বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন


প্রধানমন্ত্রীর কৃষি প্রণোদনা : ছাতকে কৃষকের টাকায় ভাগ বসাচ্ছে মধ্যস্বত্বভোগী

প্রধানমন্ত্রীর কৃষি প্রণোদনা : ছাতকে কৃষকের টাকায় ভাগ বসাচ্ছে মধ্যস্বত্বভোগী


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

সুনামগঞ্জের ছাতকে প্রধানমন্ত্রীর কৃষি প্রণোদনা ও কৃষি ঋণের টাকা বেহাতে চলে যাচ্ছে। প্রকৃত কৃষকরা এ টাকা প্রাপ্তির কথা থাকলেও দালালের যোগসাজসে অকৃষিজীবিরা টাকা তুলে নিচ্ছে। ছাতক কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমে এ টাকা প্রদান করা হচ্ছে। এসব ঘটনায় ছাতক কৃষি ব্যাংকের জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

দেশে করোনাকালীন সময়ে কৃষি পণ্য উৎপাদনের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রনোদনা তহবিল থেকে প্রকৃত কৃষকদের কৃষি প্রণোদনা ও কৃষি ঋণ প্রদানের নির্দেশনা দেয়া হয়। ধান, পাট, গম ছাড়াও গরু, হাঁস-মুরগী, মৎস্য খামার এবং ফুল-ফলসহ অর্থকরী ফসল উৎপাদনকারী কৃষকরা সহজ শর্তে কৃষি ঋণ পাওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হবে। এছাড়া কৃষি ঋণের ক্ষেত্রে সরাসরি কৃষক(একক ও দলবদ্ধভাবে) ক্ষুদ্র, প্রান্তিক ও বর্গা চাষীরা সর্বোচ্চ ৫ একর জমি চাষাবাদের জন্য বিনা জামানতে ঋণ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশনা কাজে লাগিয়ে জাল কাগজপত্র দিয়ে দালালদের মাধ্যমে ইতিমধ্যে কৃষি প্রণোদনা ও কৃষি উৎপাদন বাবত দেড় শতাধিক লোক ঋণ উত্তোলন করে নিয়েছে। এর মধ্যে সিংহভাগই অকৃষক। ফলে এলাকার প্রকৃত কৃষকরা সরকারী এ সুবিধা থেকে হয়েছেন বি ত।
এসব অনিয়মের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে কৃষি ব্যাংক ছাতক শাখার ফিল্ড সুপারভাইজার ও শাখা ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে। দালাল ছাড়া কৃষি ঋণ পাওয়া যায় না- এ বিষয়টি কৃষি ব্যাংকের ক্ষেত্রে প্রচলন হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে কৃষি প্রনোদনা ও কৃষি ঋণ বি ত কৃষকদের মাঝে বিরাজ করছে চরম অসন্তোষ ও ক্ষোভ।

সম্প্রতি দালাল চক্রে ২ সদস্য জাল কাগজ-পত্র, সরকারী কর্মকর্তার সীল, ব্যাংকের পাশবুক, জমির পর্চা, দলিলসহ ধরা পড়লে কৃষি ব্যাংক ছাতক শাখার ঋণ গ্রহণ জালিয়াতির বিষয়টি জন সম্মুখে চলে আসে। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত জালিয়াত চক্রে দুই সদস্য জানায়, ব্যাংক ঋণ গ্রহণ করার কাজে এসব জাল কাগজ-পত্র ও সীল ব্যবহার করে তারা। এ ঘটনায় ইউপি সদস্য মুহিবুর রহমান, সিরাজ আলী, আফতাব উদ্দিনসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ছাতক থানায় একটি মামলা (নং-২৬) দায়ের করেন ভূমি অফিসের নাজির লাল মিয়া।

ঋণ প্রার্থীদের মধ্যে যারা পরিশোধের ক্ষমতা রাখে তাদেরকেই কৃষি ঋণ দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। এ ক্ষেত্রে কৃষি ব্যাংক ছাতক শাখার এসব কোনো শর্তই আমলে না নিয়ে ঋণের সিংহভাগই প্রধান করা হয়ে গেছে। ঋণের বিপরীতে জামানত দেয়ার কোনো বিধান না থাকলেও অকৃষকদের ঋণ প্রদানের জন্য তাদের কাছ থেকে নেয়া হয়েছে জমির জাল কাগজপত্র। অভিযোগ রয়েছে, ঋণের টাকা উত্তোলনের পর ব্যাংক শাখার ব্যবস্থাপক, ফিল্ড সুপারভাইজার, দালাল ও ঋণ গ্রহীতার মাঝে ভাগ-বাটোয়া হয় ঋণের টাকা। এ ক্ষেত্রে দেখা গেছে শতকরা প্রায় ৩০-৪০ ভাগ টাকা পায় ঋণ গ্রহীতা। বাকিটা চলে যাচ্ছে মধ্যস্বত্বভোগীর কাছে।
এ ক্ষেত্রে দালালরা বোঝাচ্ছে যে এই টাকা ফেরত দিতে হবে না। তাই দালাল ও অকৃষিজীবিরা সরকারের এ টাকা ভাগবটোয়ারা করে নিয়ে যাচ্ছে। একটি সূত্র জানায়, ইতিমধ্যেই উপজেলার একটি পৌরসভা ও ৪টি ইউনিয়নে আড়াই শতাধিক ব্যক্তিকে প্রায় কোটি টাকা কৃষি প্রণোদনা ও কৃষি ঋণ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে ছোট ছাতক সদর ইউনিয়নেই ঋণ দেয়া হয়েছে মোট বিতরণের অর্ধেক চেয়ে বেশি।

ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক খায়রুল হাসানের দেয়া তথ্য মতে মোট ১৩২ জন কৃষককে ৯৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। ৩৬ জনকে ৪৭ লাখ টাকা দিয়েছেন কৃষি প্রনাদনা ঋণ এবং ৬৯ জনকে ৫১ লাখ ৯০ হাজার টাকা দিয়েছেন কৃষি ঋণ। জানা গেছে, ছাতক সদর ইউনিয়নের ঋণ গ্রহীতা ৭১ জনের মধ্যে ৫৩ লাখ ৩৪ হাজার টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র ছাতক ইউনিয়নের রনমঙ্গল গ্রামেই ৪০জনকে কৃষি ঋণ প্রদান করা হয়েছে। দালাল ছাড়া ঋণ নিতে এসে ব্যর্থ হয়েছেন ছাতক সদর ইউনিয়নের কৃষক আব্দুল কাহার, আব্দুল গনি, পৌরসভার খলিলুর রহমান, আব্দুল বাতিন, নোয়ারাই ইউনিয়নের আছলম আলীসহ অনেকেই। এছাড়া ছাতক সদর ইউনিয়নের চারচিরা গ্রামের ইসলাম উদ্দিন বতই’র নামে ৫৫ হাজার টাকা ঋণ উত্তোলন হলেও তার হাতে ধরিয়ে দেয়া হয় ২৩হাজার ৫০০ টাকা। একইভাবে রনমঙ্গল গ্রামের রুহুল আমিন পেয়েছেন উত্তোলনের ৫০ হাজারের মধ্যে ৩০ হাজার টাকা। এছাড়া আশিক মিয়া, জসিম উদ্দিন, নুরুল আমিন, মোশাহিদ আলী, আনু মিয়া, সাজু মিয়া, আজির আলীসহ অনেকেই বরাদ্দের অর্ধেক টাকা পেয়ে খুশি থাকতে হয়েছে। বাকি টাকা মধ্যস্বত্বভোগীর পকেটে চলে গেছে।

অভিযোগ রয়েছে, পার্লার কর্মীসহ ২ নারীকে কৃষানী সাজিয়ে দালালের মাধ্যমে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে এক নারীর ঋণ বরাদ্দ হয়েছে শহরের আবাসিক হোটেলের একটি কক্ষে বসে। স্থানীয়রা জানান, এসব জালিয়াতির সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছেন কৃষি ব্যাংক শাখা ব্যবস্থাপকসহ ব্যাংকের ফিল্ড সুপারভাইজার সুশান্ত দাস ও সাহিদ আলী।

এ ব্যাপারে কৃষি ব্যাংক ছাতক শাখার ব্যবস্থাপক খায়রুল হাসানকে ঋণের তালিকা ঋণ গ্রহীতার যাবতীয় তথ্যাবলীসহ একটি বোর্ডে সাটিয়ে রাখার জন্য কৃষি ব্যাংক সুনামগঞ্জ জেলা শাখার ব্যবস্থাপক নির্দেশ দিলেও তা ৩ দিনেও বাস্তবায়ন হয়নি। এ সব বিষয়ে গত ৩ দিন ধরে ব্যাংকে তদন্ত কার্যক্রম চলছে বলে জানা গেছে।

কৃষি ব্যাংক ছাতক শাখার ব্যবস্থাপক খায়রুল হাসান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী প্রনোদনা ও কৃষি ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। এর বেশি কিছু বলতে চাননি তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin