বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন


প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজ ঘরে আগুন দিলেন ইউপি সদস্য

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজ ঘরে আগুন দিলেন ইউপি সদস্য


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক:
প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের ঘরেই আগুন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউনয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্য। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ওই ইউপি সদস্যের ভাগ্নেকে আটক করেছে পুলিশ। গত বুধবার দিবাগত রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে এ ঘটনা ঘটে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়নের দাসকান্দি গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম তার বাড়িতে এ কাণ্ড ঘটান। ঘটনার খবর পেয়ে ওইদিন গভীর রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই ইউপি সদস্যের ভাগ্নে আরিফুল ইসলামকে (১৮) আটক করে।

নবীনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মনিরুল ইসলাম জানান, প্রতিবেশীদের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আরিফুলের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় তাকে আটক করা হয়। ওই সময় ঘরের একটি কাঠের আলমারির একাংশ পোড়া অবস্থায় এবং ঘরের চালাসহ টিনের বেড়া মাটিতে এলোমেলো পড়ে থাকতে দেখে যায়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গত ২৭ সেপ্টেম্বর শফিকুল মেম্বারের দুই ভাতিজা সোহেল ও ফাহিম ফুটবল খেলা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে প্রতিবেশী ধন মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়াকে (২৩) মারধর করে। পরে রাসেলের মা খোদেজা বেগম এ নিয়ে শফিকুল মেম্বারের কাছে নালিশ করতে গেলে সোহেল ও ফাহিমসহ ওই বাড়ির চার থেকে পাঁচ জন যুবক তাকে ধাওয়া করে। তিনি বাড়িতে ফিরে আসার কিছুক্ষণ পরেই মেম্বার বাড়ির নারী-পুরুষসহ সাত থেকে আটজন দা, লাঠিসোঁটা ও লোহার রড নিয়ে তার বাড়িতে ঢুকে রাসেলের ওপর ফের হামলা চালায়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে আরও জানা যায়, হামলাকারীরা রাসেলের মাথায় দা দিয়ে আঘাত করে এবং তার মাকেও মারধর করে। এরপর রাসেলকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার ক্ষত স্থানে ১০টি সেলাই করা হয়।

চারদিন পর রাশেল শফিকুল মেম্বারসহ আটজনের বিরুদ্ধে নবীনগর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরদিন পুলিশ তাসলিমা বেগম নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠান।

খোদেজা বেগম অভিযোগ করেন, মামলা দায়েরের পর ইউপি সদস্যের বাড়ির লোকেরা নিজেদের ঘরে আগুন লাগিয়ে তাদের ঘায়েলের চেষ্টা করেন। শফিকুল মেম্বারকে মামলাবাজ প্রকৃতির লোক বলেই জানে এলাকার মানুষ। চার বছর আগেও নিজের গরু মেরে খোদেজা বেগমদের বাড়ির চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন শফিকুল। পরে পুলিশের তদন্তে ঘটনাটি সাজানো বলে প্রমাণিত হয়।

খোদেজা বেগম জানান, এছাড়া বছর খানেক আগে শফিকুল মেম্বার পার্শ্ববর্তী শিবপুর গ্রামের কয়েকজনের সঙ্গে বিরোধ মেটাতে দাসকান্দি গ্রামের একজনের রিকশার ব্যাটারিসহ মূল্যবান জিনিস খুলে সেটিতে আগুনে পুড়িয়ে দেন। এরপর এ ঘটনায় শিবপুর গ্রামের পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন। পরে স্থানীয় বীরগাঁও বাজারে ব্যাটারি বিক্রি করতে গেলে ধরা পড়ে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin