বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন


পাহাড়ি ঝর্ণা ‘পান্তুমাই’

পাহাড়ি ঝর্ণা ‘পান্তুমাই’


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ:

সবুজেঘেরা উঁচু পাহাড়ের ঢালু বেয়ে গড়িয়ে পড়ছে জলরাশি। দূর থেকে দেখলে মনে হবে এ যেন দুধের নহর। সবুজের বুকে স্বচ্ছ জলের এমন ছন্দ-মিলনের দেখা মেলে পন্তুমাই জলপ্রপাতে। এ ঝর্ণাধারাটি সিলেটের গোয়াইনঘাটে অবস্থিত।

গোয়াইনঘাট উপজেলার ২ নম্বর পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের পান্তুমাই গ্রাম। গ্রামটি ভারতের জৈন্তা-খাসিয়া পাহাড়ের পাদদেশে। গ্রামের একপ্রান্তে এ ঝর্ণাধারা। তাই গ্রামের নামে ঝর্ণার নাম পান্তুমাই। সীমান্তবর্তী পান্তুমাইয়ের বিপরীতে ভারতের ননথুমাই গ্রাম। উভয়গ্রামই খাসিয়া অধ্যুষিত। জৈন্তা-খাসিয়া পাহাড়ে এ ঝর্ণার উৎপত্তি। প্রায় পাঁচ থেকে ছয় শ’ ফুট উঁচু পাহাড়ের ঢালু বেয়ে নেমে আসা এ জলরাশি জাফলংয়ের পিয়াইন নদীতে পড়ছে। ঝর্ণার জল পড়ে পানথুমাই এলাকায় একটি লেকের সৃষ্টি হয়েছে। স্বচ্ছ জলের এ লেকটি দীর্ঘ। পর্যটকরা সেই লেকের জলে গা ভিজিয়ে আনন্দ উপভোগ করেন, পথ হারা পথিকের মতো ক্ষণিকের জন্য নিজেকে হারিয়ে ফেলেন।

পান্তুমাই আমাদের প্রতিবেশী ভারতের মেঘালয়ের গহীন অরণ্যের কোল ঘেঁষে বাংলাদেশের বুকে নেমে এসেছে অপরূপ সুন্দর এক ঝর্ণাধারা। ঝর্ণাটি প্রতিবেশী দেশ ভারতের মধ্যে পড়লেও পিয়াইন নদীর পাড়ে দাঁড়িয়ে খুব কাছ থেকে উপভোগ করা যায় ঝর্ণাটি। সীমান্তের কাছাকাছি না গিয়েও ঝর্ণাটির সৌন্দর্য্য উপভোগ করা যায়। ঝর্ণাটির স্থানীয় নাম ফাটাছড়ির ঝর্ণা, কেউ কেউ একে ডাকেন বড়হিল ঝরনা বলে। পান্তুমাই গ্রামকে যদিও অনেকে “পাংথুমাই” বলে ডাকে কিন্তু এর সঠিক উচ্চারণ “পান্তুমাই”।

সবুজে আচ্ছাদিত পাহাড়ীঝর্ণা, পাখির কলকাকলি, খাসিয়াদের জীবনধারা এসব কিছুই পান্তুমাই আসা পর্যটকের দৃষ্টি কাড়বে। পানথুমাইয়ে সবুজ পাহাড় আর জলের মিতালি ছাড়াও সমতলে বিরাট খেলার মাঠ রয়েছে। বাতাসে কান পাতলে ঝর্ণার শো শো শব্দের সঙ্গে রাখালী বাঁশির সুরও শুনতে পাওয়া যায়।

পান্তুমাই ঝর্ণার সৌন্দর্য উপভোগের জন্য পর্যটকটদের সীমান্তের ওপারে পা রাখতে হবে না। এলাকাটি সমতল হওয়াতে মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতের মতো মৃত্যুঝুঁকির আশঙ্কা নেই। বাংলাদেশ সীমান্তে নিরাপদে দাঁড়িয়ে বা ঘুরে-ফিরে পান্তুমাইয়ের রূপ-লাবণ্য উপভোগ করা যাবে। পান্তুমাইয়ের এ ঝর্ণাধারাটির স্থানীয় নাম মায়ামতি বা ফাঁটাছড়া।

সিলেট শহর থেকে পান্তুমাইয়ের দূরত্ব প্রায় ৪৫ কিলোমিটার। সিলেট শহরের আম্বরখানা থেকে প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসে যাওয়া যাবে। মাইক্রোবাস ভাড়া পড়বে যাতায়াত দুই হাজার টাকা। পান্তুমাই যাতায়াতের রাস্তা দুটি। জৈন্তাপুর উপজেলার সারিঘাট হয়ে বা গোয়াইনঘাট উপজেলার সালুটিকর দিয়ে পন্তুমাই যাওয়া যাবে। গোয়াইনঘাট কলেজ পেরিয়ে পান্তুমাই রাস্তা। সবুজ গাছগাছালীতে আচ্ছাদিত এ রাস্তাটি প্রকৃতিপ্রেমিদের মন ছুঁয়ে যায়। আঁকাবাকা এ রাস্তাদিয়ে সরাসরি পান্তুমাই ঝর্ণার পাশে যাওয়া যায়। সিলেট থেকে পান্তুমাই যেতে সময় লাগবে সর্বোচ্চ সোয়াঘন্টা।

পর্যটন সম্ভাবনায় গোয়াইনঘাট এগিয়ে চলেছে। একে একে খুলছে সম্ভাবনার দ্বার। প্রকৃতিকন্যা জাফলং, মিঠাপানির রাতারগুল আর সম্প্রতি পরিচিত হয়ে ওঠা পান্তুমাই জলপ্রপাত সবগুলোই প্রায় কাছাকাছি অবস্থিত। এ পর্যটন কেন্দ্রগুলো ভ্রমণ-পিপাসুদের বড়বেশি কাছে টানে বিলিয়ে দিতে তার রূপ-সৌন্দর্য।

সম্প্রতি পরিচিত হওয়া পান্তুমাই জলপ্রপাত পর্যটকদের সবচেয়ে বেশি আকর্ষণ করছে। জৈন্তা-খাসিয়া পাহাড়ের পাদদেশে সমতল অংশে পান্তুমাই গ্রাম। হাঁটাচলার প্রচুর সুবিধা, সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে পর্যটকদের কাছে এলাকাটি পছন্দের স্থান হয়ে ওঠেছে। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শণার্থীর পদচারণায় মুখর থাকে এ পর্যটন কেন্দ্র।
গোয়াইনঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম চৌধুরী বলেন, সিলেটের গোয়াইনঘাটে প্রকৃতিকন্যা জাফলং, মিঠাপানির বন রাতাগুল ও নতুন ঝর্ণাধারা পান্তুাই রয়েছে। এগুলোকে সংরক্ষণ করতে হবে। পর্যটকদের জন্য ওই পর্যটন কেন্দ্রগুলো উপযোগী করে তুলতে হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin