সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫২ অপরাহ্ন


পুলিশ হয়রানির শিকার হইছি বেশি -আলতাফ হোসেন ট্রাক চালক

পুলিশ হয়রানির শিকার হইছি বেশি -আলতাফ হোসেন ট্রাক চালক


শেয়ার বোতাম এখানে

সুমন ইসলাম: আলতাফ হুসেন। পেশায় ট্রাক চালক। বাড়ি জকিগঞ্জের বারঠাকুরির মির্জাপুর গ্রামে। সুবানিঘাট পয়েন্টে অস্থায়ী স্টেন্ডেই থাকেন বেশি। রুটি রুজির উৎস ট্রাক। কিন্তু সেই ট্রাকই চালাতে পারেননি নির্জঞ্জাট ভাবে। পথে পথে হয়রানির শিকার হতেন। একমাত্র হয়রানি পুলিশি। পুলিশকে বখরা না দিয়ে চাকা ঘুরাতে পারেননি। তার মতে, এটিই এই সরকারের সময়ে তার সবচেয়ে বড় কষ্ট। যা আয় করতেন তার একটি বড় অংশই নিয়ে নিত পুলিশ। পয়েন্টে পয়েন্টে চাঁদা দিতে হয়। শ্রমিক সংগঠন এবং পুলিশের চাঁদা বাধ্যতামূলক।

 

শুভ প্রতিদিনের সাথে আলাপকালে এই ক্ষোভ জানিয়েছেন তিনি। নির্বাচনী ভাবনায় বলেছেন, চাই একটা শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হউক। নিরপেক্ষ নির্বাচন হউক। এটাইতো আমাদের বড় ভাবনা। গত ১০ বছরে এই সরকারের আমলে দেশের কি উন্নতি হয়েছে বলে মনে করেন?

 

ভাই আমরা ড্রাইভার মানুষ যেহেতু ড্রিস্টিক গাড়ি চালাই সারাদেশই ঘুরে বেড়াই, মানুষের কথা শুনি বুজি উন্নতি যা হওয়ার কথা ছিলো সেইরকম হয়নি। লোক দেখানো উন্নয়ন হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় রাস্থাঘাট এর বেহাল অবস্থা। জিনিশপত্রের যে হারে দাম বাড়ছে সেই হারে কি আর আমাদের আয় রোজগার বেড়েছে? ডিজেল, পেট্রোলের দাম ধাপে ধাপে বাড়ানো হয়েছে। আর রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বেড় হলেই পুলিশের চাদাঁবাজি এই সরকার এর আমলেই আমরা রাস্থায় পুলিশের কাছে বেশি হয়রানি হয়েছি।
৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন নিয়ে আপনার কি ভাবনা?

 

দেখেন ভাই সিলেট একটা বিভাগীয় শহর কিন্তু এখানে নেই কোন ট্রাক টার্মিনাল, নতুন একটা সরকার গেলে উন্নতি হবে বলে মনে হয়। তবে আমি চাই যেই সরকার ক্ষমতায় যাক না কেন আমাদের সিলেট বিভাগে একটা ট্রাক টার্মিনাল চাই।
আগামীতে কাকে ভোট দিবেন।

 

দেখেন ভাই গত ১০ বছর একটা সরকার ক্ষমতায় ছিলো এবার পরিবর্তন দরকার সুতরাং বুজতেই পারছেন কাকে দেব।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin