধুরী বলেন, তার এলাকায় টিবওয়েলে পানি ওঠেনা। গভীর রাতে যেটুকু ওঠে তা দিয়ে চাহিদা পূরণ হয় না। তিনি বলেন, সাপ্লাই যে পানি সরবরাহ করে তাও অপ্রতুল্য।

১০নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক শাহিদা জামান বলেন, পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ার কারণে আমাদের বাসার ডিউব টিউবওয়েলে বেশ কিছুদিন ধরে পানি উঠছেনা। পরে টিউবওয়েলে বিশেষ একটি যন্ত্র বসানোর পর একটু পানি পাওয়া যাচ্ছে।
কাষ্টঘর এলাকার বাসিন্দা দক্ষিণ সুরমা কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক সুভাষ চন্দ্র সাহা বলেন, পানির স্তর নীচে নেমে যাওয়ায় তীব্র সংকটে ভোগছে মানুষ। বিশেষ করে কাষ্টঘর এলাকার কলোনীগুলোতে পানির জন্য হাহাকার দেখা দিচ্ছে।

এ বিষয়ে সিসিকের পানি বিভাগের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ শুভ প্রতিদিনকে জানান, নগরে পানির কিছুটা ঘাটতি থাকতে পারে তারপরও সিসিক সিলেটে প্রতিদিন বিশেষ ব্যবস্থায় নগরবাসীর পানি চাহিদার যোগান দিয়ে যাচ্ছে। তবে অনেক সময় বৈদ্যুতিক ত্রুটি ও যান্ত্রিক ত্রুটি থাকার কারণে সাময়িক ব্যহত হচ্ছে পানি সরবরাহের কাজ।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin