রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:০২ পূর্বাহ্ন


ফাঁসির মামলাজট উচ্চ আদালতে

ফাঁসির মামলাজট উচ্চ আদালতে


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক
২০০০ সালের ২২ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার শেখ লুৎফর রহমান সরকারি আদর্শ কলেজ মাঠে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশের প্যান্ডেল তৈরির সময় ৭৬ কেজি ওজনের শক্তিশালী বোমা উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন ৪০ কেজি ওজনের আরও একটি বোমা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সেদিনই কোটালীপাড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নূর হোসেন দুটি মামলা করেন।
এ ঘটনার ১৭ বছর পর ২০১৭ সালের ২০ আগস্ট এ হত্যাচেষ্টা মামলায় দশজনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ঢাকার ২নং দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মমতাজ বেগম। এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন আসামিরা। বিধি অনুসারে, আসামিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে ডেথ রেফারেন্সসহ মামলার সব নথি ২০১৭ সালের ২৪ আগস্ট হাইকোর্টে দাখিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছর জানুয়ারি মাসে হাইকোর্টে সেই আপিল ও ডেথ  রেফারেন্সের শুনানি শুরু হলেও এখনও এ কার্যক্রম শেষ হয়নি। ফলে হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্স মামলার নিষ্পত্তি হচ্ছে না।
শুধু এ মামলাই নয়, সুপ্রিম কোর্টে গুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর সাড়ে ৭শ’র বেশি মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত (ডেথ রেফারেন্স) মামলা নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা, পিলখানা হত্যা মামলা, চট্টগ্রামে ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা, নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের মামলাসহ উল্লেখযোগ্য আলোচিত অনেক মামলাই রয়েছে এর মধ্যে। হাইকোর্ট বিভাগে ৭২১টি এবং সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ৩১টি মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন-সংক্রান্ত মামলা চূড়ান্ত নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে।
বছরের পর বছর ধরে সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগে ঝুলে থাকা এসব মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় বিচারপ্রার্থী ও আসামি উভয়পক্ষই হতাশায় দিন কাটাচ্ছেন। স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে বিচারপ্রার্থীরা অনিশ্চয়তায় দিন কাটাচ্ছেন। অন্যদিকে আসামিরাও নির্জন কারাগারের কনডেম সেলে অনিশ্চয়তায় রয়েছেন। ন্যায়বিচারের প্রত্যাশায় বাদী ও আসামিপক্ষ উভয়ই আদালতপাড়ায় ঘুরতে ঘুরতে বিপন্ন বোধ করছেন।
এদিকে পুলিশ কর্মকর্তা হত্যায় মেয়ে ঐশীর (মৃত্যুদণ্ড) আপিল মামলা, রাজন ও রাকিব হত্যার আপিল, জামায়াত নেতা এটিএম আজহারুল ইসলাম, হবিগঞ্জের সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সার, পাবনার আবদুস সুবহানসহ ২৬ যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) আপিল, দর্জি দোকানি বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার আপিল, আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলা, রমনার বটমূলে হত্যা মামলার আপিলসহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা উচ্চ আদালতে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। হাইকোর্টে ২১ আগস্ট ও ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা দুটির আপিল শুনানি হবে। নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের মামলার শুনানি হবে আপিল বিভাগে। এই মামলার পেপারবুক তৈরি শেষ হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষের প্রত্যাশা শিগগিরই এসব মামলার আপিল শুনানি হবে।
সংশ্নিষ্ট আইনজীবীদের ধারণা, নিম্ন আদালতগুলোতে চাঞ্চল্যকর ও স্পর্শকাতর মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হলেও উচ্চ আদালতে চলছে খুব ধীরগতিতে। এতে হাইকোর্ট বিভাগে বাড়ছে ফাঁসির মামলাজট।
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ডেথ রেফারেন্স মামলাগুলো নিষ্পত্তি করতে বেঞ্চ আরও বাড়ানো প্রয়োজন। তিনি বলেন, হাইকোর্টে তিনটি বেঞ্চ ফাঁসির মামলা শুনছেন, তারপরও মামলার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। বেঞ্চ বাড়ানোর বিষয়টি সম্পূর্ণ প্রধান বিচারপতির এখতিয়ার। বেঞ্চ বাড়ানো হলে মামলাজট কমে আসবে বলে মনে করেন তিনি।
সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এসএম শাহজাহান বলেন, ডেথ রেফারেন্সের মধ্যে অধিকাংশই হত্যা মামলা। তা ছাড়া নারী নির্যাতন আইনে গৃহবধূ-গৃহকর্মী হত্যা, ধর্ষণ-পরবর্তী হত্যা মামলা বিচারাধীন রয়েছে। তিনি বলেন, মামলা অনুপাতে ডেথ রেফারেন্স বেঞ্চ আরও বাড়ানো উচিত। কোনো ডেথ রেফারেন্স নিষ্পত্তিতে চার-পাঁচ বছর সময় লেগে যায়। অনেক মামলা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শুনানিও হয়ে থাকে। তার মতে, মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামিকে দীর্ঘদিন কনডেম সেলে রাখার ফলে তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন- যা উচিত নয়। যত দ্রুত সম্ভব ডেথ রেফারেন্স নিষ্পত্তি হওয়া উচিত।
সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও স্পেশাল অফিসার ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান বলেন, বর্তমানে ডেথ রেফারেন্স মামলা শুনানির জন্য হাইকোর্টে তিনটি বেঞ্চ রয়েছে। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন দায়িত্ব নেওয়ার পর এসব মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে একটি বেঞ্চ বাড়িয়েছেন। ডেথ রেফারেন্স শাখায় কাজের গতি আনতে দক্ষ কর্মচারীদের পদায়ন করা হয়েছে। সম্প্রতি প্রধান বিচারপতি নিজেও ডেথ রেফারেন্স শাখা পরিদর্শন করছেন।
হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখার পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৯ সালের ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ৭২১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এই সময়ে নিষ্পত্তি হয়েছে ৮৩টি মামলা। এ ছাড়া চলতি বছরের গত তিন মাসে আরও কিছু ডেথ রেফারেন্স মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। আরও ১৪০টি মামলা শুনানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে। ২০১৭ সালে ৬৪০টি, ২০১৬ সালে ৫৩৫টি, ২০১৫ সালে ৪১৯টি এবং ২০১৪ সালে ৩৬৩টি, ২০১৩ সালে ৪০৬টি, ২০১২ সালে ৪৫৬টি, ২০১১ সালে ৫৩৫টি, ২০১০ সালে ৫৪২টি ডেথ রেফারেন্স মামলা বিচারাধীন ছিল। গত ১০ বছরে এ ধরনের মামলা বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। বর্তমানে ২০১৪ সালের ডেথ রেফারেন্স মামলার শুনানি চলছে।
কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্রে জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টে মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন-সংক্রান্ত মামলা নিষ্পত্তিতে দেরি হওয়ায় কনসেলে আসামির সংখ্যা বাড়ছে। দেশের বিভিন্ন কারাগারে গত ডিসেম্বর পর্যন্ত মৃত্যুদ াদেশপ্রাপ্ত প্রায় এক হাজার সাত শতাধিক আসামি ছিল। তাদের অনেকেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায়। সম্প্রতি সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ আল আলী হত্যা মামলার এক আসামি সাইফুল ইসলাম মামুনের মৃত্যুদণ্ড গত মার্চ মাসে কার্যকর হয়েছে। এর আগে সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীকে হত্যাচেষ্টা মামলায় জঙ্গি নেতা মুফতি আবদুল হান্নানের ফাঁসির রায় ২০১৭ সালে কার্যকর হয়।
বিচারিক (নিম্ন) আদালতে কোনো মামলায় আসামির মৃত্যুদ হলে তা কার্যকর করার জন্য হাইকোর্টের অনুমোদন নিতে হয়- যা ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে পরিচিত। হাইকোর্টের রায়ের পর সংক্ষুব্ধ পক্ষ আপিল বিভাগে আপিল করে থাকে। এরপর আপিলে বিভাগে তা পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়েও সংক্ষুব্ধ পক্ষ আবেদন করতে পারে।
হাইকোর্ট সূত্রে জানা গেছে, হাইকোর্ট বিভাগে তিনটি ডেথ রেফারেন্স বেঞ্চে প্রতিমাসে গড়ে নিষ্পত্তি হচ্ছে তিন থেকে চারটি মামলা। আদালতে বার্ষিক ছুটি এবং বিভিন্ন সময়ে হাইকোর্ট বেঞ্চ ভাঙার কারণে এসব ডেথ রেফারেন্স মামলার শুনানি করা হচ্ছে না। দিন দিন এরকম মামলার সংখ্যা বাড়ছে। হাইকোর্ট বিভাগে যেভাবে ডেথ রেফারেন্স নিষ্পত্তি হচ্ছে, তাতে বর্তমান বিচারাধীন মামলা নিষ্পত্তি করতে আরও পাঁচ থেকে ছয় বছর সময় লাগবে। হাইকোর্টে সময় মতো এসব মামলা শুনানি না হওয়ায় বছরের পর বছর জেলখানায় অপেক্ষা করতে হচ্ছে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা :বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার দুই মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ৪৪ আসামির ডেথ রেফারেন্স ও জেল আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন হাইকোর্ট। ১৩ জানুয়ারি হাইকোর্টের একটি বেঞ্চে এ-সংক্রান্ত আদেশ দেওয়া হয়। আপিলকারীদের মধ্যে মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত এবং বিভিন্ন মেয়াদে কারাদ প্রাপ্ত আসামি রয়েছেন।
গত বছরের ১০ অক্টোবর ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন গ্রেনেড হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে বিএনপি নেতা সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন। একই সঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও হারিছ চৌধুরীসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়। বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে এ মামলার ১১ আসামিকে।
বিশ্বজিৎ হত্যা : পুরান ঢাকার দর্জি দোকানি বিশ্বজিৎ দাস হত্যা মামলায় দু’জনের মৃত্যুদ বহাল রেখে হাইকোর্টের দেওয়া ৮০ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর প্রকাশিত হয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে দুই মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামিসহ অন্যরা সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেন। এর আগে একই বছরের ৬ আগস্ট বিশ্বজিৎ দাস হত্যা মামলায় নিম্ন আদালতে মৃত্যুদ াদেশপ্রাপ্ত আট আসামির মধ্যে দু’জনের মৃত্যুদ বহাল রাখেন হাইকোর্ট। বাকি চারজনের মৃত্যুদ কমিয়ে যাবজ্জীবন এবং অপর দু’জনকে খালাস দেওয়া হয়। এ ছাড়া যাবজ্জীবন কারাদ াদেশপ্রাপ্ত ১৩ আসামির মধ্যে ১১ জনের সাজা বহাল রাখা হয়।
নারায়ণগঞ্জের সাত খুন : ২০১৭ সালের ২২ আগস্ট হাইকোর্ট নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলায় সাবেক কাউন্সিলর নূর হোসেন ও সাবেক তিন র‌্যাব কর্মকর্তা তারেক সাঈদ-আরিফ-মাসুদ রানাসহ ১৫ জনের ফাঁসির রায় বহাল রাখেন হাইকোর্ট। ২০১৮ সালের ১৯ নভেম্বর হাইকোর্ট পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করে। এ রায়ের পর আসামিরা সুপ্রিম কোর্টের আপিল শাখায় আপিল করেন। বর্তমানে আপিল শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে।
দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা : বহুল আলোচিত চট্টগ্রামে ১০ ট্রাক অস্ত্র আটকের মামলাটি বর্তমানে হাইকোর্টে শুনানির জন্য রয়েছে। গত ৮ জানুয়ারি এই মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানিতে একটি বেঞ্চ অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর ফাইলটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হয়।
এদিকে পেপারবুকের অভাবে অনেক মামলা সময় মতো নিষ্পত্তি হচ্ছে না। পেপারবুক তৈরি হয়ে আদালতে না আসায় ডেথ রেফারেন্স বেঞ্চে অন্য মামলার শুনানি হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর মামলা চিহ্নিত করে দ্রুত বিচারের পদক্ষেপ নিতে, তালিকাভুক্ত মামলার দ্রুত তদন্ত করতে, ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামিদের আপিল মামলা হাইকোর্টে দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য পেপারবুক তৈরি এবং অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসকে সার্বিক সহায়তা করতে একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছিল। কিন্তু এই মনিটরিং সেলের কোনো খোঁজ নেই। নিম্ন আদালত থেকে তিন বছর আগে হাইকোর্টে আসা অনেক ফাঁসির মামলাও হাইকোর্ট বিভাগ শুনানির কার্যক্রম শুরু করতে পারেনি বলে জানা গেছে।
ডেথ রেফারেন্স মামলা পরিচালনাকারী সংশ্নিষ্ট আইনজীবী জানিয়েছেন, বিজি প্রেস কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় সংখ্যক পেপারবুক আদালতে সময় মতো সরবরাহ করতে পারছে না। বিজি প্রেস কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন হাইকোর্ট বিভাগের কয়েক হাজার কপি কজলিস্ট তৈরি করছে। সংশ্নিষ্ট আইনজীবীরা মনে করছেন, উচ্চ আদালতে ডেথ রেফারেন্স মামলার শুনানি করতে বেঞ্চ সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি ফাঁসির রায় চূড়ান্ত নিষ্পত্তির উদ্দেশ্যে পেপারবুক তৈরিসহ যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পন্নের জন্য অবকাঠামোগত অন্যান্য সুবিধাও বাড়ানো প্রয়োজন।

শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin