বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন



পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ না দিলে শাস্তি

পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ না দিলে শাস্তি


 

শেখ সাদী রহমান
বেশিদিন আগের ঘটনা নয়, গত বছরই সংবাদমাধ্যমে দেখলাম সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে অসুস্থ বৃদ্ধ মাকে মাজারে ফেলে রেখে পালিয়ে গেল পাষণ্ড সন্তানরা। ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনে বৃদ্ধ বাবাকে ফেলে গেল ছেলে। এসব ঘটনা শুনতে অবাস্তব মনে হলেও দিনের আলোর মতো সত্য। অবাক করা ব্যাপার হলো এসব ঘটনা ২০১৩ সালের পরবর্তীতে সংঘটিত।

২০১৩ সালের কথা কেন বলছি? ২০১৩ সনেই বাংলাদেশ সরকার সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ নিশ্চিত করার জন্য পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন- ২০১৩ প্রবর্তন করে। এর আগে এসম্পর্কিত কোনো বিধিবদ্ধ আইন ছিল না। ২০১৩ সালের পর এই আইন থাকা সত্ত্বেও দেখা যাচ্ছে- অনেক পরিবারেই বৃদ্ধ পিতা-মাতা সন্তানের কাছ থেকে ভরণ-পোষণ পাচ্ছেন না; বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন। এর প্রধান কারণ হচ্ছে আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব এবং আইন সম্পর্কে না জানা।
এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায় যে, যেসব পিতা-মাতা সন্তানের কাছ থেকে ভরণ-পোষণ পাচ্ছেন না তারা এবং তাদের সন্তানরা এই আইন সম্পর্কে জানেন না। তাদের সন্তানরা এই আইন সম্পর্কে জানলে শাস্তির ভয়ে হলেও বৃদ্ধ পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ বিষয়ে সচেতন হতো। আইন জানলে তাদের পিতা বা মাতা কোনো না কোনোভাবে হয়তো থানায় বা আদালতে হাজির হতেন। এই লেখার উদ্দেশ্য হলো- পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন সহজবোধ্যভাবে উপস্থাপন করা যাতে এই আইনের বার্তা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে পৌঁছায়। জেলা শহরে বা শহরের আশপাশের গ্রামে বা গন্ডগ্রামে যেখানে ছোট ছোট দোকানে একটি টেলিভিশনকে কেন্দ্র করে সারা দিনরাত চায়ের আড্ডা বসে।

সেইসব আড্ডায় যারা অংশ নেন তাদেরকেও সচেতন করার জন্য এই লেখা। আপনারা নিজে জানবেন, নিজের পিতা-মাতাকে জানাবেন এবং আশপাশের চাচা-চাচি বা ফুফা-ফুফু বা খালা-খালুকে এই আইন সম্পর্কে বুঝিয়ে বলবেন এটাই প্রত্যাশা। এই আইন বাস্তবায়নে সচেতন হোন, দেখবেন আপনি যখন বয়স্ক হবেন, তখন এই আইনের কল্যাণেই হয়তো আপনিও সন্তানের কাছ থেকে ভরণ-পোষণ পাবেন। যে কথাগুলো শেষে বলার কথা, শুরুতেই বলে ফেললাম। এবার আইন বিষয়ে আসা যাক।
পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন অনুসারে কেবল জন্মদাতা পিতা এবং গর্ভধারিণী মা ভরণ-পোষণ পাবেন। সৎমা এবং সৎবাবাকে ভরণ-পোষণ দিতে আপনি বাধ্য নন। এই আইনে ভরণপোষণ বলতে কি বুঝায় তার একটি চমৎকার সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। চমৎকার বলার যৌক্তিক কারণ হচ্ছে- এই আইনে আর্থিক বিষয়ের পাশাপাশি পিতা-মাতাকে সময় দেওয়ার বিষয়টিও ভরণ-পোষণের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অর্থাৎ কেবল টাকা-পয়সা দিলেই আপনার দায়িত্ব শেষ নয়। আইন বলেছে, বয়স্ক পিতা-মাতাকে অবশ্যই সময় দিতে হবে। প্রশ্ন হতে পারে, সন্তান যদি প্রতিবন্দী হয় বা কোনো কারণে উপার্জন করতে না পারে? এই বিষয়ে আইনের ২ ধারায় বলা হয়েছে, সক্ষম এবং সামর্থ্যবান পুত্র বা কন্যা পিতা-মাতাকে ভরণ-পোষণ দিতে বাধ্য। আরও একটি বিষয় স্পষ্ট যে, পিতা-মাতা আর্থিকভাবে সচ্ছল হলেও সক্ষম এবং সামর্থ্যবান ছেলে বা মেয়ে অবশ্যই তাদেরকে ভরণ-পোষণ দিতে হবে। ছেলে-মেয়ে একাধিক হলে আইনের বিধান হলো তারা নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করে পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ নিশ্চিত করবে। এখানে আলাপ-আলোচনার সুযোগ রাখা হয়েছে যাতে সন্তানরা তাদের সামর্থ্যের ওপর ভিত্তি করে বৃদ্ধ পিতা-মাতার ভরণ-পোষণের জন্য আনুপাতিক হার নির্ধারণ করতে পারে। কারণ, একই পরিবারে সকল ভাই-বোনের উপার্জন ক্ষমতা সমান হয় না।

পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইনের অন্যতম অনন্য বৈশিষ্ট হলো- সন্তান বা সন্তানরা চাইলেই পিতা-মাতা তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বৃদ্ধাশ্রম বা অন্য কোথাও রেখে আসতে পারবে না। হয়তো বৃদ্ধ বয়সে মানুষকে একাকীত্ব থেকে বাঁচাতে রক্ষাকবচ হিসেবে এই বিধান করা হয়েছে। তবে পিতা-মাতা চাইলে তাদেরকে পৃথকভাবে রাখার ব্যবস্থা করা যাবে। সেক্ষেত্রে সন্তান বা সন্তানদেরকে অবশ্যই পিতা-মাতার সঙ্গে নিয়মিত সাক্ষাৎ করতে হবে। আইনের নাম পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন হলেও এই আইনে দাদা-দাদি এবং নানা-নানির অধিকারও নিশ্চিত করা হয়েছে। এই আইন অনুযায়ী সন্তান বা সন্তানেরা পিতা জীবিত না থাকলে দাদা-দাদি জীবিত থাকলে তাদেরকে পিতার মতোই ভরণপোষণ দিতে হবে। আর মাতা জীবিত না থাকলে নানা-নানি জীবিত থাকলে তাদেরকে মাতার মতোই ভরণপোষণ দিতে হবে। তার মানে, কারও যদি শুধু মাতা এবং দাদা-দাদি থাকে তাহলে তিনজনকেই ভরণ-পোষণ দিতে হবে।

এবার ভরণ-পোষণ না দিলে কী হবে সেই বিষয়ে আসা যাক। পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইন অনুযায়ী পিতা-মাতা বা দাদা-দাদি বা নানা-নানিকে ভরণ-পোষণ না দিলে তা অপরাধ হিসেব গণ্য হবে। এই অপরাধের শাস্তি সর্বোচ্চ ০১(এক) লাখ টাকা জরিমানা এবং জরিমানার টাকা না দিলে সর্বোচ্চ তিন মাস পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। যে সন্তানের ওপর ভরণ-পোষণের দায়িত্ব বর্তায় উক্ত সন্তানের স্ত্রী বা স্বামী বা ছেলে-মেয়ে অথবা কোনো নিকট আত্মীয় এই আইন অনুযায়ী ভরণ-পোষণ দিতে বাধা দিলে বা অসহযোগিতা করলে তাকেও একই শাস্তি দেওয়া হবে।

এবার পদ্ধতিগত বিষয় বলি- সন্তান যদি আইন অনুযায়ী পিতা-মাতা বা দাদা-দাদি অথবা নানা-নানিকে ভরণ-পোষণ না দেয় তাহলে তারা তিনটি সংস্থার যেকোনো একটিতে যেতে পারেন- নিকটস্থ থানা, নিকটস্থ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট অথবা জেলা লিগ্যাল এইড অফিস। জেলা লিগ্যাল এইড অফিসে গেলে লিগ্যাল এইড অফিসার অপর পক্ষকে নোটিশ দিয়ে উপস্থিত করাবেন এবং আপোষ-মীমাংসার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করবেন। আপোষ-মীমাংসা না হলে মামলা করার পরামর্শ দিবেন। তখন ভুক্তভোগী ব্যক্তি থানায় গিয়ে এজাহার দায়ের করতে পারেন অথবা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা করতে পারবেন। ভুক্তভোগী ব্যক্তি যদি আর্থিকভাবে অসচ্ছল হন তাহলে জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার তার জন্য সরকারি খরচে আইনজীবী নিয়োগ করে দেবেন। ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা শুরু হওয়ার পরও ম্যাজিস্ট্রেট চাইলে যে কোনো ব্যক্তির নিকট বিষয়টি আপোষ করিয়ে মীমাংসার জন্য পাঠাতে পারেন। আপোষ ব্যর্থ হলে তখন মামলা চলতে থাকবে এবং বিচারে দোষী সাব্যস্ত ব্যাক্তির শাস্তি হবে।

পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ আইনে বর্ণিত অধিকার ও কর্তব্যসমূহ সম্পর্কে প্রত্যেক নাগরিককে সচেতন হতে হবে। মানুষ আইনের বিধান সম্পর্কে সচেতন হলে আইনের বাস্তবায়ন সামাজিক দায়বদ্ধতায় পরিণত হবে। তখন সমাজের একজন আইন মানতে না চাইলে অন্যরা তাকে বাধ্য করবে আইন মানার জন্য। এই লেখা যারা পড়েছেন তাদের নিকট প্রত্যাশা আপনার নিকট আত্মীয় এবং প্রতিবেশীসহ পরিচিতদেরকে এই আইন সম্পর্কে সচেতন করুন।

শেখ সাদী রহমান

সিনিয়র আইন গবেষণা কর্মকর্তা

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল, ঢাকা


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin