শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৮ অপরাহ্ন


প্রতারণাপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে পালাতে চাইছে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের কথিত নেতারা

প্রতারণাপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে পালাতে চাইছে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের কথিত নেতারা


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রবাস ডেস্ক:.
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি কমিউনিটির ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’র কার্য্যক্রম অন্যায়ভাবে কুক্ষিগত রাখার পর এবার প্রতারণাপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে পালানোর কৌশল নিয়েছেন এর কথিত নেতারা। বৃহৎ এই সংগঠনটির নাম, লগো এবং তহবিলের অন্যায় ব্যবহার ও নিয়ন্ত্রণ বন্ধে নিয়োজিত ট্রাস্টিরা এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। ৭ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব কার্য্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ট্রাস্ট্রিদের অন্ধকারে রেখে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে সংগঠনটিকে কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধন এবং এর তহবিলের অপব্যাবহারের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ট্রাস্ট্রিরা সমঝোতার মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করতে চেয়েছিলেন। কেননা, যারা অন্যায়ভাবে সংগঠনটিকে নিয়ন্ত্রণ করছে তারাও বিয়ানীবাজারবাসী। কিন্তু ওই কতিপয় ব্যক্তি বারবার সমঝোতার নামে সময়ক্ষেপন করেছে। তাঁরা নিয়ন্ত্রণ ছাড়তে নারাজ। যে কারণে বাধ্য হয়ে ট্রাস্ট্রিরা আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তখন ওই কতিপয় ব্যক্তি সমঝোতার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানে নিজেদের আইনজীবীর মাধ্যমে ট্রাস্টের আইনজীবীর সঙ্গে চুক্তি করেন। ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ সেই সমঝোতার বৈঠক হওয়ার কথা ছিলো। অথচ তার আগেই ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ এক প্রতারণাপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে পালানোর কৌশল নিয়েছে ওইসব ব্যক্তি। যার মধ্যে অন্যতম হিসেবে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে লিমিটেড কোম্পানির পরিচালক দেলোয়ার হোসেন, মামুন রশিদ, মাহবুব আহমেদ রাজু ও দিলওয়ার হোসেন বলে উল্লেখ করা হয়।

প্রতারণাপূর্ণ নির্বাচনের ব্যাখ্যা দিয়ে তাঁরা বলেন, ট্রাস্ট্রিদের মতামত বা অনুমতি ছাড়াই কতিপয় ব্যক্তি সামাজিক সংগঠনটিকে ‘লিমিটেড কোম্পানি’ হিসেবে নিবন্ধন করে। নাম দেয় ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে লিমিটেড’। সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে সংগঠনের প্রকৃত সংবিধানের বদলে কোম্পানির আর্টিকেলস অব এসোসিয়েশন বানিয়ে তাঁরা সামাজিক সংগঠন ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’র নাম, লগো এবং তহবিল নিয়ন্ত্রণ করছে। কোথাও তারা ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে লিমিটেড’ বলে না এবং লেখেও না। ১২ সেপ্টেম্বর যে নির্বাচন তারা করছে সেখানেও ‘লিমিটেড কোম্পানি’ শব্দটি গোপন রাখা হয়েছে। কার্য্যক্রম চালাচ্ছে সামাজিক সংগঠন ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’ নামে। এর মধ্যদিয়ে সংগঠনের অনেক ট্রস্টিকে একটি বিভ্রান্তির মধ্যে রাখা হয়েছে।

এ নির্বাচন সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক করে দিয়ে সংবাদ সম্মেলন বলা হয়, ‘লিমিটেড কোম্পানি’ শব্দ গোপন রেখে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’র ট্রাস্টিদের এতে সম্পৃক্ত করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। এই সামাজিক সংগঠনের নাম, লগো এবং তহবিল উদ্ধারে আইনী প্রক্রিয়া চলছে। ফলে যারা ১২ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য মনোনয়ন ফি জমা দিয়েছেন, তার দায়-দায়িত্ব সামাজিক সংগঠন বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে নেবে না। এই অবৈধ নির্বাচনের মাধ্যমে কেউ অন্যায়ভাবে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের নাম, লগো ও তহবিল নিয়ন্ত্রণের কাজে যুক্ত হলে তারাও বিচার প্রক্রিয়ায় এই অন্যায়ের দায়ও এড়াতে পারবেন না।

১২ সেপ্টম্বর নির্বাচনের জন্য নিয়োজিত নির্বাচন কমিশনারদের উদ্দেশে বলা হয়, নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন অত্যন্ত সম্মানের বিষয়। কমিউনিটির গন্যমান্য ব্যক্তিরা সাধারণত এ দায়িত্ব পালন করেন। কমিশনার হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার আগে সংশ্লিষ্ট সংগঠন সম্পর্কে ভালভাবে খোঁজ-খবর নেয়া তাঁদের দায়িত্ব। অন্যাথায় ভুল করে নিজেরাও অন্যায়কারীদের সামিল হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বিশেষ করে ‘লিমিটেড কোম্পানি’ শব্দ গোপন রেখে সামাজিক সংগঠন ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’র নামে যে নির্বাচন হচ্ছে, সেখানে দায়িত্ব পালনের আগে দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচন কমিশনারদের দ্বিতীয়বার ভাবা উচিত। অন্যথায় তাঁরা নিজেদের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক পরিচিতি, সুনাম এবং নৈতিকতাকে ঝুঁকিতে ফেলবেন।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ভাগ্য পরিবর্তনে যুক্তরাজ্যে পাড়ি দেয়া বিয়ানীবাজারের মুরব্বিদের উদ্যোগে সেবামূলক কাজের মাধ্যমে বিয়ানীবাজারবাসীর কল্যাণ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে ১৯৯৯ সালে গড়ে তোলা হয়েছিলো ‘বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’। ২০১৬ সালে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট ইউকে’র নির্বাচনকেকেন্দ্র করে সাংবিধানিক সমস্যা দেখা দেয়। কারণ ওই বছরের ৫ফেব্রুয়ারির নির্বাচনকে সামনে রেখে সংগঠনের তৎকালীননেতৃবৃন্দ নির্বাচন কমিশনের কাছে একটি ভিন্ন সংবিধানউপস্থাপন করেন, যার সঙ্গে ট্রাস্টের প্রকৃত সংবিধানের অনেককিছুর মিল নেই। এই জটিলতার কারণে নির্বাচনের জন্য গঠিতনির্বাচন কমিশন ওই নির্বাচন পরিচালনা করতে অপারগতাজানায়। এরপর ওই বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি পূর্ব লন্ডনের ব্রাডিআর্ট সেন্টারে অনুষ্ঠিত বিজিএম–এ সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয়যে, সিনিয়র ট্রাস্টি শামসুদ্দিন খানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি সৃষ্টসমস্যার সমাধান করবে এবং এজন্য সংগঠনের সকল কাগজ–পত্র শামসুদ্দিন খানকে বুঝিয়ে দেবে ট্রাস্টের তৎকালিন কমিটি।কিন্তু শামসুদ্দিন খানের হাতে কোনো কিছুই বুঝিয়ে দেয়নি তাঁরা।বরং দীর্ঘ ২২ মাস পর ২০১৮ সালের ২৯ এপ্রিল লন্ডন মুসলিমসেন্টারে নিজের পছন্দের লোকদের নিয়ে একটি সভা ডাকেনতৎকালীন সাধারণ সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন। বিতর্কিত ঐসভায় সংগঠনের পুরো রূপ বদলে দেয়া হয়। যারা ৫০০ পাউন্ডদিয়ে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকে’র ট্রাস্টি হয়েছেন,তাদেরকে ট্রাস্টি থেকে মেম্বারে রূপান্তর করা হয়। ট্রাস্টের মালিকহিসাবে মাত্র ৩ জনকে রাখা হয়। বাকী সকল ট্রাস্টিদের মেম্বারঘোষণা করা হয়। ওই সভাতেই নিজেদের পছন্দমত ঘোষণা করাহয় নতুন কমিটি। ওই কমিটির প্রেসিডেন্ট হন দেলোয়ার হোসেননিজেই।

ট্রাস্টিরা বলেন, ব্যক্তিগত জীবনে আমরা নানা কাজে ব্যস্ত থাকিবলে অনেকেই এসব নিয়ে মাথা ঘামাইনি। কিন্তু পরবর্তিতে এইঅবৈধ কমিটির নানা অনিয়মের খবর সামনে আসতে থাকে।যার মধ্যে গুরুতর আর্থিক অনিয়মের অভিযোগও আছে।বর্তমান কমিটির কিছু লোক সংগঠনের স্বার্থে এসব অনিয়মেরবিষয়ে সরব হন। উভয়পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানে বিষয়টিআইনী প্রক্রিয়ায় গড়ায়। যেখানে বর্তমান অবৈধ কমিটির পক্ষেরআইনজীবী স্বীকার করেন যে, বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টইউকের ট্রাস্টিদের অনুমতি না নিয়ে সংগঠনের নাম বদল করাহয়েছে এবং কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধন করা হয়েছে– যা অবৈধ।বিষয়টি ট্রাস্টিদের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে সমাধানে তাদেরআইনজীবী পরামর্শ দেয়।

২০১৯ সালের ৫ নভেম্বর পূর্ব লন্ডনের ৮৫ বিগল্যান্ড স্ট্রিটেরকেয়ার হাউজ কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের ট্রাস্টিদের এক বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সিনিয়র ট্রাস্টি আলহাজ শামস উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেই বিশেষ সাধারণ সভায় সিদ্ধান্তের আলোকে সংগঠনের নাম, লগোর অন্যায় ব্যবহার এবং তহবিলের নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে আনতে বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের একটি ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিয়ানীবাজার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের সিনিয়র ট্রাস্টি মাতাব চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তব্য রাখেন সিনিয়র ট্রাস্টি মারুফ আহমেদ চৌধুরী, সিনিয়র ট্রাস্ট্রি মুহিবুর রহমান মুহিব, সিনিয়র ট্রাস্টি মনজ্জির আলী, সিনিয়র ট্রাস্টি শাহাবউদ্দিন চঞ্চল এবং অন্যতম ট্রাস্টি জাহাঙ্গির খান ও সারওয়ার আহমেদ। ছিলেন ট্রাস্টিদের গঠিত ম্যানেজমেন্ট কমিটির প্রেসিডেন্ট আব্দুল করিম নাজিম ও ট্রেজারার ইফতেখার আহমেদ শিপন প্রমুখ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin