শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:০৯ অপরাহ্ন


বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত স্থান-স্থাপনা সংরক্ষনের উদ্দ্যোগ জরুরী

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত স্থান-স্থাপনা সংরক্ষনের উদ্দ্যোগ জরুরী


শেয়ার বোতাম এখানে

আব্দুল আলিম শাহ:

১৯৪৭ এর দেশ ভাগের সময় থেকে সিলেটের সাথে স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগাযোগ। তৎকালীন আসাম প্রদেশের একটি অঞ্চল সিলেট পাকিস্থানের অংশ হবে নাকি ভারতের হবে সেই সিদ্ধান্ত নিতে গণভোট অনুষ্ঠিত হয় সে বছর ৬ ও ৭ জুলাই। গণভোটের রায়ে ভারতের ছেড়্রে তৎকালীন পাকিস্থানের অংশ হিসেবে যুক্ত হয় সিলেট্ অঞ্চল।

সেই গণভোটে অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হোসেইন শহীদ সোহরাওয়ার্দির নির্দেশে সিলেট আসেন মাত্র ২৭ বছর বয়সের ছাত্রনেতা শেখ মুজিবুর রহমান। সিলেট নগরের শিবগঞ্জের বখতিয়ার বিবি স্কুলে অবস্থান করেন। তাঁর সাথে ছিলেন অন্তত ২শ ছাত্র নেতা। সেখান থেকে সিলেট অঞ্চল ও ভারতের করিমগঞ্জ, হাইলাকান্দি সহ বিভিন্ন এলাকায় গণভোটে সিলেটকে পাকিস্থানের অংশ হতে প্রচারণা চালান। গনভোটের রায়ে সিলেট পাকিস্থানে ফিরে আসে। সিলেটের প্রথম সফরেই বিজয়ের দেখা পান তরুণ রাজনীতিক শেখ মুজিবুর রহমান।

তারপর থেকে শেখ মুজিবুর রহমান আর সিলেটের সম্পর্ক যেন আপন থেকে আপন হতে থাকে। ইতিহাসের সেই সব ঘটনাবহুল সিলেট সফর জ্যাতি ছড়ায়। ঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগের গ্রেফতার হয়ে সিলেটে কারা বরণ করেন তিনি। সে সময় সিলেটী বংশদ্ভোত লন্ডন প্রবাসিরা শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তির লক্ষে অর্থ সংগ্রহ করেন লন্ডনে। এমনকি লন্ডন থেকে বিখ্যাত আইনজীবি টমাস উইলিয়াম কিউসিকে সিলেটে পাঠান তাঁর মামলা পরিচালনার জন্য।

সিলেটের পরিচিতির সাথে চা একটি অভিচ্ছেদ্য নাম। এদেশে চায়ের উৎপাদন শুরু হয় সিলেট থেকেই। চাকে রপ্তানী পন্য এবং একটি শিল্পের মর্যাদা দিতে যার ভূমিকা ছিল সর্বাগ্রে তিনি হলেন শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৫৪ সালে তিনিই প্রথম বাঙ্গালী হিসেবে চা বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান। ঢাকার মতিঝিলে চা বোর্ডের প্রধান কার্যালয় স্থাপন, চা গবেষনা ইউন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠা এবং ক্লোন চায়ের উৎপাদন শুরু হয় তাঁরই হাত ধরে। চা শ্রমিকদের জীবন মান উন্নয়নে মৌলিক চাহিদা পূরণ ও চা সংসদের শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা সহ ভোটাধিকার প্রদানের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বেই প্রতিষ্ঠিত হয়।

এতোসবের সাথে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জড়িয়ে থাকার গল্প সিলেটের মানুষকে আপ্লুত করে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষের এ অঞ্চলের প্রায় সবকটি সরকারী দপ্তর সংস্থা সহ বেসরকারি অনেক প্রতিষ্ঠিানেও স্থাপিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল সহ নানা স্থাপনা। যাতে বঙ্গবন্ধুকে মানুষের মাঝে বাঁচিয়ে রাখার উদ্দ্যোগ হিসেবেই দেখছেন সবাই।

তবে, ৪৭ থেকে শুরু করে জীবদ্দশায় ২৮ বছরে বহুবার সিলেটের আসা বঙ্গবন্ধুর ভাস্বর স্মৃতি স্থান ও স্থাপনা সমূহ সংরক্ষনের তেমন কোন উদ্দ্যোগ নেয়া হয়নি এখনো।

মুক্তিযুদ্ধের গবেষক, লেখক হাসান মোরশেদ বলেন, জাতির পিতার প্রতি সম্মান্ প্রদর্শণ করে অসংখ্য ম্যুরাল স্থাপন হচ্ছে। এটা ভালো উদ্দ্যোগ। তবে, ঐতিহাসিক এবং রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বৃহত্তর সিলেটের সাথে বঙ্গবন্ধুর সর্ম্পক ভিন্ন মাত্রার। সিলেটের অনেক স্থান-স্থাপনায় তাঁর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। সেই স্মৃতিময় স্থান–স্থাপনাগুলো যথাযথ প্রক্রিয়ায় সংরক্ষণ করা জরুরী।

সিলেট জেলা প্রশাসক কাজী এম এমদাদুল ইসলাম বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি সংরক্ষনেরই একটি অংশ এসব ম্যুরাল স্থাপন। পাশাপাশি জেলা প্রশাসন থেকে তাঁর স্মৃতি রক্ষার লক্ষ্যে একটি প্রকাশনা করা হয়েছে। যা সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মহোদয় আরো বর্ধিত কলেবরে আগামীতে প্রকাশের উদ্দ্যোগ নিয়েছেন।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, সিলেটের বঙ্গবন্ধুর অসংখ্য স্মৃতি রয়েছে। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি সমূহ সরক্ষনের লক্ষ্যে সিলেটে ১৫ একর ভূমিতে ‘বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে সিসিক। যেখানে সিলেটে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি সমূহ তুলে ধরা হবে। এরই মধ্যে্ এই প্রকল্পের নামকরণ অনুমোদন হয়েছে।

সিলেটের সাথে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ও রাজনৈতিক সর্ম্পকের গুরুত্ব বিবেচনায় অবিলম্বে তাঁর স্মৃতিময় স্থান স্থাপনা সমূহ সংরক্ষণ করা হবে প্রত্যাশা সিলেটবাসির।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin